শুল্ক ফাঁকি বেড়েই চলেছে বেনাপোল কাষ্টমস হাউজে

0
94

সরকার হারাচ্ছে প্রতিবছর কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। আমদানি কারক আশরাফ ও মিন্টু চক্রের বিচারের দাবি

আশানুর রহমান আশা, বেনাপোল : বেনাপোলে শাহজালাল নামে এক সিএন্ডএফ এজেন্টের সীল ও স্বাক্ষর জাল জালিয়াতির মাধ্যমে কাস্টমস হাউজে বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে পণ্য খালাস করে নিয়ে যাওয়ায়, জালিয়াতি চক্রের মূলহোতা জালিয়াত আমদানি কারক অমি ইন্টারন্যাশনাল নামধারী প্রতিষ্ঠানের মালিক আশরাফ হোসেন ও তার সহযোগী সিএন্ডএফ এজেন্ট জামান এন্টারপ্রাইজের মালিক আসাদুজ্জামান মিন্টুর বিরুদ্ধে সঠিক বিচারের দাবিতে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার ও সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন বরাবর একটি লিখিত অভিযোগপত্র দায়ের করা হয়েছে।অভিযোগ হোলেও কাষ্টমস হাউজ এখনো পর্যন্ত কোন রকম পদক্ষেপ নেয়নি।এর পূর্বেও শুল্ক ফাকির অনেক অভিযোগ রয়েছে কিন্ত সে সব অচিরেই ধামা চাপা পড়ে যায়। সচেতন ও ব্যববসায়ীদের মন রক্ষার জন্য দু একটি সাময়িক লাইসেন্স স্তগিত করে। সেটা আবার অচিরেই তাদের লাইসেন্স উন্মুক্ত হয়ে যায়।কাষ্টমস হাউজের উদাসিনতার কারনে সরকার প্রতিবছর হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব।

সোনবার (৩১ জানুয়ারী) বিকালে মেসার্স শাহজালাল সিএন্ডএফ এজেন্টের স্বত্বাধিকারী মোঃ শাহজালাল এ অভিযোগটি করেছেন।

সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী শাহজালাল বলেন, আমার অগোচরে অমি ইন্টারন্যাশনালের মালিক আশরাফ হোসেন ও তার সহযোগী সিএন্ডএফ এজেন্ট জামান এন্টারপ্রাইজের মালিক আসাদুজ্জামান মিন্টু চক্র আমার সিএন্ডএফ এর এআইএন নং ব্যবহার করে, আমার সীল-সই ও ব্যাংক ডকুমেন্টস জাল করে বেনাপোল কাস্টমস হাউজে বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে। পরবর্তীতে তারা কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স নিয়ে, পণ্য খালাস নিয়ে যায়। যার কিছুই আমি জানিনা। বিষয়টি জানার পর আমি তাদের বিচারের দাবিতে বেনাপোল কাস্টমস হাউজের কমিশনার ও সিএন্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশন বরাবর একটি লিখিত অভিযোগপত্র দায়ের করেছি।

জালিয়াত আমদানি কারক আশরাফ বলেন, আমি দীর্ঘদিন যাবত সিএন্ডএফ ব্যবসায়ী মিন্টুর সাথে ব্যবসা ও লেনদেন করে আসছি। গত ২৩/১২/২০২১ ইং তারিখে ১৫০ প্যাকেজের সাব মারশিবল পাম্প আমদানি করি। যার মেনিফিষ্ট নং-৪৭৪৫৭ এ-বি, তাং- ২৮/১২/২০২১ইং, এল,সি নং- ২০২১২১০১০৩৫৫, তাং- ৩১/১২/২০২১ইং। ভারতের রপ্তানি কারক MURARI EXPORT HOUSE এর মাধ্যমে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করায়। আমি এ পণ্য চালানটি রিসিভ করার জন্য মেসার্স জামান এন্টারপ্রাইজের মালিক আসাদুজ্জামান মিন্টুকে দায়িত্ব দেয়। কিন্তু মিন্টু গত ০৬ জানুয়ারী আমার পণ্য খালাস নিয়ে, আমাকে না দিয়ে অন্য জায়গায় বিক্রি করে দিয়েছে।

এ বিষয়ে চুরির মূল হোতা আসাদুজ্জামান মিন্টুর বক্তব্য নেওয়ার জন্য তার মুঠোফোন ০১৭১২-৫৭৯৯৩৩ নাম্বারে একাধিক বার কল করলে তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

উল্লেখ্য, গত ০৬ জানুয়ারী আশরাফ ও মিন্টু চক্র উভয়ের যোগসাজশে সীল-সই ও ব্যাংক ডকুমেন্টস জাল জালিয়াতি করে নিজেদের পণ্য নিজেরাই খালাস নিয়ে, কেশবপুরের আনন্দ ট্রেডার্সের মালিক আনন্দের কাছে বিক্রি করে দেয়। আর পরবর্তীতে তার দায় চাপান সিএন্ডএফ এজেন্ট ব্যবসায়ী শাহজালালের উপর।