সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশে সাংবাদিককে নিয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতার অশালীন মন্তব্য!

0
53

বিশেষ প্রতিনিধি

যশোর চৌগাছার সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ক্ষেপেছেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক ইব্রাহিম হোসেন। গত ১ আগষ্ট সন্ত্রাসী ইমরান ও ইউনুস চৌগাছা সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, উপজেলা মৎস্যজীবি লীগের আহ্বায়ক এবং চৌগাছা সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আবুল কাশেমকে মুঠো ফোনে হত্যার হুমকি দেয়। নিজ জীবনের নিরাপত্তার জন্য থানায় জিডি করেন কাশেম। সেই জিডি নিয়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সেই জেরে ৩ আগষ্ট ইব্রাহিম নিজের ফেসবুক ওয়ালে চৌগাছা প্রেক্লাবের সভাপতি জিয়াউর রহমান রিন্টুকে নিয়ে অশালীন মন্ত্রব্য করেন। ইব্রাহিম হোসেন চৌগাছা উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক।

নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছেন,এর আগে ২০১৯ সালে মাদকের বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশের কারনে অন্য একজন সাংবাদিককের বিরুদ্ধেও তিনি নেতাকর্মীদের সামনে খিস্তি খিউড় করেছিলেন। সেঘটনায় বিস্ফোরক, নারী নির্যাতনসহ ৫টি মামলার আসামী (থানা সূত্রে জানা যায়) ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে ২৮ জানুয়ারি “মাদক নিয়ে খবর ছাপানোয় উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির গাত্রদাহ” শীরনামে জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল।

উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হয়েও ২০১৫ সালে পৌরসভা এবং ২০১৯ সালে উপজেলা নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের বিরুদ্ধে ভোট করেন তিনি।


কয়েক বছর আগে এই ইব্রাহিম এক ঘটনায় মারাত্নক আহত হয়েছিলেন ইব্রাহিম। পরবর্তীতে বর্তমান এমপি (৮৬ যশোর-২) বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর জেনারেল (অব) অধ্যাপক ডা.মোঃ নাসির উদ্দিন সমস্ত চিকিৎসা খরচ দিয়ে তাকে সুস্থ্য করে তোলেন। কিন্তু বর্তমানে দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচীতে সেই এমপিকে নিয়েও কুরুচিপূর্ন বক্তব্য দিচ্ছেন তিনি। ২০১৯ সালে অধ্যক্ষ ড.মোস্তানিছুর রহমান উপজেলা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেলে তাকে নিয়েও ফেসবুকে নানান অশালীন মন্তব্য করেন এবং সেই নির্বাচনে নৌকায় ভোট দেওয়ায় তার গ্রামের একজন বৃদ্ধাকে মেরে পা ভেঙ্গে দিয়েছিলেন ইব্রাহিমরা।

তার অশলিীন ও কুরুচিপূর্ন মন্তব্য থেকে সাবেক এমপি এ্যাড.মনিরুল ইসলাম মনির,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদকসহ অন্যান্য রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধি এবং সাংবাদিক কেউই রক্ষা পাননা। যার অনেক স্ক্রীনশর্ট সংরক্ষিত আছে।

উল্লেখ্য কিছুদিন আগে ইমরান ১৪টি মামলা নিয়ে জেলা কমিটির অনুমোদনে উপজোলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত হন। এবং ইউনুস আলী ৫টি মামলা নিয়ে ইউপি মেম্বর হয়েছেন। এরপরেই তারা উপজেলার সরকারি বেড়গোবিন্দপুর বাওড়ের ডায়নার বিল অবৈধ লিজের নামে দখল করে মাছ চাষ এবং বাওড়ের সরকারি গাছ অবৈধভাবে কেটে আত্নসাৎ করেছেন মর্মে বিভিন্ন গনমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এবং গাছ কাটার বিষয়টি সরকারি তদন্তে সত্য প্রমানিত হয়। এরপরে ইমরানের নেতৃত্বে ইব্রাহিমরা রায়হান হোসেন নামে এক সাংবাদিককে শারীরিকভাবে লাঞ্চিত করে। যার সিসিটিভি ফুটেজ এখনো সংরক্ষিত আছে। অন্যদিকে ইব্রাহিমের আপন বড় ভাই মিলন যশোর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ৩নং সিংহঝুলি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান মিন্টু হত্যা মামলার এজাহার ও চার্জশীটভূক্ত আসামী এবং কিলার শামীমের কেস পার্টনার। এদিকে নিহত জিল্লুর রহমান মিন্টু সাংবাদিক জিয়াউর রহমান রিন্টুর আপন বড় ভাই।
এসকল বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, কাশেম চেয়ারম্যানের জিডিটি ইতিমধ্যে তদন্ত করা হচ্ছে এবং সাংবাদিক রায়হান হোসেনকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় যে জিডি হয়েছিল সেটি প্রসিকিউশনের জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে। এসকল বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে চৌগাছা থানার ওসি সাইফুল ইসলাম সবুজ বলেন, কাশেম চেয়ারম্যানের জিডিটি ইতিমধ্যে তদন্ত করা হচ্ছে এবং সাংবাদিক রায়হান হোসেনকে লাঞ্চিত করার ঘটনায় যে জিডি হয়েছিল সেটি প্রসিকিউশনের জন্য আদালতে পাঠানো হয়েছে।