শ্রমিক নাশকতা : ‘প্রয়োজনে’ মন্ত্রী-এমপিকে জিজ্ঞাসাবাদ

0
384

নিজস্ব প্রতিবেদক : আদালত কর্তৃক দুই গাড়িচালককে শাস্তি দেয়ায় সারা দেশে দুদিন ধরে নজিরবিহীন অরাজকতা চালান পরিবহন শ্রমিকরা। ধর্মঘটের নামে সড়ক-মহাসড়কে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ এবং যানবাহন ভাঙচুর করেন তারা। তাদের হাত থেকে রেহাই পায়নি এসএসসি পরীক্ষার্থীদের গাড়ি ও রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স পর্যন্ত। এমনকি অ্যাম্বুলেন্স ভাঙচুর করে রোগীকে পথেই নামিয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটেছে।

আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও পরিবহন শ্রমিকদের মধ্যে সহিংস ঘটনায় প্রাণ হারান এক পরিবহন শ্রমিক। সংশ্লিষ্ট থানায় দায়ের করা হয় নাশকতা মামলা। গ্রেফতার করা হয় সাত পরিবহন শ্রমিককে। পরবর্তীতে আদালতের মাধ্যমে তাদের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। রিমান্ডে বেরিয়ে আসে নির্দেশদাতাদের নাম।

নির্দেশদাতাদের বিষয়ে পুলিশ বলছে, তদন্তে যারই নাম আসুক তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এক্ষেত্রে কোনো মন্ত্রী কিংবা এমপিও যদি জড়িত থাকেন এবং তাদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া যায়, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রসঙ্গত, সাভারে ট্রাকচাপা দিয়ে এক নারীকে হত্যার ঘটনায় চালক মীর হোসেনকে মৃত্যুদণ্ড এবং ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের জোকা এলাকায় বাস দুর্ঘটনায় চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহতের ঘটনায় বাসচালক জামির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন মানিকগঞ্জের আদালত।

রায় ঘোষণার পর গত ২৮ ফেব্রুয়ারি সকাল থেকে কর্মবিরতিতে যান পরিবহন শ্রমিকরা। ওইদিন রাতে এবং পরদিন (১ মার্চ) সকালে গাবতলীতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে শ্রমিকদের দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়। শ্রমিকরা যানবাহন ভাঙচুরের পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশ বক্স ও পুলিশের র‌্যাকার ভ্যানে আগুন ধরিয়ে দেয়। সংঘর্ষের একপর্যায়ে নিহত হন এক পরিবহন শ্রমিক। ওই ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে চারটি এবং নিহত শ্রমিক শাহনূরের পরিবারের পক্ষ থেকে একটিসহ মোট পাঁচটি মামলা করা হয়।

সহিংস ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দারুস সালাম থানা পুলিশ সাত শ্রমিককে গ্রেফতার করে দু’দফায় রিমান্ডে নেন। তারা হলেন- রফিকুল ইসলাম, হাসানুর, রবিন, মো. সোহেল, ফজলে রাব্বী, আল-আমিন ও এনামুল হক। রিমান্ডে তাদের কাছ থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে নির্দেশদাতাদের নাম। কয়েকজন নির্দেশদাতাকেও শনাক্ত করা হয়েছে বলে ‘জাগো নিউজ’কে জানান সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তা।

তদন্তের সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাইলে দারুস সালাম থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জুবায়ের হোসেন বলেন, ‘তদন্ত চলছে। রিমান্ডে কয়েকজন নির্দেশদাতার নাম পাওয়া গেছে। তাদের ধরতে অভিযান অব্যাহত আছে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, পরিবহন শ্রমিক ধর্মঘটের আগের দিন অর্থাৎ ২৭ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের কার্যকর সভাপতি ও নৌ-পরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের বাসভবনে তার সঙ্গে বৈঠকে বসেন শীর্ষ পরিবহন-শ্রমিক নেতারা। সেখান থেকেই ধর্মঘটের নির্দেশ দেয়া হয় বলে দাবি করেছে পরিবহন শ্রমিক ও মালিকদের একটি পক্ষ।

ধর্মঘটের নির্দেশদাতা হিসেবে যদি সরকারের কোনো মন্ত্রী বা সংসদ সদস্যের নাম আসে তাহলে পরবর্তী ধাপ কী হবে- তদন্ত কর্মকর্তার কাছে জানতে চাওয়া হয়। এসআই জুবায়ের হোসেন এ বলেন, ‘এ মামলার তদন্তে ওপর মহলের কোনো চাপ নেই, কেউ কোনো প্রভাবও বিস্তার করছে না। তদন্তে যাদের বিরুদ্ধে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধেই ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
এ বিষয়ে দারুসসালাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সেলিমুজ্জামান ‘ বলেন, ‘তদন্ত হোক, দেখা যাবে কার কার নাম উঠে আসে। তখন ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া রিমান্ডে আসামিরা যেসব নাম বলেছেন তা যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। পরবর্তীতে দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

