শিনজো আবের জাপান কোন পথে?

0
236

সোমবার জাপানের আইনসভার নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের রক্ষণশীল লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি ও ইহার ক্ষুদ্র শরিক ধর্মবাদী কমিতো দল মিলিয়া নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করিয়াছে। এই জয়ের মধ্য দিয়া চতুর্থবারের মতো জাপানের প্রধানমন্ত্রী হইলেন শিনজো আবে। প্রধান বিরোধী দল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি নানা কারণে বেসামাল অবস্থায় পড়িয়া থাকা অবস্থাতেই, গত মাসে আচমকা নির্বাচনের ডাক দিয়া শিনজো আবে বিশাল এক ঝুঁকি লইয়াছিলেন। এই ঝুঁকি যে এতখানি ফলদায়ী হইবে তাহা জাপানের রাজনীতির গভীর পর্যবেক্ষকরাও আন্দাজ করিতে পারেন নাই। উল্লেখ্য, গত গ্রীষ্মে ক্ষমতাসীন দলের দুর্নীতি লইয়া একাধিক তথ্য ফাঁসের পরে আবের ব্যক্তিগত জনপ্রিয়তা ভীষণভাবে কমিয়া গিয়াছিল। এক্ষণে নির্বাচনের মধ্য দিয়া দারুণভাবে ফিরিয়া আসা আবে যে নূতন করিয়া তাঁহার পুরানা উদ্দেশ্যগুলি হাসিলে সক্রিয় হইবেন তাহাতে কোনো সন্দেহ নাই।

শিনজো আবে দীর্ঘদিন ধরিয়াই উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে জাপানের আক্রমণাত্মক অবস্থান গ্রহণের পক্ষে। তাঁহার মতে পরমাণু অস্ত্র ও মিসাইল হুমকির জন্য উত্তর কোরিয়াকে যথোচিত জবাব দেওয়া না হইলে দেশটি জাপানকে একেবারে পাইয়া বসিবে। এই অবস্থা হইতে বাহির হইয়া আসিবার জন্য আক্রমণাত্মক কূটনীতি ও কড়া সামরিক অবস্থানের পক্ষেই আবের অবস্থান। এই অবস্থান তিনি এইবারের নির্বাচনী প্রচারাভিযানেও গুরুত্বের সহিত তুলিয়া ধরিয়াছেন। নির্বাচন পরবর্তী এক বক্তব্যে উত্তর কোরিয়া প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সহিত ‘গভীর আলোচনায়’ বসিবেন বলিয়াও জানাইয়া রাখিয়াছেন আবে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হইতেছে যে, উত্তর কোরিয়ার হুমকির বিষয়টিকে ব্যবহার করিয়া জাপানিদের জাতীয়তাবাদী আবেগে ভালোই নাড়া দিতে পারিয়াছেন তিনি। তবে উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে জুতসই অবস্থান গ্রহণের মধ্যেই আবের রাজনৈতিক মতাদর্শ সীমাবদ্ধ নহে। আবে মূলত জাপানের সংবিধান পাল্টাইতে চাহেন। তিনি মনে করেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পরাজয়ের পরে ১৯৪৮ সালে প্রণীত এই সংবিধানটি জাপানের জন্য দাসখতস্বরূপ। এই সংবিধানে জাপানের সামরিক সামর্থ্যকে কেবল আত্মরক্ষামূলক করিয়া রাখিবার বিষয়টিকেও দীর্ঘকাল ধরিয়া সমালোচনা করিতেছেন আবে। এই শতাব্দীর শুরুর দিক হইতেই জাপানের সংবিধানের মৌলিক পরিবর্তন ঘটাইবার পক্ষে তাঁহার অবস্থান। এইবারের নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার বরাতে আবের এই স্বপ্ন পূরণ হইয়া যাইবে বলিয়া মনে হইতেছে। তেমন কিছু হইলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধপরবর্তী জাপানের পরিচিত রূপটি যে অনেকখানি পাল্টাইয়া যাইবে তাহা বলাই বাহুল্য।

জাতীয়তাবাদী আবেগ ব্যবহার করিয়া দেশের সংবিধান পাল্টাইয়া ফেলিতে সক্ষম হইলেও, সামরিক ব্যয় যেনতেনভাবে বাড়াইয়া ফেলাটা শিনজো আবের জন্য খুব একটা সহজ কর্ম হইবে বলিয়া মনে হয় না। বত্সরের পর বত্সর ধরিয়া অর্থনীতির শ্লথ গতি, জন্মহারের নিম্নগতি এবং পেনশনভোগী মানুষের সংখ্যার ক্রমবৃদ্ধি জাপানের জন্য প্রবল চাপ হিসাবে দেখা দিয়াছে। এইসকল বিষয় জাপানের রাজনীতির প্রধানতম আলোচ্য বিষয়। এইগুলিকে একপাশে ফেলিয়া রাখিয়া সামরিক বিষয়ে খুব বেশি বিলাসিতার সুযোগ আবে পাইবেন বলিয়া মনে হয় না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here