শিক্ষা কর্মকর্তা বিদেশ ভ্রমণে থাকায় বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত হলেন নড়াইলের ৬৪০ শিক্ষক ! ফেরত যাচ্ছে ৫০ লাখ টাকা

0
448

নড়াইল প্রতিনিধি
কোনো কর্মকর্তাকে দায়িত্ব না দিয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বিদেশ ভ্রমণে থাকায় বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ থেকে বঞ্চিত হলেন মাধ্যমিক পর্যায়ের ৬৪০জন শিক্ষক! নড়াইল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মিলনায়তনে (শনিবার) থেকে ছয়দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রনজিৎ কুমার মজুমদার ধর্মীয় ও দর্শনীয় স্থান ভ্রমণের জন্য ২৫ দিনের (২২ মে থেকে ১৫ জুন) ছুটিতে থাকায় এবং অফিসের আর্থিক ক্ষমতা দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে হস্তান্তর না করায় শেষ পর্যন্ত প্রশিক্ষণের আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে প্রশিক্ষণ বাবদ প্রায় ৫০ লাখ টাকাও ফেরত যাচ্ছে সংশ্লিষ্ট দফতরে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের অধীনে ‘সেকেন্ডারি এডুকেশন সেক্টর ইনভেস্টমেন্ট প্রোগ্রাম’ (সেসিপ) এর আওতায় নড়াইলের মাধ্যমিক পর্যায়ের বাংলা, ইংরেজি, বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়, গণিত এবং বিজ্ঞান বিষয়ের  ৬৪০ জন শিক্ষককে বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ দেয়ার উদ্যোগ দেয়া হয়। ছয়দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ দুইপর্বে আগামি ২১ জুুন শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রনজিৎ কুমার মজুমদার বিদেশ ভ্রমণে থাকায় এবং অফিসের আর্থিক ক্ষমতা কাউকে হস্তান্তর না করায় এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। অর্ধগড় (মূল বেতনের অর্ধেক) বেতনে রনজিৎ কুমারের বহি:বাংলাদেশ ছুটি মঞ্জুর করেন সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষ। তার (রনজিৎ কুমার) অনুপস্থিতিত্বে সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা তপন কুমার বিশ্বাসকে দায়িত্বপ্রাপ্ত করা হলেও আর্থিক লেনদেনের ক্ষমতা দেয়া হয়নি। এ কারণে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের আয়োজনও সম্ভব হয়নি। এতে ক্ষুব্ধ হয়েছেন নড়াইলের মাধ্যমিক পর্র্যায়ের শিক্ষকবৃন্দ। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক শিক্ষক জানান, ক্ষমতা নিজের হাতে রেখে শিক্ষা কর্মকর্তার এ ধরণের ভ্রমণের কোনো মানে হয় না। এতে বিষয়ভিত্তিক দক্ষতা অর্জন থেকে বঞ্চিত হলেন তারা। পাশাপাশি আর্থিক সুবিধাও পেলেন না। ফেরত যাচ্ছে এ অর্থবছরে তাদের জন্য বরাদ্দকৃত প্রায় ৫০ লাখ টাকাও। শিক্ষকেরা প্রশ্ন রেখে বলেন, এ ক্ষতি পুষিয়ে দিবেন কে ?
এ ব্যাপারে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের প্রশিক্ষণ সমন্বয়ক হাবিবুল্লাহ বলেন, অন্যান্য জেলায় (২৭ জেলা) শিক্ষকদের বিষয়ভিত্তিক এই প্রশিক্ষণ (১০ জুন) থেকে শুরু হয়েছে। তবে, নড়াইলের ক্ষেত্রে তা হচ্ছে না। পরবর্তীতে জুলাই বা আগস্টের দিকে হতে পারে। সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা তপন কুমার বিশ্বাস বলেন, প্রশিক্ষণ সফল করতে অফিসের অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীরা আন্তরিক ছিলেন। এজন্য গত ৫ জুন জেলা শিক্ষা অফিস থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরে লোক পাঠানোর উদ্যোগ নেয়া হয়। বিষয়টি ভারত ভ্রমণরত জেলা শিক্ষা কর্র্মকর্তা জানতে পেরে তাতেও বাঁধ সাধেন। তাই শেষ পর্যন্ত এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা সম্ভব হয়নি। এদিকে, দেশের বাইরে থাকায় জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রনজিৎ কুমার মজুমদারের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here