শার্শায় পুলিশের সাথে চোরাকারবারীদের সংঘর্ষ, সাড়ে সাত কোটি টাকার সোনা উদ্ধার

0
91

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের শার্শায় পুলিশ ও চোরাকারবারীদের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসময় দুই চোরাকারবারীকে আটক করেছে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে নয় কেজি ৭৫৮ গ্রাম সোনা উদ্ধার করা হয়েছে। যশোরের ডিবি পুলিশ ও শার্শা থানা পুলিশের যৌথ অভিযানে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১১টার উপজেলার জামতলা এলাকা থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। উদ্ধারকৃত সোনার দাম সাত কোটি ৫৭ লাখ ১২ হাজার ৬শ’৮০ টাকা। এ ঘটনায় দুই পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন ও একজন নিহত হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানিয়েছেন নাভারন সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান। আটককৃতরা হলেন, কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলার সাতারদিয়া গ্রামের আবুল সরদারের ছেলে রবিন ও একই উপজেলার পাঁচগাছিয়া গ্রামের কবির হোসেনের ছেলে আবুল কাশেম।
সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান আরও জানান, যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদারের নির্দেশে, জামতলার পাঁচ পুকুর এলাকায় রাত সাড়ে ১১টার পর যশোর ডিবি পুলিশেরর ওসি রুপণ কুমার সরকার ও শার্শা থানা পুলিশের ওসি মামুন খান চেকপোষ্ট বসায়। এ সময় পুলিশ সন্দেজনকভাবে সাতক্ষীরা থেকে যশোর অভিমুখী আসা দ্রুতগামী একটি প্রাইভেট কারসহ দুইজনকে (ঢাকা মেট্রো-গ ২২-০৪২৪) আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। প্রাইভেট কারে থাকা দুইজন স্বর্ণ পাচারকারী তাদের কাছে স্বর্ণ আছে বলে স্বীকার করেন। এর কিছুক্ষণের মধ্যে মহাসড়কের দু’দিক থেকে ১০ থেকে ১৫টি মোটরসাইকেলে ২০ থেকে ২৫ জন যুবক এসে পুলিশের ওপর অতর্কিত হামলা করে প্রাইভেট কার ও স্বর্ণ পাচারকারীদের ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় তারা পুলিশকে লক্ষ করে কয়েকদফা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। পুলিশও পরিস্থিতি মোকাবিলায় পাল্টা রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। এক পর্যায় দুর্বৃত্তরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে চলে গেলে পুলিশ আটকদের শরীর ও প্রাইভেট কার তল্লাশি করে ৯ কজি ৭৫৮ গ্রাম ওজনের ৩০টি স্বর্নের বার উদ্ধার করা হয়। এসময় ঘটনাস্থল থেকে ৫০০ গজ দূরে মহাসড়কের পাশে এক অজ্ঞাত ব্যক্তিকে মোটরসাইকেলসহ আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে পুলিশ। ওই ব্যক্তিকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে নিহত ব্যক্তির নাম ওলিয়ার ওরেফে ওলি মাকরা (৩৫)। তিনি বেনাপোলের রাজাপুর গ্রামের মৃত জাহান আলীর পুত্র। ঘটনাস্থল থেকে একটি প্রাইভেটকার, তিনটি মোটরসাইকেল ও ছয়টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় শার্শা থানায় পৃথক দুইটি মামলা করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, যশোরের ডিবি পুলিশের ওসি রুপন কুমার সরকার, শার্শা থানার ওসি মামুন খান, ডিবির পুলিশের পরিদর্শক শহিদুল ইসলাম হাওলাদার, এসআই শামীম হোসেন প্রমুখ।