শুকনো মৌসুমের অন্যতম প্রধান আকর্ষনীয় সবজী পটলের হাট শার্শার বাগআঁচড়া জমে উঠেছে

0
373

আরিফুজ্জামান আরিফ : শুকনো মৌসুমের অন্যতম প্রধান আকর্ষনীয় সবজী পটলের হাট শার্শার বাগআঁচড়া জমে উঠেছে”।

শার্শা উপজেলার এই হাটটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সর্ববৃহৎ পটলের হাট বলে স্থানীয় আড়তদাররা মনে করেন।

আড়তদার আব্দুর রহমান  বলেন, এ অঞ্চলের সবচেয়ে বড় এই পটলের হাটে প্রতিদিন পাঁচ থেকে সাত হাজার মণ পটল কেনাবেচা হয়। স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে বাকিটা চলে যায় বিভিন্ন জেলায়।”

প্রতিদিন সূর্য ওঠার আগেই চাষী, পাইকার, মজুরের হাঁকডাকে মুখর হয়ে ওঠে যশোর শহর থেকে ৩৭ কিলোমিটার পশ্চিমে নাভারন-সাতক্ষীরা মহাসড়কের পাশের এই বাগআঁচড়া বাজার।

বাগআঁচড়া বণিক সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কবির বকুল বলেন, “হাজারো ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগম হয় এ হাটে। সোম ও বৃহস্পতিবার পটলের বাজার জমজমাট থাকে। তবে অন্যদিনও বেচাকেনা হয়।”

আবহাওয়া অনুকূল থাকায় এ বছর ফলন ভালো হয়েছে। আর দামও গত কয়েক বছরের মধ্যে ভালো বলে কৃষকের মুখে সোনালী দিনের হাসি দেখা যাচ্ছে।

বাহাদুরপুর গ্রামের চাষী ফরিদ গাজি বলেন, “বৈশাখ মাসের এই সময় আগে চার-পাঁচ টাকা দরে পটল বেচতাম। আজ বেচেছি ২২ টাকা দরে। পাঁচ বিঘা জমিতি চাষ করে এই পর্যন্ত প্রায় ৭০ হাজার টাকার পটল বেচিছি। আরও লাখ টাকার পটল বেচার আশা আছে।”

পাইকাররা  দেশের দূর দূরান্ত থেকে পটল কিনতে আসে এ হাটে। পাবনার পাইকার মজিবর রহমান তাদেরই একজন।
তিনি বলেন, “বাজারে পটলের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। দাম অন্য অনেক সময়ের চাইতে বেশি। দাম পেয়ে কৃষকরা খুশি। তবে আমরা কম দামে কিনতে পারলে লাভ বেশি হয়। এখন লাভ একটু কম হচ্ছে।”

প্রতিদিন এখানে নারী-পুরুষ মিলে দুই শতাধিক লোক মজুর খেটে সংসার চালায় বলে জানান পটল হাটের লেবার সর্দার আনসার আলী।

সরজমিনে দেখা গেছে, চাষীরা পটল এনে আড়তদারদের কাছে বিক্রি করেন। আড়তদাররা বিক্রি করেন পাইকারদের কাছে। তারপর পাকা রাস্তার ধারে মজুররা বস্তায় ভরেন থরে থরে। ট্রাক ভরে তা চলে যায় দেশের  ঢাকা সহ বিভিন্ন এলাকায়।

তবে  ব্যস্ততম এ মহাসড়ক দখল করে এ পটল ব্যাবসার কার্যক্রম চলার কারণে প্রায়ই এখানে যানজট দেখা দেয়। ঘটে দুর্ঘটনা। ক্রেতা-বিক্রেতারা প্রশাসনের কাছে এর প্রতিকার চেয়েছেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হীরককুমার সরকার জানিয়েছেন, এ বছর শার্শায় ৩২০ হেক্টর জমিতে বারী-১ ও বারী-২-সহ স্থানীয় বিভিন্ন জাতের পটলের চাষ হয়েছে।

পটলের ফলন সম্পর্কে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নারায়ণচন্দ্র পাল বলেন,অনুকুল পরিবেশের কারণে উপজেলায় পটলের বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষকের মধ্যে পটল চাষের আগ্রহ বাড়ছে। আগামীতে আরও অনেক পটল উৎপাদন হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। আর কৃষকরা  এ মৌসুমে আশানুরূপ দাম পেয়ে দারুণ খুশি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here