শার্শা হাসপাতালকে আধুনিক করতে নিরলস চেষ্টা করছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ ইউসুফ আলী

0
290

নিজস্ব প্রতিবেদক : শার্শা হাসপাতালকে আধুনিক করতে নিরলস চেষ্টা করছেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকরোনা মহামারি কালেও শার্শা উপজেলা হাসপাতালকে আধুনিক মানের হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন বর্তমান স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ইউসুফ আলী। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দিকনির্দেশনা মেনে এবং উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে দেশের মধ্যে আধুনিক ও মডেল হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি। হাসপাতালের অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি প্রাকৃতিক পরিবেশ সৃষ্টি, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা ও চিকিৎসা সেবার মান উন্নয়নে সার্বক্ষণিক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ইউসুফ আলী জানান, উপজেলার ১৮০ গ্রামের ও ঝিকরগাছা উপজেলার কয়েকটি গ্রামের সাধারণ মানুষের জন্য সরকারের যতগুলি সেবা ব্যবস্থা আছে প্রত্যেকটি সেবা কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। সাধারণ মানুষের জন্য আশার কথা হল স্বাধীনতার ৫০ বছরে শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩৫ বছরের মহিলাদের জরায়ু মুখে ক্যান্সার প্রতিরোধে নিয়মিত দক্ষ মেডিকেল টিম দ্বারা কমিউনিটি ক্লিনিক পর্যায়ে ভায়া ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত প্রায় ৪ হাজার ৫শ’ মহিলাকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। দেশের প্রতিটি উপজেলার চেয়ে এ কার্যক্রম এগিয়ে থাকায় সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তর থেকে অভিনন্দন পত্র দিয়েছে স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে। হাসপাতালের আগত সাধারণ সকল মানুষের সেবা দ্রুত নিশ্চিতকরণের জন্য সকল বিভাগের ডাক্তারদের দায়িত্ব বন্টন করে দেওয়ায় প্রত্যেকে আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালনের পাশপাশি কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস কর্মসূচিতেও তাদের সম্পৃক্ততা রয়েছে। হাসপাতলে চিকিৎসা সেবা প্রদানের পাশাপাশি ভারত থেকে আগত পাসর্পোট যাত্রীদের করোনা আক্রান্ত পরীক্ষা নিরীক্ষায় ২৯ জন ডাক্তার ও নার্স জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দায়িত্ব পালন করছেন।
স্থানীয় সংসদ সদস্য শেখ আফিল উদ্দীন গত ৭ ফেব্রুয়ারি কোভিড-১৯ টিকাদান কর্মসূচির উদ্বোধন করেন। এ পর্যন্ত প্রথম ডোজের জন্য নাম রেজিস্ট্রেশন করেছেন ১১ হাজার ৫শ ৬০ জন এবং টিকা গ্রহণ করেছেন ১০ হাজার ৭শ’ জন। ২য় ডোজ টিকা গ্রহণ করেছেন ৭ হাজার। এছাড়া হামরুবেলা ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে শার্শায় ৭৭ হাজার ৩৭২ জন শিশুকে টিকা দেওয়ার টার্গেট করা হয়। লক্ষ্যমান ছাড়িয়েও ১০৪% শিশুকে হামরুবেলা টিকা প্রদান করা হয়। এছাড়া উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় এডিবি উন্নয়ন খাতের অর্থায়নে হাসপাতালে আল্টাসনোগ্রাম ও ইসিজি সার্ভিস চালু করা হয়েছে। প্রত্যেকে বিনামূল্যে এখান থেকে দক্ষ টেকনিশিয়ান দ্বারা রিপোর্ট নিয়ে যাচ্ছেন।
এ কর্মকর্তা বলেন, শার্শা উপজেলা হাসপাতালকে দেশসেরা হাসপাতালে রুপান্তরিত করার জন্য যা যা করা দরকার প্রতিটি কাজ বাস্তবে দেখাতে চাই। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের রুগীদের সেবা নিশ্চিতকরণে দায়িত্ব পালন করছেন। পুরাতন বিল্ডিং, পুরুষ ও মহিলা ওয়ার্ডে টাইলস বসানো, নতুন সিলিং ফ্যান প্রতিস্থাপন, ওয়াসরুম সংস্কার, হাসাপাতালের প্রবেশের রাস্তা সংস্কার করে নান্দনিক পরিবেশ সৃষ্টি করা হচ্ছে। এছাড়া হাসপাতালটি পূর্ণাঙ্গ সেবার মান উন্নয়নের ও চিকিৎসা সেবাকে ভিন্ন ভিন্নভাবে বিভাজন করে দৃশ্যমান করে তোলার জন্য বহিঃর্বিভাগকে কমিউনিটি ক্লিনিক কর্ণারকে ভায়া কর্ণার, গর্ভবতী রেগীদের কর্ণার, ইপিআই কর্ণার, অপুষ্টিজনিত শিশুদের কর্ণার, ওআরটি কর্ণার, ব্লাড কর্ণার, সিষ্টেম চালু করা হয়েছে। প্যাথলজি রুম নতুনভাবে সংস্কার করার পর দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে। এক্স-রে রুম সংস্ক্রার করে বর্তমান কার্যক্রম চালু করা, যক্ষ্মা রোগী শনাক্তের জন্য এক্স-রে প্রিন্ট মেশিন স্থাপনের জন্য নতুনভাবে রুম নির্মাণ, হাসপাতালের কনফারেন্স রুম সংস্কার, ডেন্টাল বিভাগ, হোমিওপ্যাথিক বিভাগ সমৃদ্ধ, প্রতিটি রোগি বিভাজন করে সু-শৃংঙ্খল ও সুন্দরভাবে চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে। এছাড়া নিরাপদ পানির ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য শিক্ষা কর্ণার স্থাপন, ব্রেস্ট ফিডিং কর্ণার স্থাপন, প্রসূতিদের নর্মাল ডেলিভারি করানোর জন্য স্বাস্থ্যসম্মত এসি রুম করা হয়েছে। লেবার ওয়ার্ড তৈরি, পিপিএইচ ম্যানেজমেন্ট রুম তৈরি, জরুরী রোগী পরিবহনে সরকারি খরচ প্রদান সাপেক্ষে সার্বক্ষণিক এম্বুলেন্স সার্ভিস, ওটি কমপ্লেক্স স্থাপন, বর্তমানে পূর্ণাঙ্গ ডায়গনিস্টক ফ্যাসালিটির মাধ্যমে জিন এক্সপার্ট মেশিন স্থাপন করা হয়েছে। স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নের বর্তমানে প্রতিটি খাত দৃশ্যমান।