শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাঁচাতে হবে

0
359

আদিকালে গুরুগৃহে গিয়ে বিদ্যাশিক্ষা অর্জনের প্রয়োজন পড়ত। শিক্ষা শেষ হলে বিদ্যার্থী পিতৃগৃহে ফিরে বিবাহাদি সেরে কর্মজীবন শুরু করত। তা সবার জন্যও নয়। দরিদ্র সমাজে শিক্ষিত মানুষ ছিল খুব কম। আনুষ্ঠানিক ও জনশিক্ষা প্রবর্তনের সঙ্গে বিদ্যালয় ব্যবস্থা আসে। প্রথম দিকে টোল ও মক্তব থাকত গুরু বা মুয়ালি্লমের বাসস্থানেই। পরে সরকারি ব্যবস্থাপনায় স্কুল-কলেজের বিকাশ ঘটে। যত বিকাশই ঘটুক, বিদ্যা যে গুরুর কাছ থেকেই নিতে হয়, সেই মৌলিক বিষয়টির বিলোপ ঘটতে পারে না। বইপত্রের যুগ পেরিয়ে এখন দূরে বসে ডিজিটাল নেটে পাঠ্যবিষয় পাওয়া যায় বটে, তবে শিক্ষক না হলে চলে না। গুরু-শিষ্যের সম্পর্কে যদি লাভ-লোকসান যুক্ত হয় এবং শিক্ষা ব্যবস্থায় যদি বাণিজ্য মুখ্য হয়ে দাঁড়ায়, তবে শিক্ষার বড় দুর্গতিই মানতে হবে। একবিংশ শতাব্দীতে এসে আমরা বাংলাদেশে প্রথম থেকে দ্বাদশ পর্যন্ত প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক নিয়ে শিক্ষার মূল কাঠামোতে এমন এক বিপর্যয় লক্ষ্য করছি যে গোটা সমাজ দিশেহারা হয়ে পড়ছে। এর কোনো সমাধান বের করা যাচ্ছে না। তা হচ্ছে শ্রেণিকক্ষের শিক্ষাকে গৌণ করে কোচিং ব্যবস্থার বিশাল বিস্তার। স্কুলের অপেক্ষাকৃত দুর্বল ছাত্রছাত্রীদের জন্য গৃহশিক্ষক বা টিউটর রাখার প্রয়োজন দীর্ঘকাল ধরেই রয়েছে। তবে সেটা হচ্ছে একজন শিক্ষক বাসায় এসে একজন শিক্ষার্থী বা বড়জোর ভাই-বোন দু’জনকে ব্যক্তিগতভাবে পড়া তৈরি করতে সাহায্য করবেন। এখানে সরাসরি গুরু-শিষ্যের ব্যক্তিক সংস্পর্শই থাকছে। কিন্তু আধুনিক বাণিজ্যভিত্তিক কোচিং সেন্টার গড়ে উঠেছে ভাড়া বাড়িতে বা বিত্তবান শিক্ষকের নিজের বাড়িতে প্রকৃতপক্ষে স্কুলের বিকল্প হিসেবে। স্কুলের আগে-পরে এ রকম একাধিক কোচিং সেন্টারে হাজির হয়ে ছাত্রছাত্রীরা ক্লান্ত-শ্রান্ত হচ্ছে। এর কারণ প্রথমত, এই বাণিজ্যের জন্যই একশ্রেণির শিক্ষক ক্লাসে ঠিকমতো না পড়িয়ে দায়সারা সময় কাটান; দ্বিতীয়ত, ক্লাসে ছাত্রসংখ্যা অনেক বেশি বলে সব ছাত্র শিক্ষকের পড়ানো শুনতে পায় না বা ব্ল্যাকবোর্ড ভালোভাবে দেখতে পায় না; তৃতীয়ত, অনেক অসৎ শিক্ষক নিজেরাই প্রাইভেট পড়তে বলেন, যাতে তাদের কাছে না পড়লে ফল খারাপ হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। বুধবার সমকালের এক প্রতিবেদনে উন্মোচিত হয়েছে, রাজধানীর নামকরা কিছু স্কুলের বিশেষ বিশেষ শিক্ষক সারাদিন ব্যাচের পর ব্যাচে কয়েকশ’ ছাত্র পড়িয়ে মাসে ১৫ লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করেন। কোচিং সেন্টার পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের উৎস বলেও জানা গিয়েছিল। বাণিজ্যিক কোচিং এবং অর্থবই, গাইড বইয়ের দাপট স্কুলশিক্ষা ও সরকারের বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণকে প্রহসনে পরিণত করেছে। আমরা সরকারের কাছে আহ্বান জানাচ্ছি, অবিলম্বে দেশের সব শিক্ষাবিদ ও সৎ বিশেষজ্ঞদের নিয়ে পরামর্শ করে শিক্ষার এই বিপর্যয় রোধের পথ উদ্ভাবন করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here