সবজি এখন ১২মাস

0
291

ঢাকা প্রতিনিধি: ফুলকপি বা বাধাকপির মত সবজি এই বর্ষায় বাজারে দেখলে এখন আর কেউ চমকে উঠে না। কারণ, চলতি বছর শীত গেছে, কিন্তু বাজার থেকে যায়নি এই সবজিটি। টমেটোর নাম তো মৌসুমি সবজির খাতা থেকে উঠে গেছে গত কয়েক বছরে।

কৃষি বিজ্ঞানীদের গবেষণা আর মাঠ পর্যায়ে চাষিদের পরিশ্রম ও ঝুঁকিগ্রহণের ইচ্ছার সুফল এটি। তাপসহিষ্ণু শীতকালীন সবজির উদ্ভাবন করেছে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরাই। এজন্য শীতের সবজি সারা বছর পাওয়া যাচ্ছে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজার, হাতিরপুল বাজার ও কাঁঠালবাগান বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, তিনটি বাজারেই গরমকালীন সবজির সঙ্গে সমান তালে বিক্রি হচ্ছে শীতকালীন হিসেবে পরিচিত ফুলকপি, বাঁধাকপি, মুলা ও টমেটো।

কাঁঠালবাগান বাজারে বাঁধাকপি কিনছিলেন গ্রিন রোড এলাকার বাসিন্দা আনু বেগম। তিনি বলেন, ‘শীতের মতো মজা নেই, তা-ও বাঁধাকপি কিনছি। বাসার সবাই বাঁধাকপি ভাজি খুব পছন্দ করে। রমজানে ইফতারিতে বাঁধাকপির পেঁয়াজু বানাই, খুব একটা খারাপ লাগে না।’

এই গৃহিনী বলেন, ‘এখন এমন অবস্থা, সারা বছরই সব সবজি পাওয়া যাচ্ছে।’

শীতের সবজি গরমের সময়ে পাওয়াকে তিনি ইতিবাচক বলে মনে করেন।

শীতকালীন সবজি হিসেবে ফুলকপি, বাঁধাকপি, মুলা ও টমেটোর দাম অসময়ে একটু বেশি হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সেটাও নেই। দাম হাতের নাগালে এবং শীতের সময় যেমন দাম থাকে এখনো প্রায় তেমনই আছে।

আরেক ক্রেতা ভুতের গলি এলাকার মোস্তফা হারুন। তার পরিবারের কারো পছন্দ ফুলকপি আবার কারো পছন্দ বাঁধাকপি। বিশেষ করে তাঁর স্ত্রীর পছন্দ ফুলকপি আর সন্তানদের বাঁধাকপি। তাই তিনি দুটো কপিই কিনছেন। এই অসময়ে কেন তিনি শীতকালীন সবজি কিনছেন আর খেতে কেমন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বাজারে শীতের সবজি এভেইলেবল তাই কিনছি আর দামেও কম। তবে শীতকালের সবজি যেমন স্বাদের, তেমন স্বাদ এখন পাওয়া যায় না।’

বুধবার দুপুরে খাঁ খাঁ রোদে কারওয়ান বাজারের একপাশে ফুলকপি আর বাঁধাকপি আলাদা স্তুপ করে রাখছিলেন এক বিক্রেতা। এগুলো বিক্রি হবে রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে। পাইকারি সবজি ব্যবসায়ী রিপনের সাথে কথা বলছিলাম, ঠিক ওই মুহূর্তে কিছু খুচরা ক্রেতা এসে রিপনের কাছ থেকে ফুলকপি ও বাঁধাকপি কেনার জন্য দরকষাকষি করছেন। এক পর্যায়ে প্রতি পিস ফুলকপি ১৮ টাকা আর বাঁধাকপি ১৫ টাকা দরে ছেড়ে দিলেন রিপন।

রিপনের কাছ থেকে সবজি কেনা এক খুচরা সবজির ব্যবসায়ী জানালেন, তিনি হাতিরপুল বাজারে ফুলকপি ২৫ টাকা আর বাঁধাকপি ২০ টাকা করে বিক্রি করবেন।

এছাড়া শীতের অন্য তিন সবজি মুলা, গাজর ও টমেটো কারওয়ান বাজারে পাইকারি বিক্রি করা হচ্ছে যথাক্রমে ২০ টাকা ও ৪০ টাকা করে।

সবজি ব্যবসায়ীরা জানালেন, শীতকালীন সবজিগুলোর চাহিদা শীতের মতো না হলেও অনেকেই তা কিনছেন।শীতের এসব সবজি আসে মুন্সীগঞ্জ, পাবনার, ইশ্বরদী ও বগুড়া থেকে। এই এলাকাগুলোতে বিশেষভাবে পলিথিন দিয়ে বৃষ্টির পানি থেকে রক্ষা করে বারো মাস চাষ করা হচ্ছে শীতকালীন সবজি।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘কৃষিবিদদের সফলতার কারণে এখন তাপসহিষ্ণু সবজি চাষ হচ্ছে। এজন্য শীতের সবজি সারা বছর পাওয়া যায়। সারা বছর সব সবজি পাওয়া কৃষিক্ষেত্রে একটি ইতিবাচক দিক। এতে হয়তো স্বাদ একই রকম থাকবে না, কিন্তু সবজি তো পাওয়া যায়।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here