শিশুদের জন্য কোডিং বা কম্পিউটার প্রোগ্রামিং

0
95

শিশুদের হাতে কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল বা ইলেকট্রনিক ডিভাইস নতুন কোনো বিষয় নয়। কিন্তু শিশুদেরকে কোডিং বা প্রোগ্রামিং শেখানোর অর্থ এই নয় যে বাচ্চারা বিজ্ঞানী, কোডার বা প্রোগ্রামার হবে যেমন গণিত শিখে কিন্তু সবাই গণিতজ্ঞ হয় না। তাহলে প্রশ্ন আসতেই পারে আমরা কেন বাচ্চাদের গণিত শেখাই? কেন শেখাই জ্যামিতিক বিষয়গুলো? কারণ এগুলো শিশুদের চিন্তাশক্তির বিকাশ ঘটিয়ে শিশকে ভাবতে শেখায়, তাৎক্ষনিক লাভের আশাতে শিক্ষা লাভ করা যায় না। কোডিং হলো নতুন যুগের হাতিয়ার। শিশুরা স্ক্যাচের বিড়াল নাচাতে প্রবলেম সলভিং শিখে যাবে এবং তারা প্রতিকূলতা জয় করতে শিখে যাবে। তাদের বুদ্ধির বিকাশ ঘটবে এবং গাণিতিক ও যৌক্তিক চিন্তার শক্তি বৃদ্ধি পাবে। এ বছর থেকেই প্রাথমিকের বিজ্ঞান বইয়ে যুক্ত হচ্ছে স্ক্যার্চ প্রোগ্রামিং। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের ১৩ টি জেলার ২২ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রশিক্ষণ, ক্যাম্পিং চলছে গবেষণা। শিশুরা কেমন ভাবে নিচ্ছে স্ক্যার্চের কোডিং শেখ কে। ভাবছেন কিভাবে সব শিশুদের হাতে কম্পিউটার পৌছাবে? প্রয়োজন নেই সব শিশুর নিজস্ব কম্পিউটার বা ল্যাপটপের। বিদ্যালয়েল ল্যাপটপে দলে ভাগ হয়ে প্রত্যেকে এই স্ক্যার্চেল বিড়াল নাচানোর সুযোগ পেলেই হলো, দেখবেন ওরাই করে ফেলবে বাজিমাত। এছাড়া বর্তমান সরকারের উদ্যেগে স্ক্যার্চেল বাংলা বইও বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। যে কেই এই বই দেখে শিশুদেরকে শেখাতে পারেন কোডিং বা স্ক্যার্চ প্রোগ্রামিং। সব শিশুকে প্রোগ্রামার বানাতে নয় বরং শিশুদের ছোট থেকেই লজিক বিল্ডিং প্রব্লেম সলভিং, ক্রিটিক্যাল থিংকিং এর মত বিষয়গুলো খেলার মাধ্যমে চর্চা করার সুযোগ থেকে যেন বাংলাদেশের শিশুরা বঞ্চিত না হয় সেই উদ্দেশ্য নিয়ে তৈরি বিশ্বখ্যাত এমআইটির একটি প্রজেক্ট এই স্ক্যার্চ প্রোগ্রামিং। বাংলাদেশের শিশুদের মধ্যে এই ধারণা ঢুকিয়ে আর তাতে আনন্দ যোগ করে খেলাচ্ছলে কম্প্টিুারের কার্যকর ব্যবহারে অভ্যস্ত করে তুলতে এটা একটি যুগান্তকারী উদ্যোগ। বাংলাদেশের শিশুরা ২০৪১ সালের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় যোগ্য নাগরিক হওয়ার লড়াইয়ে জিতবেই।

লেখক : লাবনী সাহা
সহকারী শিক্ষক
৪৫ নং মধ্যপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
অভয়নগর, যশোর।