শীতের সাথে জমজমাট হয়ে উঠেছে ধুপি পিঠার ব্যবসা

0
798

ডি এইচ দিলসান : শীত আসলেই গ্রামীণ জনপদের প্রতিটি পরিবারে পিঠা তৈরি ধূম পড়ে যায়। খেজুর রস গুড় আর নতুন ধানের চালে হরেক রকমের পিঠা তৈরিতে ব্যস্ত থাকে গ্রামের বধূরা। অনায়াসেই হাতের কাছে পাওয়া যায় পিঠা তৈরির উপকরণ। বর্তমানে কিন্তু এ চিত্র শহরের মানুষের কাছে সম্পূর্ণ ভিন্ন। নগর জীবনের ব্যস্ততা, পিঠা তৈরির উপকরণ সংগ্রহ ও তৈরির ঝামেলায় অনেকের বাড়িতে পিঠা তৈরি সম্ভব হয় না। তাই শহরের মোড়ে পিঠার দোকানকে পেছনে ফেলে যাওয়া অনেকের জন্য কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। তাই অনেকে দোকান থেকে পিঠা কিনে খেয়ে তৃপ্তি পান। শীতের শুরুতেই যশোর শহরের মোড়ে মোড়ে ধুপি পিঠা বিক্রি জমে উঠেছে। পিঠা প্রিয়রা দলে দলে আসে ধুপি পিঠা বিক্রয় কেন্দ্র গুলোতে। শহরের দড়াটানা ট্রাফিক সিগন্যাল, বেজপাড়া রানার অফিস মোড়, গুলগুল্লার মোড়, ঘোপ সেন্ট্রাল রোড, চুয়াডাঙ্গা বাসস্টান্ড এলাকা, ডা. আব্দুর রাজ্জাক কলেজ গেট, রেলস্টেশন বাজার, বারান্দিপাড়া বরফ কলের সামনে, পালবাড়ি মোড়, ধর্মতলা মোড়, এম এম কলেজের সামনে, আপন মোড়সহ প্রায় অর্ধ শতাধীক জায়গায় পিঠা বিক্রি হয় পুরো মৌসুম জুড়ে। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন স্থানে জমজমাটভাবে চলছে ভাপা পিঠা বিক্রি।

সোমবার সন্ধায় যশোরের বেজপাড়া গুল গুল্লার মোড়ে রানার মায়ের ধুপি পিঠা বিক্রয় পয়েন্টে দেখা যায় উপচেপড়া ভিড়। রানার মা বসে বসে পিঠা তৈরি করছে, আর অধীর আগ্রহে ক্রেতারা তাকে ঘিরে রেখেছে। পিঠা উঠছে আর ক্রেতারা কাড়াকাড়ি করে নিচ্ছে পিঠা। শহরের পূজার মাঠ এলঅকায় ভাড়া বাড়িতে থাকে রানা আর রানার মা। রানার মা বলেন, রানা এক সময় রাস্তায় রাস্তায় পাপর বিক্রি করতো, তারপর রানার এক সাংবাদিক বড় ভায় দিলসানের কল্যানে এখন আমাদের একটি দোকান আছে, দোকানে সারা দিন মুদি খানার মাল বিক্রি করি আর সন্ধা হলে পিঠা তৈরি করে বিক্রি করি, এখন রানাকে আর পাপর বিক্রি করতে হয় না ও এখন স্কুলে যায়। শীতের পুরো মৌসুমে তিনি এই পিঠা বিক্রি করে থাকেন। প্রতিদিন তার ৫শ থেকে ১ হাজার টাকা হয়। তার পিঠার ব্যাপক কদর থাকায় দূর-দুরান্ত থেকে লোকজন এসে ভিড় জমায়। কখনো কখনো পিঠা বানানোর জন্য বিভিন্ন স্থান থেকে তাকে ভাড়া করে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি বলেন এবছর কয়েকটা বিয়ের অনুষ্ঠান ও নন্দনের পিঠা উৎসবে আমি পিঠা বানিয়েছি। বর্তমান চাহিদা ব্যাপক থাকায় একার পক্ষে সরবরাহ করা কষ্ট হয়ে যায়। তিনি বলেন, মানুষের ভালোবাসা আর আমার রানার লেখাপড়ার জন্য আমি পিঠা বানিয়ে বিক্রী করি। পিঠাতে কেমন লাভ হয় জানতে চাইলে রানার মা বলেন আমি একটি ধুপি ৫ টা বিক্রী করি এতে আমার যা লাভ হয় তাতে ভালোই লাভ হয়।
কথা হলো শহরের চুয়াডাঙ্গা বাস স্টান্ডের মোড়ে রাহেলার সাথে, তিনি বলেন, আমার পৃথিবীতে আর কেউ নেই, এক সময় খারাপ কাজ করতাম এথন পিঠা বানিয়ে বিক্রী করে যে টাকা হয় তা দিয়ে পেট চালায়। তিনি বলেন ১০ টাকা করে পিঠা বিক্রি করি আমি, বিকেল থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত আমি দম ফেলানোর সময় পায় না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here