শার্শায় করোনা প্রতিরোধে কাঁচা বাজার গুলো খোলা জায়গায় স্থানান্তরিত

0
310

আরিফুজ্জামান আরিফ : শার্শা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী প্রাত্যহিক হাট ও বাজারগুলোতে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য নিকটবর্তী খোলা মাঠে কাঁচা বাজার ও মাছের দোকান বসানো হয়েছে।

শনিবার থেকে শার্শা উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশক্রমে উপজেলার বেনাপোল,শার্শা, নাভারন ও বাগআচড়া বাজারে এই আদেশ কার্যকর করা হয়েছে।

যশোর বেনাপোল ও নাভারন সাতক্ষীরা মহাসড়কের দু’ধারের প্রাত্যহিক বাজারও সরানো হয়েছে।তবে গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারে একই পদ্ধতি অবলম্বনের কথা বলা হলেও সেখানে এখনও চিরাচরিত অভ্যাসেই তারা পাশাপাশি দাঁড়িয়ে কেনাকাটা করেছেন অধিকাংশরাই।

শার্শা উপজেলা প্রশাসন ও বেনাপোল, শার্শা,নাভারন ও বাগআচড়া বাজার কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক বেনাপোলে কাঁচা বাজার ও মাছের দোকান বসেছে বেনাপোল নায়েব অফিসের মাঠে।বাগআঁচড়া হাইস্কুল মাঠে,শার্শায় হাসপাতালের সামনে এবং নাভারনে হাইস্কুল মাঠে সাময়িক ভাবে বাজার বসানো হয়েছে। বাজার সকাল ৮টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত চালু থাকবে।

এসব বাজারে সরকারিভাবে তৈরি করা হাটচান্দি রয়েছে। সেখানে স্থায়ী দোকানে বসে ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা পরিচালনা করতেন।করোনা সচেতনতায় সরকারি নির্দেশনা থাকলেও সরেজমিনে এসব বাজারঘাটের বিভিন্ন দোকানে নির্দিষ্ট দূরত্ব বজায় রেখে কেনাকাটা করতে দেখা যায়নি।

চিরাচরিত অভ্যাসেই তারা দোকানে যাচ্ছেন এবং পাশাপাশি দাঁড়িয়ে কেনাকাটা করছেন।তাই সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান শার্শা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পুলক কুমার মন্ডল।

বাগআঁচড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বাজার কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব
ইলিয়াছ কবির বকুল বলেন,উপজেলার সবচেয়ে বড় ব্যবসা কেন্দ্র বাগআঁচড়া।এখানে প্রাত্যহিক বাজারের পাশাপাশি সপ্তাহে দু’দিন কাঁচামালের হাট বসে।এ হাট থেকে ২৫-৩০ ট্রাক কাঁচামাল দেশের বিভিন্ন জেলায় যায়।

বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা ক্রেতা বিক্রেতাদের আগমনে বাজারটি জমজমাট হয়ে উঠে। চিরাচরিত অভ্যাসেই তারা পাশাপাশি দাঁড়িয়ে কেনাকাটা করেন।তাই ফাঁকা মাঠে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে বেচাকেনা করার জন্য এইসব বাজার বসানো হয়েছে।