ষষ্ঠ ইন্দ্রিয় আরো সজাগ হয়ে উঠুক

0
269

জয়া ফারহানা : তুিস। একটি চলচ্চিত্রের নাম। গেভিনহুড পরিচালিত দক্ষিণ আফ্রিকার একটি চলচ্চিত্র। এর কেন্দ্রীয় চরিত্র আন্ডারগ্রাউন্ডের তুিস নামের এক গ্যাংলিডার, ধনীদের বিরুদ্ধে জিহাদ যার। পুমলাডুব, শহরের সেরা ধনীদের একজন। চিত্রনাট্য পরম্পরায় ধনী পুমলাডুবের গাড়ি ছিনতাইকালে পরিস্থিতি একদিন জটিল রূপ নেয়। পুমলাডুবকে চলে যেতে হয় কোমায়। গাড়িতে থেকে যায় পুমলাডুবের দু’বছর বয়সী সন্তান। তুিসর মতো দাগী আসামি শিশুটিকে গাড়িতে ফেলে না রেখে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাড়িতে নিয়ে যায় এবং নানাভাবে শিশুটিকে বাঁচানোর চেষ্টা করে। তুিস চলচ্চিত্র এরপর মোড় নেয় সম্পূর্ণ ভিন্ন দিকে। নিজের জীবন নয়, শিশুটিকে বাঁচানোই হয়ে দাঁড়ায় গ্যাংলিডার তুিসর একমাত্র চ্যালেঞ্জ। সদ্য মা হয়েছে এমন কয়েকজন মাকে অস্ত্রের মুখে বাধ্য করে শিশুটিকে দুধ পান করাতে। পরিচিত খেলনা দেখে শিশুটি স্বাভাবিক হতে পারে ভেবে পুলিশের কঠোর নজরদারি উপেক্ষা করে শিশুটির বাড়ি থেকে তার খেলনা চুরি করে নিয়ে আসে। চলচ্চিত্রের শেষদিকে আমরা দেখি, তুিস ভাবছে শিশুটিকে বাঁচানোর এবং স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার সবরকম তত্পরতাতেই সে ব্যর্থ হয়েছে। নিজের মনের সঙ্গে বহুমাত্রিক যুদ্ধের পর একপর্যায়ে সে সিদ্ধান্ত নিয়, শিশুটিকে তার বাবার কাছে ফিরিয়ে দেবে। কিন্তু আন্ডারগ্রাউন্ডের কুখ্যাত একজন গ্যাংলিডারের পক্ষে এই মহতী ভাবনা ভাবা যত সহজ, বাস্তবায়ন ততটাই কঠিন। শেষপর্যন্ত অপরাধ প্রবৃত্তি নয়, শ্রেণিশত্রুর প্রতি বিদ্বেষ নয়, প্রতিশোধ স্পৃহা নয়—জয়ী হয় তুিসর মানবিক বোধ। শিশুটিকে বাবার কাছে ফিরিয়ে দিতে গেলে যে সে পুলিশের হাতে ধরা পড়বে, এটা তুিসর মতো দর্শকেরও অজানা ছিল না। ঘটেছেও তাই। কিন্তু বাবার হাতে শিশুটিকে ফিরিয়ে দেওয়ার মুহূর্তে তুিসর মুখে দর্শক লক্ষ করেছে, এক অলৌকিক সৌন্দর্য।

