শুধু রক্ত আর রোদন

0
270

যুদ্ধ ছাড়া আর কোনো অভিজ্ঞতাই নাই সিরিয়ার লক্ষ লক্ষ শিশুর। কথাটি এক লাইনে বলিয়া দেওয়া গেল বটে, কিন্তু একটিবার গভীরভাবে চিন্তা করিলে যেকোনো পাঠকের চিত্ত বিচলিত হইয়া উঠিবে। কী অপরাধ এই অবোধ শিশুদের? একটি সুন্দর দেশ ছিল তাহাদের, প্রাচুর্য ছিল, একটি সচ্ছল জীবন ছিল তাহাদের পূর্বসূরির। ২০১১ সাল হইতে সিরিয়ায় চলমান যুদ্ধ ও সহিংসতার কারণে লক্ষ লক্ষ শিশু দেখিয়াছে কেবল যুদ্ধের ভয়াবহতা। এই নির্মম, নৃশংস, অমানবিক যুদ্ধের ফলে সিরিয়ায় সৃষ্টি হইয়াছে এমন একটি প্রজন্ম, যাহারা প্রচণ্ড মানসিক চাপ তথা টক্সিক স্ট্রেসের ভিতর দিয়া দিনাতিপাত করিয়া চলিয়াছে।

ইউনিসেফের নূতন রিপোর্ট বলিতেছে, ২০১৬ সালে সিরিয়ায় যুদ্ধে প্রাণ গিয়াছে ৬৫২টি শিশুর। দেখা গিয়াছে—অর্ধেকের বেশি শিশু মারা গিয়াছে স্কুলে অথবা স্কুলের আশেপাশে অবস্থানরত অবস্থায়। যুদ্ধ যেন সিরীয় শিশুদের রাতারাতি নির্মম বাস্তবতা শিখাইতেছে। আকাশপথে পরিচালিত হামলায় বিরোধী ঘাঁটির সহিত স্কুলের ফারাক নাই। বোমা দুই জায়গাতেই পড়ে। ইউনিসেফ-এর তথ্য বলিতেছে, ২০১৬ সালে সরাসরি যুদ্ধে নামানো হইয়াছে সাড়ে আট শত শিশুকে, যাহা ২০১৫ সালের তুলনায় দ্বিগুণ। শত্রুর আক্রমণের মুখে বাচ্চাদের ঠেলিয়া দেওয়ার ঘটনাও কম নহে। স্বাভাবিকভাবেই অহর্নিশ নৃশংসতাকে চাক্ষুষ করিতে হইতেছে সিরীয় অসংখ্য শিশুকে। তিন বত্সরের ছেলে সাইদ রোজ রাতেই ঘুমের মধ্যে কাঁদিয়া ওঠে। সাইদের বাবা ফিরাস জানাইয়াছেন, সাইদের মনে ভয় ঢুকিয়াছে—কেহ হয়তো ওর গলা কাটিয়া লইবে। কারণ, বাড়ির সামনে দিনের আলোয় সাইদ চাক্ষুষ দেখিয়াছে একজন আরেকজনের গলা কাটিয়া লইতে। এই সকল শিশুর মানসিক স্বাস্থ্য লইয়া আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘সেভ দ্য চিলড্রেন’ একটি জরিপ চালাইয়াছে। তাহাতে উঠিয়া আসিয়াছে যে, প্রায় সকল শিশু এবং ৮৪ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্কই বলিয়াছেন, বোমা ও শেল হামলা শিশুদের মানসিক চাপ বৃদ্ধি পাইবার অন্যতম কারণ। ভয়াবহ তথ্য হইল—দুই-তৃতীয়াংশ শিশু তাহার প্রিয়জনকে হারাইয়াছে। তাহাদের বাড়িতে বোমা বা শেল হামলা হইয়াছে। কিংবা যুদ্ধের কারণে স্বজনেরা আহত হইয়াছে। ৪৮ শতাংশ অভিভাবক বলিতেছেন, তাহারা এমন শিশুদের দেখিয়াছেন, ভয়ে যাহাদের কথা বলা বন্ধ হইয়া গিয়াছে। অর্ধেক সাক্ষাত্কারদাতা বলিয়াছেন, শিশুরা প্রায় সব সময়ই বিমর্ষ থাকে।

এই পর্যন্ত সহিংসতার কারণে সিরিয়া ছাড়িয়া পালাইয়াছে ২৩ লক্ষ শিশু। পালাইতে না পারা কমপক্ষে ৩০ লক্ষ শিশু সিরিয়ায় রহিয়াছে, যাহাদের বয়স ছয় বত্সরের নীচে। বিশেষজ্ঞরা বলিতেছেন, প্রচণ্ড মানসিক চাপ শিশুদের মস্তিষ্ক ও শরীরের বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করে। অনেকে মনে করেন, যুদ্ধের কারণে শিশুদের স্থায়ীভাবে মানসিক ক্ষতি হইতে পারে। মাস যায়, বত্সর যায়, যুদ্ধ জোরদার হয় আর সিরীয় শিশুদের মনে জাঁকিয়া বসিতেছে আরো বেশি বিমর্ষতা। ইহার মতো নিষ্ঠুরতা আর কোথায় আছে? এই পৃথিবী তো শিশুদের জন্যই। শিশুরাই তো তৈরি করে নূতন নান্দনিক পৃথিবী। বিমর্ষতায় ডুবাইয়া রাখা সিরীয় শিশুরা ভবিষ্যত্ সিরিয়া গঠন করিবে কীভাবে? তাহারা কি এই বিশ্বের কাহাকেও ক্ষমা করিতে পারিবে?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here