সব ক্ষেত্রে মানবজাতির শ্রেষ্ঠ আদর্শ বিশ্বনবী(সা)-কে অনুসরণের উপায়

0
405

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : বালাগাল উলা বিকামালিহি কাশাফাদ্দোজা বিজামালিহি হাসুনাত জামিউ খিসালিহি সাল্লু আলাইহি ওয়াআলিহি। সুউচ্চ শিখরে সমাসীন তিনি নিজ মহিমায় তিমির-তমসা কাটিল তার রূপের প্রভায়, সুন্দর আর সুন্দর তার স্বভাব চরিত্র তামাম জানাও তাঁর ও তাঁর বংশের ‘পরে দরূদ-সালাম।

মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে আল্লাহ’র শ্রেষ্ঠ জীব বা আশরাফুল মাখলুকাত হিসেবে। তাই তাদের জন্য দরকার শ্রেষ্ঠ প্রশিক্ষক ও প্রশিক্ষণ। মানবজাতিকে জ্ঞান, চরিত্র ও উন্নত সব স্বভাবের দিক থেকে শ্রেষ্ঠ অবস্থানে পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে যুগে যুগে নবী-রাসূলদের পাঠানো হয়েছে মহান খোদায়ী প্রশিক্ষক হিসেবে। মানুষকে মহান আল্লাহর প্রকৃত প্রতিনিধি ও বান্দায় পরিণত করার এই মিশন শুরু করেছিলেন প্রথম নবী তথা মানব জাতির আদি পিতা হযরত আদম (আ)। আর একে পূর্ণতার শিখরে পৌঁছে দেয়ার মিশন শুরু করেন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা)। আর ২৭ রজব হচ্ছে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (স.)’র সেই মিশন শুরু করার তথা রেসালাত প্রাপ্তির ঐতিহাসিক দিবস।

ইসলামের দৃষ্টিতে মহান আল্লাহর পবিত্র অস্তিত্ব ছাড়া বিশ্বনবী (সা)’র চেয়ে বড় ও মহীয়ান আর কিছুই নেই। বিশ্বনবীর শ্রেষ্ঠ চরিত্র ও শ্রেষ্ঠ সংগ্রামী জীবন ছাড়া শ্রেষ্ঠ ধর্ম তথা শ্রেষ্ঠ খোদায়ী বিধান ইসলামের বাস্তবায়ন কল্পনাও করা যেত না। আর এ জন্যই বলা হয় বিশ্বনবী (সা) যখন রেসালাত পান তখন বড় শয়তান আর্তনাদ করে ওঠে এবং সব সহযোগী শয়তানদের জড়ো করে বলে যে, আমাদের কাজ তো কঠিন হয়ে গেলো!

পবিত্র কুরআনের ভাষায় জীবনে চলার পথ, মত ও স্বভাব বা আচরণের দিক থেকে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা) ছিলেন শ্রেষ্ঠ আদর্শ বা উসওয়াতুন হাসানাহ। জীবনের সব ক্ষেত্রে এবং কখন কোথায় কী করতে হবে তা জানার শ্রেষ্ঠ উৎস হলেন মহানবী (সা)। ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, আধ্যাত্মিক, ধর্মীয়, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, আইনি ও রাষ্ট্রীয় জীবনসহ জীবনের সব ক্ষেত্রেই তিনি রেখে গেছেন মানবজাতির জন্য সর্বোত্তম আদর্শ। কথায় ও কাজে সবক্ষেত্রে বিশ্বনবী (সা)-কে অনুসরণ করাই হবে একজন প্রকৃত মুসলমানের জন্য ঈমানের দাবি। তা না হলে আল্লাহর সর্বশেষ রাসুলের রেসালাতের প্রতি বিশ্বাস রাখার দাবি করাটা হবে প্রতারণা মাত্র।

কেউ যদি মহান আল্লাহর প্রিয় বান্দাহ হতে চান তাহলে তাঁর জন্য পবিত্র কুরআনে উল্লেখিত মহান আল্লাহর যে পরামর্শটি হৃদয়ে গেঁথে নেয়া উচিত তা হল: ‘হে রাসুল! আপনি তাদের বলুন, যদি আল্লাহকে ভালবাস, তাহলে আমার তথা আল্লাহর শেষ রাসুলের অনুসরণ কর যাতে আল্লাহও তোমাদের ভালবাসেন।’

