শার্শা পাইলট মডেল বিদ্যালয়ের  প্রধান শিক্ষক ৩ ছাত্রকে পিটিয়ে আহত করেছে”

0
336

আরিফুজ্জামান আরিফ : শার্শা পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম আবারও ৯ম শ্রেণীর ৩ ছাত্রকে বেদম মারপিট আাহত  করেছে।

আহত ছাত্রের অভিভাবকরা  বিষয়টি জানতে  স্কুলে গেলে ঐ শিক্ষকের সাথে ঝগড়া বেধে যায়। এঘটনায় ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

শার্শা পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী রাজিয়া সুলতানার (১৪) সাথে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে জিতু হাসান (১৪), সাব্বির রহমান (১৪) ও জুয়েল রানা (১৫) কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায় রাজিয়া প্রধান শিক্ষকের কাছে অভিযোগ করলে প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম ঘটনা না শুনে ঐ ৩ ছাত্রকে ক্লাস রুমে বেদম মারপিট করেন। এতে তারা গুরুতর আহত হয়ে পড়লে স্কুলের অন্যান্য শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা এগিয়ে এসে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। আহত ছাত্র জিতুর অভিভাবকরা উত্তেজিত হয়ে স্কুলে এসে মারপিটের কারণ জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক তাদের উপর চড়াও হয়। এক পর্যায়ে প্রধান শিক্ষক ও অভিভাবকের মধ্যে কথা কাটাকাটি। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটিকে জানানো হলে শিক্ষক কওছার আলীকে প্রধান করে  ৭ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। আগামি ৭ দিনের মধ্যে তদন্ত কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হাফিজুর রহমান চৌধুরি বলেন, ক্লাস রুমে কোন ছাত্রকে মারপিট করা সম্পূর্ণ নিষেধ। প্রধান শিক্ষক ইতিপূর্বে এক ছাত্রকে বেঞ্চের পায়া দিয়ে পিটিয়ে পা ভেঙ্গে দিয়েছিল। এবারও ৩ ছাত্রকে পিটাল এগুলি সম্পূর্ণ অবৈধ ও প্রধান শিক্ষকের অযোগ্যতার প্রমাণ দেয়।
শার্শা পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম বলেন, মেয়েদের উত্তক্ত করায় ৩ ছাত্রকে একটু মারা হয়েছে। এতে এক ছাত্রের অভিভাবকরা স্কুলে এসে ঝামেলা করেছে। ছাত্ররা অন্যায় করবে, অথচ তাদের শাসন করা যাবে না।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মেহেদী হাসান বলেন, ছাত্র/ছাত্রীরা একটু দুষ্টুমি করেছে তাই হেড মাষ্টার ছাত্রদের মেরেছে। বড় ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি।
অভিভাবক সদস্যদের নিয়ে একটা কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা নিজেরা বসে বিষয়টি  ঠিক করে নেব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here