শার্শার বিতর্কিত ইউপি চেয়ারম্যান টিংকু বাহিনীর হাতে গুমের ৬দিন পার হলেও হদিস মেলেনি মহিবুলের-প্রশাসন নীরব

0
115

আরিফুজ্জামান আরিফ ।।শার্শার কায়বা ইউনিয়নের বিতর্কিত চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহম্মেদ টিংকু বাহিনী কর্তৃক অপহরণের পর গুম হওয়া যুবক মহিবুল গুম হওয়ার ৬ দিন অতিবাহিত হলেও এখনো খোজ মেলেনি তার।এদিকে মহিবুলের না পেয়ে পরিবারের দিন কাটছে হতাশায় আর আতংকে।অন্যদিকে প্রশাসন নিরব থাকায় জনমনে চরম সৃষ্টি হয়েছে ক্ষোভের।

সচেতনমহল ও এলাকাবাসী দ্রুত গুম হওয়া যুবক মহিবুলকে উদ্ধার করে তার অসহায় বাবা – মার কোলে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য প্রশাসনের আশু সুদৃষ্টি কামনা করেছে।

এদিকে চেয়ারম্যান টিংকু বাহিনী মহিবুলের পরিবারকে একের পর এক দিয়ে চলেছে
প্রাণনাশের হুমকি ধামক । তারা মহিবুলের বাবা-মাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে সাদা কাগজে টিপসই দিয়ে নিয়েছে। ফলে মহিবুলের পরিবার সহ এলাকাবাসী মধ্যে টিংকু বাহিনীর ভয়ে আংতঙ্ক বিরাজ করছে। প্রাণেের ভয়ে থানায় মামলা করতে সাহস পাচ্ছে না মহিবুলের পরিবার।

মঙ্গলবার সকালে সরজমিনে গেলে মহিবুলের বাবা শুকুর আলী ধোবন হাউ মাউ করে কান্নাজড়িত কন্ঠে বলেন, শার্শা থানায় ডেকে নিয়ে গিয়ে প্রশাসনের সামনে বসে চেয়ারম্যান ও তার বাহিনী তার ও তার স্ত্রী কে ছেলেকে ফেরত পেয়েছে মর্মে জোর করে টিপসই দিয়ে নিয়েছে। অথচ এখনো ছেলেকে ফিরে পায়নি তার পরিবার।
এমনকি কোনো খোজ মেলেনি মহিবুলের।

আর এদিকে একটি সুবিধা ভেগী মহল টিংকু বাহিনীর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে মিথ্যা প্রচার প্রচারনা করছে মহিবুলকে পাওয়া গেছে ও ফিরে পেয়েছে তার পরিবার।

কিন্তু সরেজমিনে মহিবুলের বাড়ীতে গেলে মিলেছে সত্যতা। মহিবুল গুম হওয়ার ৬ দিন অতিবাহিত হলেও এখনো পর্যন্ত তার কোন খোজ পানি তার পরিবার।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার শার্শার কায়বা গ্রামের দাউদ আলী নামে এক মাদক ব্যবসায়ীর মেয়ের অসামাজিক কাজের ভিডিও করাকে কেন্দ্র করে ওই গ্রামের শুকুর আলী ধোবনের ছেলে মহিবুলকে অপহরণের পর গুম করে কায়বার বিতর্কিত চেয়ারম্যান টিংকু বাহিনী।

এসময় তারা মহিবুলের পরিবারের কাছে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে। দাবী কৃত টাকা না দেওয়ায় শুক্রবার সন্ধ্যায় চেয়ারম্যান টিংকুর বাহিনী ক্যাডার দাউদ, ভাবলু ও রফিকুল সহ ১০ / ১২ জন দূর্বত্ত মহিবুলকে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে আসে চেয়ারম্যান টিংকুর কাছে। এর পর থেকে মহিবুলকে আর ফিরে পায়নি তার পরিবার। তার পরিবারের দাবী চেয়ারম্যান টিংকুর ক্যাডার দের দাবীকৃত ২ লাখ টাকা না দেওয়ায় মহিবুলকে গুম করা হয়েছে।

মহিবুলের মা মাছুরা খাতুন জানান, আমার ছেলে মহিবুলকে শুক্রবার সন্ধ্যায় চেয়ারম্যান টিংকুর কাছে নিয়ে যাচ্ছি বলে দাউদ, ভাবলু ও রফিকুল সহ ১০/ ১২ জন লোক জোর করে ধরে নিয়ে যায়। চেয়ারম্যান টিংকুই আমার ছেলেকে গুম করে রেখেছে।

যুবকটি গুম হওয়ার বিষয়ে অভিযুক্ত শার্শার কায়বা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাসান ফিরোজ আহম্মেদ টিংকুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ছেলেটিকে নিয়ে আসার পর তাকে দাউদের মাধ্যমে আমি শার্শা থানায় পাঠিয়েছি। পুলিশের কাছে দেওয়ার পর আমার দায় দায়িত্ব শেষ।

এ ব্যাপারে শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আতাউর রহমান বলেন, থানায় কোন ছেলেকে কেউ হস্তান্তর করেনি। এবং আমরা কাউকে কারো কাছ থেকে বুঝে নেইনি।