এদিকে পরিবহন শ্রমিকদের তাণ্ডবের সময় দারুস সালাম, মাজার রোড, গাবতলী, আমিনবাজার ও এর আশপাশ এলাকার সিসিটিভির (ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা) ফুটেজ সংগ্রহ করেছে পুলিশ। সেগুলো দেখে আসামি যাচাই-বাছাইয়ের কাজ চলছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান। তাদের তদন্তে অন্যতম নির্দেশদাতা হিসেবে আন্তঃজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি তাজুল ইসলামের নাম জানা যায়। পুলিশের দায়ের করা চার মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে তাকে। তবে এখনো তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

পুলিশ বলছে, তাজুলকে ধরতে অভিযান চালানো হলেও তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। অথচ তাজুলের মোবাইল নম্বরটি এখনো খোলা। বিভিন্ন গণমাধ্যমকর্মীর সঙ্গে নিয়মিত কথা বলছেন তিনি। এ সময় তিনি নিজেকে নির্দোষও দাবি করেন।

নির্দেশদাতা হিসেবে তাজুল ইসলামের সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে জানতে তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে ‘জাগো নিউজ’র পক্ষ থেকে কল করা হয়। ফোন রিসিভ করে তার মেয়ে বলেন, ‘তিনি বাড়িতে নেই’।

তাজুল ইসলামসহ অন্য আসামিদের গ্রেফতারের বিষয়ে দারুস সালাম জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) মো. কামাল হোসেন বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে আসামিরা পলাতক। তাদের ধরতে অভিযান চলছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘একটি জিনিস মাথায় নিয়ে আমাদের অভিযান চালাতে হচ্ছে। সেটি হলো কাউকে গ্রেফতারের পর নতুন করে যেন শ্রমিক অসন্তোষ না ঘটে।’

তাজুল ইসলামের ফোন খোলা থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তার ফোন এখন বন্ধ। তাকে খোঁজা হচ্ছে।’

নৌ-পরিবহনমন্ত্রী ও পরিবহন শ্রমিকনেতা শাজাহান খানের কাছে এ বিষয়ে জানতে তার মোবাইলে টেক্সট মেসেজ করা হলে তিনি ফিরতি মেসেজে জানান, আমি এখন কোনো কথা বলতে পারব না।

পুলিশের দায়ের করা চার মামলায় তাজুল ইসলামসহ এজাহারভুক্ত বাকি ৩৯ আসামি হলেন- আবুল হাসেম, সামছুল আলম, সাধারণ সম্পাদক আহম্মদ আলী, আবদুল সাত্তার, নসু, আবুল বাশার, কালাম মুন্সি, জুল জালাল, হাজি সুলতান, নাছির উদ্দিন, লোকমান ফরাজী, কালাম, আবু বক্কর, ইউসুফ, জজ মিয়া, জামাল, নুরুল ইসলাম, ফারুক হোসেন, মঞ্জু মিয়া, মিলন, মোবারক হোসেন, রাজিব হোসেন, শাহ আলম, হাবিল সিকদার, সিদ্দিকুর রহমান, কাওসার আহম্মেদ, মাহবুবুর রহমান, সাদেক হোসেন ওরফে তুফান, শহর আলী, বশির আহমেদ, হাজি আবু তালেব, লাট মিয়া, দুলাল, শামীম আহমেদ, সালাম, রফিকুল ইসলাম ওরফে বকুল, পারভেজ খান, আবু মিয়া, আওলাদ হোসেন, মোহাম্মদ আলী, হাবিবুল্লাহ, জাহাঙ্গীর হোসেন, আশফিউল্লাহ, সিদ্দিক হোসেন, ইব্রাহিম খলিল ও সুমন। এদের কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

প্রসঙ্গত, ২০০৩ সালের ২০ জুন সাভারের ঝাউচার এলাকায় ট্রাকচাপায় নিহত হন খোদেজা বেগম (৩৮)। এ ঘটনায় তার স্বামী নুরু গাজী সাভার থানায় ট্রাকচালক মীর হোসেন ও তার সহকারী ইনতাজ আলীর বিরুদ্ধে মামলা করেন। তদন্ত শেষে ওই দুজনের বিরুদ্ধে ২০০৪ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। আদালত ২০০৫ সালের ৪ এপ্রিল আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন। ১৩ সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত চালক মীর হোসেনের মৃত্যুদণ্ড এবং তার সহকারীকে খালাস দেন।

অন্যদিকে ২০১১ সালের ১৩ আগস্ট মানিকগঞ্জের শিবালয়ে শালজানা গ্রাম থেকে ঢাকায় ফেরার পথে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের জোকা এলাকায় বাস দুর্ঘটনায় চলচ্চিত্র নির্মাতা তারেক মাসুদ, মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন।গত ২৩ ফেব্রুয়ারি ওই মামলায় চুয়াডাঙ্গা ডিলাক্স বাসচালক জামির হোসেনের বিরুদ্ধে মানিকগঞ্জের আদালত যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় দেয়া হলে ধর্মঘট ডাকেন পরিবহন শ্রমিকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here