শুনিবারও কি কেহ নাই?

0
223
স্বজনহারা মানুষের আর্তনাদে ক্রমাগত ভারী হইতেছে সারাদেশের বাতাস। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম মানুষটিকে হারাইয়া কেহ পথে বসিয়াছেন, কেহ-বা মাতা-পিতা বা স্ত্রী-পুত্র-প্রিয়জনকে হারাইয়া সর্বস্বান্ত হইয়া গিয়াছেন। আবার ভাগ্যক্রমে বাঁচিয়া গেলেও কাহারও জীবনে নামিয়া আসিয়াছে চির পঙ্গুত্বের ঘোর অন্ধকার। দেশে এই ধরনের পরিবার ও মানুষের সংখ্যা কী বিপজ্জনক হারে বাড়িতেছে তাহা বুঝিবার জন্য প্রতিদিনের সংবাদপত্রই যথেষ্ট। শুধু গত বুধবারের ইত্তেফাকেই দুর্ঘটনার চারটি সংবাদ প্রকাশিত হইয়াছে। যশোরে বেপরোয়া গতির যাত্রীবাহী একটি বাস দুর্ঘটনায় হতাহত হইয়াছেন প্রায় অর্ধশত মানুষ। মাত্র ১০ ঘণ্টার ব্যবধানে যশোরের অভয়নগরে ট্রেনের সহিত বাসের সংঘর্ষে আহত হইয়াছেন কমপক্ষে ৪০ জন শ্রমিক। তন্মধ্যে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারাইয়াছেন দুইজন। প্রায় একই সময়ে পৃথক তিনটি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারাইয়াছেন দুই নারীসহ আরও তিনজন। তন্মধ্যে রাজধানীর নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্রীও রহিয়াছেন। গত সোমবার ব্যক্তিগত গাড়িতে করিয়া বিশ্ববিদ্যালয় হইতে বাড়ি ফিরিবার পথে বাসের ধাক্কায় তিনি প্রাণ হারান। মোটা দাগে পরিসংখ্যান বলিতেছে, গত ৮৭ দিনেই সড়কে ঝরিয়া পড়িয়াছে সাড়ে সাত শতাধিক মানুষের জীবন। আহতদের হিসাব করিয়া কী লাভ? এই যে এতগুলি মূল্যবান জীবন অকালে ঝরিয়া পড়িল—এতগুলি পরিবার নিঃস্ব হইয়া গেল, তাহা লইয়া কাহারও কোনো মাথাব্যথা আছে বলিয়া তো মনে হইতেছে না।
আমরা ক্রমাগত লিখিয়া যাইতেছি। বিশেষজ্ঞরা নানা পরিসংখ্যান তুলিয়া ধরিয়া শুধু যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করিবার চেষ্টা করিতেছেন তাহাই নহে, একই সাথে তুলিয়া ধরিতেছেন সুনির্দিষ্ট কিছু সুপারিশও। ভুক্তভোগীদের স্বজনেরা রাস্তায় আহাজারি করিতেছেন। কিন্তু সকলই যেন পর্যবসিত হইতেছে অরণ্যে রোদনে। ভাবগতিক দেখিয়া মনে হইতেছে, এইসব শুনিবারও কেহ নাই। কর্তৃপক্ষের চোখের সম্মুখেই কোনো প্রকার নিয়মকানুনের তোয়াক্কা না করিয়া চালকেরা বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালাইয়া যাইতেছে; মালিকেরা ফিটনেসবিহীন লক্কড়ঝক্কড় গাড়ি নামাইতেছে সড়কে-মহাসড়কে। কিন্তু কদাচিত্ কিছু তর্জনগর্জন শোনা গেলেও বাস্তবে তাহার কোনো প্রতিফলন দেখা যাইতেছে না। চালকদের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ অদক্ষই শুধু নহে, অপ্রাপ্তবয়স্কও বটে। খোদ বিআরটিএ কর্তৃপক্ষই দীর্ঘদিন যাবত্ স্বীকার করিয়া আসিতেছেন যে, তাহাদের অনেকেরই বৈধ লাইসেন্স নাই। তাহা সত্ত্বেও এইসকল চালক সড়ক-মহাসড়ক দাপাইয়া বেড়াইতেছে কীভাবে? অনেক সময় এমন অজুহাতও দেওয়া হয় যে, মহাসড়কে পর্যাপ্ত হাইওয়ে পুলিশ না থাকায় ঠিকমতো নজরদারি সম্ভব হইতেছে না। ইহা যে খোঁড়া অজুহাত তাহার অকাট্য প্রমাণ হিসাবে বলা যায়, তাহা হইলে রাজধানীজুড়িয়া যানবাহনের এই মহাবিশৃঙ্খলা চলিতেছে কীভাবে? অধিকাংশ লেগুনা ও বাসের চালক যে অপ্রাপ্তবয়স্ক তাহা প্রমাণের জন্য কি তবে আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ আনিতে হইবে?
দিনের পর দিন এই অবস্থা চলিতে পারে না। চলিতে দেওয়া যায় না। মানুষের জীবন লইয়া এই ছিনিমিনি খেলা অবশ্যই বন্ধ করিতে হইবে। অন্যথায় যাবতীয় অর্জন সত্ত্বেও ইহার দায় নিরন্তর আমাদের তাড়া করিয়া ফিরিবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here