জীবনের সবক্ষেত্রেই মহানবীর অনুসরণ করতে মহান আল্লাহ মুসলমানদের নির্দেশ দিয়েছেন। মহানবী কেবল তাঁর বক্তব্যে নয়, আচার-আচরণে, জনগণের সঙ্গে মেলামেশায় ও লেনদেনে, পরিবার-পরিজন ও বন্ধুদের সঙ্গে আচরণে, শত্রু ও বিজাতীয়দের সঙ্গে আচরণে এবং দুর্বল ও দরিদ্র আর শক্তিশালী বা ধনীদের সঙ্গে আচরণের ক্ষেত্রসহ সবক্ষেত্রেই সর্বোত্তম আদর্শ।

মহানবী (সা) চেয়েছিলেন তাঁর আশপাশের সব মানুষকে তাঁরই আদর্শের ধারায় শ্রেষ্ঠ বা পূর্ণাঙ্গ মহামানব হিসেবে গড়ে তুলতে। কিন্তু সবাই তাঁর দাওয়াতকে গ্রহণ করেনি। অনেকেই মুশরিক ও কাফিরই থেকে গেছেন। কেউ কেউ নামে মুসলমান হলেও বাস্তবে ছিলেন মুনাফিক। কিন্তু বিশ্বনবীর আহলে বাইতের সদস্যরা ছিলেন তাঁরই কাছাকাছি পর্যায়ের আদর্শ মহামানব যাঁদের নিষ্পাপ হওয়ার স্বীকৃতি দেয়া হয়েছে পবিত্র কুরআনেই।

তাই মহানবীর (সা) আদর্শ ও পবিত্র কুরআনকে ভালোভাবে বুঝতে হলে জানতে হবে পবিত্র আহলে বাইতের জীবন-ধারাকে। জানতে হবে কিভাবে মুসলমানদের মধ্যে প্রবেশ করেছিল নানা বিচ্যুতি, অনাচার, জুলুম ও ইয়াজিদি স্বৈরতন্ত্র, রাজতন্ত্র প্রভৃতি। বিশ্বনবীর আহলে বাইতের আদর্শকে ছেড়ে দেয়ার কারণেই যে মুসলমানদের মধ্যে নানা বিভক্তি এবং অনৈক্য সৃষ্টি হয়েছিল তাও বোঝা সম্ভব হবে ইসলামের ইতিহাসের বস্তুনিষ্ঠ বিচার-বিশ্লেষণের মাধ্যমে।

যারা খাঁটি মুহাম্মাদি ইসলাম বিষয়ে বিশেষজ্ঞ নন তারা হয়তো বলবেন, বিশ্বজুড়ে নানা মত ও পথের ভিড়ে বিশ্বনবীকে (সা) জীবনের সব ক্ষেত্রে অনুসরণের কোনো নমুনা কি বর্তমান যুগেও দেখা যায় যে আমরা সেই পথ ধরে আদর্শ মুসলমান হওয়ার চেষ্টা করতে পারি?

হ্যাঁ, আমরা যদি চোখ-কান খোলা রাখি এবং মহান আল্লাহর দেয়া বিবেককে কাজে লাগানোর চেষ্টা করি তাহলে এইসব প্রশ্নের জবাব খুঁজে পাব যে বিশ্বের কোন্ কোন্ মহল ও অঞ্চলগুলো আজ ইসলামের শত্রুদের সবচেয়ে বেশি শত্রুতার শিকার? বিশ্বের কোন্ ইসলামী রাষ্ট্র ব্যবস্থার অস্তিত্বকে নানা অপবাদ দিয়ে চিরতরে বিলুপ্ত করার জন্য সাম্রাজ্যবাদী ও ইহুদিবাদি মহলগুলো আদা-জল খেয়ে মাঠে-ময়দানে কাজ করছে? আর কোন্ কোন্ মহলের তথা-কথিত ‘ইসলাম’ ইসলাম-বিরোধী সব মহলেরই বাহবা পাচ্ছে কিংবা সর্বাত্মক মদদও পাচ্ছে?

