শেষবারের মত দেখা করতে এসে প্রেমিকের হাতে খুন হন যশোরের সুমাইয়া

0
63

নিজস্ব প্রতিবেদক : শেষবারের মত দেখা করার অনুরোধ করে ডেকে নিয়ে সুমাইয়ার বুকে ছুরি বসিয়ে দেন প্রাক্তন প্রেমিক আলামিন ওরফে বাপ্পী। এ সময় দুজনের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। সুমাইয়া পরাস্ত হলে তার দুই হাতের রগ ও গলা কেটে দেন বাপ্পী। হত্যার পর ওই রাতেই নিজ বাড়িতে ফিরে যান বাপ্পী। তার রক্তমাখা পোশাক দেখে মা জিজ্ঞেস করেন। বাপ্পী তার মায়ের কাছে সুমাইয়া হত্যার কথা স্বীকার করেন। এ কথা শুনে তার মা আঁতকে ওঠেন।

সোমবার যশোরের ঝিকরগাছার সুমাইয়া আক্তার হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ তথ্য জানিয়েছেন আলামিন ওরফে বাপ্পী। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক পলাশ কুমার দালাল আসামির এ জবানবন্দি গ্রহণ করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।
আলামিন ওরফে বাপ্পী ঝিকরগাছা উপজেলার কাউরিয়া চৌধুরীপাড়ার আলাউদ্দিন গাজীর ছেলে।

জানা যায়, সোমবার সকালে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বংশীপুর থেকে ডিবি পুলিশের সহায়তায় বাপ্পীকে গ্রেফতার করে ঝিকরগাছা থানার পুলিশ। এছাড়া পালিয়ে যেতে সহায়তার অভিযোগে তার চাচা জুয়েল হোসেনকে মনিরামপুর উপজেলার মুক্তারপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। জুয়েল হোসেন মনিরামপুর উপজেলার মুক্তারপুর গ্রামের মৃত আবু বক্কার গাজীর ছেলে।

বাপ্পী জানিয়েছে, ২০১২ সালে শার্শা উপজেলার রেজাউল হকের মেয়ে সুমাইয়ার সাথে তার প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর ২০১৫ সালে বাপ্পী বিদেশ চলে যান। ২০১৮ সালের শেষের দিকে তিনি দেশে ফিরে আসেন এবং জানতে পারেন তার প্রেমিকা সুমাইয়ার অন্যত্র বিয়ে হয়ে গেছে। সুমাইয়ার স্বামীর নাম আইয়ুব হোসেন। তার বাড়ি শার্শা উপজেলার লক্ষণপুর গ্রামে। প্রেমিকার বিয়ের খবর জানতে পেরে সুমাইয়ার খালার কাছে গিয়ে তার মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করেন বাপ্পী। এরপর সুমাইয়াকে মোবাইল ফোন করেন এবং তার সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখেন। বছর খানেক আগে স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে প্রেমিক বাপ্পীর কাছে চলে আসেন সুমাইয়া। ঘটনাটি জানাজানি হলে গন্যমান্য ব্যক্তিদের মধ্যস্থতায় সুমাইয়াকে তার স্বামীর কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু ৩ মাস আগে ফের স্বামীর বাড়ি থেকে পালিয়ে প্রেমিক বাপ্পীর কাছে চলে আসেন সুমাইয়া। যশোর শহরে এসে বাপ্পী ও সুমাইয়া ঘর ভাড়া করে স্বামী-স্ত্রীর মত বসবাস করতে থাকেন। এক পর্যায়ে বাপ্পী টের পান, একাধিক পুরুষের সাথে সুমাইয়ার সম্পর্ক রয়েছে। এ নিয়ে দুজনের মধ্যে গোলাযোগ হলে বাপ্পীর কাছ থেকে চলে যান সুমাইয়া। কিন্তু এরপর থেকে বাপ্পীর ফেসবুক আইডিতে ও মেসেঞ্জারে সুমাইয়া বিভিন্ন পুরুষের সাথে তোলা ছবি পাঠাতে থাকেন।

এ ঘটনায় সুমাইয়ার প্রতি বাপ্পীর প্রচণ্ড ক্ষোভ জন্মে। পরিকল্পনা করেন সুমাইয়াকে হত্যার। গত ২৩ মার্চ সুমাইয়াকে মোবাইল ফোন করে তার সাথে শেষবারের মত দেখা করার অনুরোধ করেন বাপ্পী। পরদিন বিকেল ৩টার দিকে সুমাইয়া বাপ্পীর সাথে দেখা করলে তারা একটি মোটরসাইকেলে করে বেনাপোলে যান। সেখানকার একজন মাদকব্যবসায়ীর কাছ থেকে এক বোতল ফেনসিডিল কিনে দুজনে সেবন করেন। এরপর তারা মোটরসাইকেলে করে ঝিকরগাছায় ফিরে আসেন এবং বিভিন্ন স্থানে ঘোরাঘুরির পর রাত সাড়ে ৯টার দিকে চাঁপাতলা গ্রামের ঝিনুকদাহ মাঠের ফাঁকা স্থানে যান। সেখানে যাওয়ার পর লুকিয়ে রাখা একটি চাকু নিয়ে আচমকা সুমাইয়ার বুকে বসিয়ে দেন বাপ্পী। এ সময় দুজনের মধ্যে ধস্তাধস্তিও হয়। সুমাইয়া পরাস্ত হলে তার দুই হাতের রগ ও গলা কেটে হত্যা করেন বাপ্পী। হত্যার পর ওই রাতেই নিজ বাড়িতে ফিরে আসেন বাপ্পী। তার রক্তমাখা পোশাক দেখে জিজ্ঞেস করলে মায়ের কাছে সুমাইয়াকে হত্যার কথা স্বীকার করেন বাপ্পী। এ কথা শুনে তার আঁৎকে ওঠেন এবং ছেলের রক্তমাখা পোশাক আগুনে পুড়িয়ে ফেলেন। পরে মনিরামপুরের মুক্তারপুরে চাচা জুয়েলের বাড়িতে গিয়ে আত্মগোপন করেন বাপ্পী। চাচা তার কাছ থেকে সব কথা শুনে মোটরসাইকেলসহ তাকে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক এক বন্ধুর চেম্বারে নিয়ে গিয়ে লুকিয়ে রাখেন। এরপর সেখান থেকে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার বংশীপুরে চলে যান বাপ্পী। তথ্য প্রযুক্তির সাহায্যে সোমবার সকাল সাড়ে ৫টার দিকে সেখানে অভিযান চালিয়ে বাপ্পীকে আটক করা হয়। এ সময় তার কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি জব্দ করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে পালাতে সহায়তা করায় চাচা জুয়েলকে মনিরামপুরের মুক্তারপুর থেকে আটক করা হয়।