তুিস চলচ্চিত্র দর্শকদের বড় পাওনা এটাই। অপরাধজগতের গ্যাংলিডার, শীর্ষ সন্ত্রাসী, দাগী আসামি হয়েও একটি শিশুর জীবন বাঁচাতে, তাও আবার শ্রেণিশত্রুর শিশু, তুিসর যে কর্মকাণ্ড তাতে এই চলচ্চিত্রের একজন দর্শক হিসেবে সহানুভূতির পাল্লা শেষ পর্যন্ত তুিসর দিকেই ভারি হয়। সহানুভূতির এই বিকেন্দ্রিকরণে এও টের পাই যে, অপরাধ এবং অপরাধীর মানদণ্ড নির্ধারণে সমাজ সবসময় সুবুদ্ধির পরিচয় নাও দিতে পারে। তুিস চলচ্চিত্রের দুনিয়া থেকে যদি বাস্তব দুনিয়ায় ফেরত আসি এবং আমাদের এই বাংলাদেশেই ফেরত আসি এবং বিভিন্ন সংস্থার পরিসংখ্যানের দিকে তাকাই তাহলে এই সত্যটির পক্ষে যুক্তি আরো জোরদার হয়। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের তথ্য বলছে, বাংলাদেশে সংঘটিত ধর্ষণের মাত্র দশ শতাংশ ঘটছে বাইরের ধর্ষকদের দ্বারা আর নব্বই ভাগ ধর্ষণ ঘটছে ঘরের ভেতরে কোনো না কোনো আত্মীয় পরিচিতজনদের দ্বারা। শিশুদের যারা ধর্ষণ করে তাদের বিরুদ্ধে ঘৃণা প্রকাশ করতে গিয়ে সাধারণত বিকৃত, পশু এবং পিশাচ এই শব্দগুলি ব্যবহার হয়। নব্বই শতাংশ ধর্ষণ ঘটে ঘরের স্বজন দ্বারা। ধরা পড়ার আগে পর্যন্ত এই বিকৃত, পশু এবং পিশাচদের আত্মীয়-স্বজন হিসেবে আমরা তো মিলেমিশেই থাকি। বিকৃত পশু, পিশাচরা বেশ সাবলীলভাবেই তো মিশে থাকে আমাদের মধ্যে!

শিশু ধর্ষক এমন কাউকে কি পাওয়া গেছে যে, আসলে খুবই অস্বাভাবিক, খুবই অপ্রচলিত, খুবই সমাজ বিমুখ জীবন যাপন করত? তা নয় কিন্তু। পানির মধ্যে যেমন মিশে থাকে মাছ, ঘাসের মধ্যে পিঁপড়া—শিশু ধর্ষকরাও ঠিক সেভাবে, খুব নিবিড়ভাবে মিশে থাকে সমাজের স্বাভাবিক ধারার সঙ্গে। স্বাভাবিক আর পাঁচজন মানুষের মতো খাচ্ছে-দাচ্ছে ঘুরে বেড়াচ্ছে, চকচকে ব্লেডে দাড়ি কামাচ্ছে, আর ধরা পড়লেই কেবল বিকৃত পশু বনে যাচ্ছে। কেউ কি নিশ্চিত করে বলতে পারেন, শিশু ধর্ষকদের মধ্যে প্রতিভাবান পুরুষও নেই? কে জানে হয়ত আকাশে শুক্লপক্ষের ত্রয়োদশীর চাঁদ দেখে, মেঘের মধ্যে বর্ণিল পাখির উড়ে যাওয়া দেখে, কুয়াশার চুল থেকে শিশিরাদ্র জল ঝরা দেখে, এনারা ‘সাহিত্য চর্চা’ করতেও বসে যান! এমন নয় যে, শিশু ধর্ষকদের বিশেষ কোনো চিহ্ন থাকে, যা দেখে বোঝা যাবে এই লোকটি পিশাচ বা পশুশ্রেণির। মনোবিজ্ঞানীরাও তো বলেছেন, শিশু ধর্ষণকারীরা যৌন বিকৃত নন, এরা একটা টাইপ। এই টাইপকে কেবল বিচারের অধীনে এনেই এই অপরাধ মোকাবিলা সম্ভব।

উত্সাহের পরিবেশ না থাকলে শিশু ধর্ষকের সংখ্যা বাড়ছে কেন? শামসুর রাহমানের ‘একটি মোনাজাতের খসড়া’র অনুসরণে বলতে হয়, হে পরোয়ারদিগার, তুমি এই বাংলাদেশের শিশুদের ধর্ষকদের হাত থেকে বাঁচাও। আমাদের ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়কে আরো সজাগ, আরো সচেতন করে দাও যেন আমরা আমাদের চারপাশে থাকা ধর্ষকদের চিনতে পারি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here