শৈত প্রবাহের কারনে যশোর অঞ্চলের বোর ধানের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা

0
497

ডি এইচ দিলসান : শৈত প্রবাহের কারনে সারা দেশের ন্যায় যশোর অঞ্চলেও বইছে প্রবল শৈত পপ্রাহ, পড়ছে প্রচন্ড শীত। ক্ষতির শিকার হচ্ছে হাজার হাজার হেক্টর ফসলী জমির বোর ধানের চারা।
এমতবস্থায় প্রচন্ড শীতের কারনে বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। বর্তমানে কয়েকদিনের প্রচন্ড ঠান্ডা ও শৈত প্রবাহের কারনে হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হওয়ার পথে।
সরজমিনে ফসলের মাঠে গিয়ে দেখা গেছে গত কয়েক দিনের শৈত প্রবাহে বোরো ধানের চারা গাছ একেবারে লালচে রং ধারণ করেছে। কোথাও কোথাও জমিতে লাগানো ধান চারা মরে যেতে দেখা গেছে। জেলার ৮ উপজেলা মনিরামপুর, কেশবপুর, অভয়নগর, শার্শা, কেশবপুর, ঝিকরগাছা, চেীগাছা ও সদরের বিভিন্ন মাঠ ঘুরে দেখা যায় এ সব এলাকার জমিতে সদ্য লাগানো বোরো ধানের চারা গাছ শীতের কারণে ধূসর ও লালচে রং ধারণ করেছে। অনেক স্থানে নতুন লাগানো ধান মরে গেছে। এসব এলাকার কৃষকদের এখন পুরো বোরো লাগানো মৌসুম চলছে। অতি মাত্রায় শীতের কারনে কয়েক দিন ধরে কৃষকরা জমিতে নামতে পারছে না। বীজতলা থেকে ধানের চারা তোলার সময় উত্তীর্ণ হয়ে যাচ্ছে ফলে অনেক জমিতেই সময়মত ফসল লাগানো সম্ভব হয়ে উঠছে না বলে শতাধিক কৃষক জানিয়েছেন। এভাবে যদি শীতের তীব্রতা আরও কয়েকদিন ধরে থাকে তাহলে এখানকার কৃষিকাজে দারুনভাবে বিপর্যয় নেমে আসবে বলে অনেক কৃষি সংশ্লিষ্টরা মনে করেন।
এ ব্যাপারে যশোরের মনিরামপুর এলাকার কৃষক ফারুক হোসেন বলেন,প্রচন্ড শীতে কেউ জমিতে কাজ করতে চাচ্ছে না। যে সব ধানের চারা রোপন করা হয়েছে সে সব জমির ধানগাছ লালচে এবং ধূসর রং ধারণ করেছে। কোনভাবেই সার, কীটনাশক ব্যবহার করেও জমির ফসলের আসল চেহারা ফিরছেনা। এ অবস্থায় এখানকার কৃষকরা দারুনভাবে হতাশায় ভুগছে। এ এলাকায় বছরে একবারই বোরো মৌসুমে শুধু মাত্র ধানের চাষ করা হয়। অধিকাংশ প্রান্তিক কৃষকরা ধার-দেনা করে বিভিন্ন এনজিও, কৃষি ব্যাংক ও বিভিন্ন দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সুদে-কর্যে টাকা এনে চাষাবাদে ব্যয় করেছে। তাদের সমস্ত আশা-ভরসা বোরো ফসলকে ঘিরে।
সদর উপজেলার তালবাড়িয়া গ্রামের কৃষক ইউসফি বিশ্বাসের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এ বছর অতি মাত্রায় শীত পড়ায় বোরো ফসলের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এছাড়া শীতের জন্য ধানের চারা গাছ ঠিকমত বেড়ে উঠতে পারছেনা এবং এর প্রভাবে দারুনভাবে ফসলের ফলন কমে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। প্রতি বছর এ সময় হালকা শীত থাকে ফলে কোন ক্ষয় ক্ষতি হয়না কিন্তু এবার ফসলের অবস্থা খুবই খারাপ। এ এলাকার প্রতিটি কৃষক ধার কর্য করে কোনক্রমে রোপা বোরো চাষ করেছিলো কিন্তু এ অবস্থার উন্নতি না হলে কৃষকরা পথে বসে যাবে।
এ অবস্থা থেকে পরিত্রানের জন্য কৃষিবিদ সিরাজুল ইসলাম মৃধা বলেন, জীপসাম, ইউরিয়া সার ও ছত্রাক নাশক ব্যবহার করলে বীজতলা ঠিক হয়ে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here