“শার্শায় রাজনৈতিক নেতাদের ভাগ্য বদল হলে ও বদলে যায়নি গোকর্ন গ্রামের যাতায়াতের একমাত্র কাচা সড়কটি”

0
395

আরিফুজ্জামান আরিফ: শার্শার রাজনৈতিক নেতাদের ভাগ্য বদল হলে ও বদলে যায়নি গোকর্ন গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যাতায়াতের ও গ্রামবাসীর চলাচলের একমাত্র কাচা সড়কটি।
যুগ যুগ ধরে কাচা রাস্তাটি দিয়ে হাটতে সবচেয়ে বিপাকে পড়ে কোমলমতি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছেলে মেয়েরা।

এলাকাবাসী অভিযোগ ও আক্ষেপের সাথে বলেন,যুগের পর যুগ অবহেলিত রয়েছে উত্তর শার্শার এ জনপদটি। এ জনপেদে নির্বাচনের সময় নেতারা বড় বড় আশার বানী শোনালে ও ৫ বছরের মধ্যে আর তাদের দেখা যায় না। এলাকার মানুষ নেতাদের ভাষনে রাস্তার উন্নয়ন হবে, ভাল ভাবে হাটাচলা করা যাবে, স্কুলের ছেলে মেয়েরা ও ভাল ভাবে হেটে স্কুলে যেতে পারবে এ আশায় নেতাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাদের ভোট দেয়। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখ জনক যে নেতারা আর এ পথে নির্বাচনের পর পা বাড়ায় না। ফলে আবার ও মিথ্যার ঝুলি বহন করে চলে যায় ৫টি বছর। এ ভাবে যুগ যুগ পার হলে ও এ রাস্তার বা মানুষের চলাচলের জন্য ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হয়নি এ জনপদের।
গোকর্ন গ্রামের আব্দুল হামিদ অভিযোগের সুরে বলেন, নেতারা মিথ্যা কথা বলে ভোটের সময তার পর আর তাদের দেখা যায় না। তিনি বলেন আমরা এ প্রাইমারী স্কুলে পড়েছি। বর্ষা মৌসুমে স্কুলে যেতে কাদা পানিতে পায়ে ঘা হয়ে যেত। আর আজ ডিজিটাল যুগে ও আমাদের ছেলে মেয়েদের ও একই অবস্থা দেখতে হচ্ছে।
এ গ্রামের আরো অনেকে অভিযোগ করে বলেন, সন্ধ্যার সময় ছেলে মেয়েরা পড়া শুনা বাদ দিয়ে বসে পা চুলকাতে। কাদা পানিতে পায়ে ঘা হয়ে চুলকানি শুরু হয়। তা কিভাবে তারা পড়া শুনা করবে। চুলকাতি চুলকাতি তাদের জীবন যায় যায় অবস্থা হয়ে দাঁড়ায়।

বিষয়টির দিকে নজর দিয়ে আশু ব্যবস্হা গ্রহনের জন্য ভুক্তভোগী জনগন জোর দাবী জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here