শেখ হাসিনা নীরাকে মনোনয়ন দিয়েছেন, তাকে নির্বাচিত করা আমাদের দায়িত্ব : বিএম মোজাম্মেল

0
186

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের খুলনা বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য বিএম মোজাম্মেল হক বলেছেন, যশোরের অতীত ঐতিহ্য এবং গৌরব আছে। এখানে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থীরা বারবার বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়েছেন। আওয়ামী লীগ একটি প্রবাহমান দল। আওয়ামী লীগ কোটি কোটি সমর্থকের দল, লাখ লাখ নেতার দল। এখানে নেতৃত্বে প্রতিযোগিতা আছে প্রতিদ্বন্দ্বিতা আছে কিন্তু প্রতিহিংসার কোনো স্থান নেই। তিনি বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু আদর্শের সৈনিক এবং শেখ হাসিনার কর্মী হিসেবে আমাদের কাজ করতে হবে।
তিনি বলেন নূর জাহান ইসলাম নীরা পোড় খাওয়া এবং রাজপথের নেত্রী। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনা ২০ অক্টোবরের যশোর সদর উপজেলার নির্বাচনে নূর জাহান ইসলাম নীরাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। এখন নীরাকে নৌকায় ভোট দিয়ে নির্বাচিত করা আমাদের সকলের দায়িত্ব।
বিএম মোজাম্মেল বলেন, এই মাটিতে আওয়ামী লীগ একটি শক্তিশালী সংগঠন। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী লীগ সৃষ্টির পর থেকে এদেশে মানুষের মুক্তির জন্যে লড়াই সংগ্রাম করেছে এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই আমাদের এই স্বদেশ ভুমি বাংলাদেশ। দীর্ঘ ২৩ বছরের লড়াই সংগ্রামের মধ্যদিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের পতাকা তলে বাংলাদেশের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করেছিলেন এবং ঐক্যবদ্ধ করেই ঘোষণা করেছিলেন‘ এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম-আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম’। ৭১ এর ২৫ মার্চ রাতে অর্থাৎ ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিলেন। মরণপণ মুক্তিযুদ্ধের মধ্যদিয়ে ৩০ লক্ষ শহিদ এবং আড়াই লক্ষ নারীর সম্ভ্রমের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা ছিনিয়ে এনেছিলাম। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু মৃত্যুর মুখোমুখি দাড়িয়ে কারো সাথে আপোষ করেননি। মানুষ যখন আওয়ামী লীগের পতাকাতলে সমবেত হয় তখনই মানুষ কিছু পায়। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে ১৯৯৬ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসেন তখন বাংলাদেশের চেহারার পরিবর্তন হয়।
২০ অক্টোবর যশোর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী নূর জাহান ইসলাম নীরার পক্ষে এক প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি। শুক্রবার বিকেলে যশোর জেলা পরিষদ মিলনায়তনে সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ যৌথভাবে অয়োজিত এই প্রতিনিধি সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোহিত কুমার নাথ এবং সভাটি সঞ্চলনা করেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহামুদ হাসান বিপু। বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন, আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী নূর জাহান ইসলাম নীরা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহারুল ইসলাম, সদর উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, আওয়ামী লীগ নেত্রী রোকেয়া পারভীন ডলি, পৌর কাউন্সিলার হাবিবুর রহমান চাকলাদার মনি, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক অশোক বোস, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী প্রমুখ।
প্রতিনিধি সভায় বিএম মোজাম্মেল হক আরো বলেন, ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০১ সালের ১৫ জুলাই পর্যন্ত শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিলেন। বাংলাদেশে ১শ বছরে ১৬শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়েছিল । আর শেখ হাসিনার ৫ বছরের শাসনামলে ১৬শ মেগাওয়াট থেকে ৪ হাজার ২শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়েছিল। খাদ্য ঘাটতির দেশকে শেখ হাসিনা খাদ্যে উদবৃত্তে দেশে রুপান্তরিত করেছিলেন। ২০০১ সালের ১ অক্টোবরের নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়া কারচুপির মাধ্যমে ক্ষমতায় এসে ৪২শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হতো তার বদলে খালেদার শাসনামলে ২২ হাজার কোটি টাকা বাজেট বরাদ্দ হলেও বিদ্যুৎ কমে ৩ হাজার ২শ’ মেগাওয়াটে নেমে আসলো। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি থেকে এই সময়ে শেখ হাসিনার শাসনামলে আজকে ২৪ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। এখন মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৩শ মার্কিন ডলারে উপনিত হচ্ছে। তিনি বলেন, করোনায় ৩৫ কোটি মানুষের দেশ আমেরিকায় ২ লাখ ১১ হাজার মানুষ করোনায় মৃত্যুবরণ করেছে।
এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন বলেন, যশোরে আওয়ামী লীগ শক্তিশালী দল। আমাদের মধ্যে কোন বিভেদ নেই আমাদের মার্কা নৌকা। ২০ তারিখের ভোটে নৌকার বিজয় হবেই।
প্রার্থী নূর জাহান ইসলাম নীরা বলেন, নেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে নৌকা দিয়েছেন কিন্তু এই নৌকা আমার একার না। প্রত্যেক আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীর মার্কা নৌকা।
সাইফুজ্জামান পিকুল বলেন, নূর জাহান ইসলাম নীরাকে মনোনিত করে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আমাদের নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহারুল ইসলাম বলেছেন, নৌকা শেখ হাসিনা দিয়েছেন। আমরা ঐক্যবদ্ধ ভাবেই নৌকার বিজয় অর্জন করবো।
আনোয়ার হোসেন বিপুল বলেন, নেত্রীর সম্মান রাখতে সদর আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদ নূর জাহান ইসলাম নীরার ব্যাংক ঋণ পরিশোধ করেছেন।
সভাপতির বক্তব্যে মোহিত কুমার নাথ বলেন, আমি নিজেও মনোনয়ন প্রাত্যাশী ছিলাম কিন্তু প্রিয় নেত্রী নূর জাহান ইসলাম নীরাকে মনোনিত করেছেন। নীরা রাজপথের নেত্রী। তার বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই। কিন্তু তার প্রতিদ্বন্দ্বী যিনি তিনি একজন সন্ত্রাসী গডফাদার। তার দুই ভাই ক্রসফায়ারে মারা গেছে। তিনি বলেন আমি অনেকবার ঐ প্রার্থীর লোকজনের দ্বারা মৃত্যুর মুখোমুখি হয়েছি।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য শাহীন চাকলাদার, সহসভাপতি আব্দুল মজিদ, হায়দার গনি খাঁন পলাশ, একেএম খয়রাত হোসেন, আব্দুল খালেক, অ্যাড. আলী রায়হান, গোলাম মোস্তফা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম,সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম আফজাল হোসেন, মোস্তফা ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক মুন্সি মহিউদ্দীন আহমেদ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. আসাদুজ্জামান আসাদসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলারবৃন্দ, ইউনিয়ন ও পৌরসভার ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।