সন্ত্রাসীদের বাধার যশোর জেনারেল হাসপাতালে ৬ গ্রুপের কাজের দরপত্র বন্ধ

0
374

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে আড়াইশ শয্যা যশোর জেনারেল হাসপাতালে টেন্ডারবাজির ঘটনা ঘটেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসী ও পুলিশের বাধার কারণে প্রকৃত ঠিকাদাররা হাসপাতালের সাড়ে তিন কোটি টাকার এম এস আরের মালামাল সরবরাহের ৬ গ্রুপ কাজের সিডিউল জমা দিতে পারেননি। এর আগে গত ২১ নভেম্বর যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে ডাল সরবরাহের টেন্ডার ও ২২ নভেম্বর খাদ্যদ্রব্য সরবরাহের ৫ গ্রুপ কাজের টেন্ডারের সিডিউল টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসীদের বাধার কারণে সাধারণ ঠিকাদাররা জমা দিতে পারেননি।
গতকাল ২৮ নভেম্বর মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় ছিল আড়াইশ শয্যার যশোর জেনারেল হাসপাতালের সাড়ে তিন কোটি টাকার এম এস আরের মালামাল সরবরাহের ৬ গ্রæপ কাজের সিডিউল জমা দেওয়ার শেষ দিন। কাজ গুলি হচ্ছে ক গ্রæপ-ঔষধ পত্র, খ গ্রæপ- গজ ব্যান্ডেজ ও তুলা, গ গ্রæপ- লিলেন সামগ্রী, ঘ গ্রæপ- সার্জিক্যাল ও যন্ত্রপাতি, ঙ গ্রæপ- ক্যামিক্যাল রি এজেন্ট, ও চ গ্রæপ- আসবাব পত্র ও কিচেন সামগ্রী।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন ঠিকাদার অভিযোগ করে বলেন, দরপত্র দাখিলের দিন সাধারণ ঠিকাদাররা হাসপাতালে গেলে সরকারি দলের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও পুলিশের বাধার কারণে সিডিউল জমা দিতে পারেনি। টেন্ডার জমা দিতে গিয়ে দেখতে পান হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্বাবধায়ক কামরুল ইসলাম বেনুর রুমের সামনে রাখা টেন্ডার বক্স সরকারি দলের শীর্ষ সন্ত্রাসীরা ঘিরে রেখেছে। আর টেন্ডার বক্সের উপর বসে আছে কর্তব্যরত পুলিশ। হাসপাতালের দরপত্রের দায়িত্বে থাকা কোতয়ালি থানার উপ-পরিদর্শক মানিক চন্দ্র জানান, আমার জানামতে কোন টেন্ডারবাজি হয়নি।
ঠিকাদারদের অভিযোগে জানা যায়, হাসপাতাল ছাড়াও নিরাপত্তার কারণে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আরেকটি টেন্ডার বক্স রাখার কথা। কিন্তু সেখানে জেলা আওয়ামীলীগের এক শীর্ষ নেতার লোকজন টেন্ডার জমা দিতে গিয়ে দেখেন কোন টেন্ডার বক্স নেই। কর্তব্যরত পুলিশের কাছে টেন্ডার বক্সের কথা জানতে চাওয়া হলে সহযোগিতার পরিবর্তে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ঢাকার জুয়াইরিয়া ইন্টারন্যাশনাল, মাদারিপুরের মেসার্স সেকেন্দার মেডিকেল হলসহ ৫/৬ টি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিদেরকে লাঠি দিয়ে তাদেরকে তাড়া করা হয়।
গত ২৩ অক্টোবর পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দিন থেকে হাসপাতালের এম এস আরের মালামাল সরবরাহের ৬ গ্রুপ কাজের সিডিউল বিক্রি শুরু হয়। ২৩ নভেম্বর সিডিউল বিক্রির শেষ দিন ছিল। এদিন পর্যন্ত ৩১ টি প্রতিষ্ঠান ১৫০ টি সিডিউল ক্রয় করে। এদিকে হাসপাতালে ভারপ্রাপ্ত তত্বাবধায়ক কামরুল ইসলাম বেনুর কাছে মিডিয়ার কয়েকজন প্রতিনিধি টেন্ডার জমাদানের তথ্য নিতে গেলে তথ্য দেয়া হয়না। টেন্ডারবাজদের সহযোগিতার জন্য তিনি তথ্য গোপন করেন। তিনি বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিকদের ভিন্ন ভিন্ন কথা বলেন। কাউকে বলেন পরে আসেন কাজে আছি। আবার কাউকে বলেন টেন্ডার কমিটির কাছ থেকে তথ্য নিতে হবে আমি কিছু জানি না। এমনকি কয়েকজন সাংবাদিক তথ্যের জন্য কামরুল ইসলাম বেনুর অফিসে গেলে তাদেরক অফিসে ঢুকতে দেয়া হয়না। বেনুর ০১৭১৮০২৮৭৪৭ নম্বর মোবাইলে মোবাইল করে ও ম্যাসেজ দিলেও তিনি কোন উত্তর দেন না। তত্বাবধায়ক বেনুর কথা মতো হাসপাতালের টেন্ডার কমিটির সদস্য আর এমও ওয়াহিদুজ্জামান ডিটুর ০১৭১১২৬৫১৩৫ নম্বর মোবাইলে মোবাইল করা হলে তিনিও তথ্য দিতে অস্বীকার করেন। ডিটু বলেন আমি বাড়ি চলে এসেছি তথ্য কি মুখস্থ আছে কি ভাবে দেব। আপনারা সুপারের কাছ থেকে তথ্য নেন। টেন্ডার কমিটির অপর সদস্য সার্জারি বিশেজ্ঞ ডা. রহিম মোড়লের কাছে টেন্ডার সংক্রান্ত তথ্য চাওয়া হলে তিনিও একই কথা বলেন। এভাবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষসহ কথিত টেন্ডার কমিটির সদস্যরা সাংবাদিকদের কাছে টেন্ডারের তথ্য গোপন করে প্রকারন্তরে টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসীদের সহযোগিতা করেন।
অপর দিকে হাসপাতালের একটি সূত্র বলেছে, দেড়শটি সিডিউল বিক্রি হলেও জমা পড়েছে নামমাত্র ১২ থেকে ১৪ টি সিডিউল। ঢাকা মহাখালীর মেসার্স শাহিন ফামের্সীর  সরকারি দলের টেন্ডারবাজ সন্ত্রাসীরা টেন্ডার ঠেকায়। আর এদের সহযোগিতা করে যশোর পুলিশের শীর্ষকর্তা। উলেøখ্য, এর ৬ দিন আগে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের ডাল ও খাদ্য সরবরাহের টেন্ডার জমা দানে সন্ত্রাসীরা বাধা দেয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here