আজকে বিশ্ব থেকে জুলুম, বৈষম্য, শোষণ ও সব ধরনের অনাচার দূর করার জন্য দরকার খাঁটি মুহাম্মাদি ইসলাম সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করা ও এই প্রকৃত ইসলামকে আঁকড়ে ধরে সংগ্রাম করা। খাঁটি মুহাম্মাদি ইসলাম সম্পর্কে জ্ঞানের অভাবেই দেখা দিয়েছিল ইসলামের নামে কুসংস্কার, ইসলামী সংস্কারের নামে মুর্খতাসুলভ গোঁড়ামি এবং ইসলামের নামে শোষণ ও সন্ত্রাস যার বিষাক্ত প্রভাব আজও বিশ্বের নানা অঞ্চলে দেখা যাচ্ছে। আজ মুখে মুখে ইসলামের বড় বড় বুলি আওড়ানো সত্ত্বেও সস্তা জনপ্রিয়তার অধিকারী অনেক কথিত ইসলামপন্থী নেতা সহযোগী হয়েছেন ইহুদিবাদী ইসরাইলের এবং সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর নানা নোংরা খেলা বা ষড়যন্ত্রের চালিকা শক্তিতে পরিণত হয়েছেন। মুসলমানদের এক বিশাল অংশ খাঁটি মুহাম্মাদি ইসলাম থেকে দূরে থাকার কারণেই এসব সম্ভব হচ্ছে। তাই সব ধরনের অজ্ঞতার আঁধারকে দূর করতে হবে মুসলমানদের মন থেকে এবং জাগিয়ে তুলতে হবে তাদেরকে উদাসীনতার ঘুম থেকে। তাদেরকে এটা বুঝতে হবে যে কারা মুসলমানদের প্রকৃত ও বড় শত্রু।

বিশ্বনবী (সা)’র রেসালাত মানব-ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বিপ্লব। সেই মহান বিপ্লবের ধারাবাহিকতা ও সাফল্য ধরে রাখাটা ছিল মুসলমানদের দায়িত্ব। বিশ্বনবী (সা) পবিত্র কুরআনে বর্ণিত অতুল চরিত্র মাহাত্ম্য, ন্যায়বিচার এবং দূরদর্শিতার মাধ্যমে যে আদর্শ রেখে গেছেন তাকে সজীব ও সচল রাখা সব মুসলমানের দায়িত্ব। এ জন্য প্রথমেই সেই আদর্শের যথাযথ ব্যাখ্যা সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন জরুরি। ইসলাম এ জন্যই প্রত্যেক মুসলমান নর-নারীর জন্য জ্ঞান অর্জনকে ফরজ বলে ঘোষণা করেছে।

ইরানের ইসলামী বিপ্লবের রূপকার ইমাম খোমেনী (র) বলেছেন,

‘রাসুলে খোদার রিসালাতের বার্ষিকীর চেয়ে মর্যাদাপূর্ণ আর কোনও দিবস নেই। কারণ, এর চেয়ে বড় কোনও ঘটনা আর ঘটেনি। অন্যান্য নবী-রাসুলের নিযুক্তির চেয়েও এ ঘটনা অনেক বেশি বড়। এর চেয়ে বড় কোনও ঘটনা থাকার বিষয় কল্পনাও করা যায় না। এমন দিনে জনগণকে জুলুম থেকে মুক্তির উপায় বোঝাতে হবে জোরালোভাবে যাতে তারা বড় বড় জালিম শক্তিগুলোকে মোকাবেলা করতে পারে। জনগণ যে এটা করতে পারবে তা তাদেরকে বোঝাতে হবে। রাসুলে খোদার রিসালাতের লক্ষ্য হল মানুষের আচার-আচরণ, চরিত্র, তাদের আত্মা ও শরীরকে নানা ধরনের অন্ধকারাচ্ছন্নতা থেকে মুক্ত করে সেখানে আলোর দ্যুতি ছড়িয়ে দেয়া। রাসুলে খোদা সর্বশেষ রাসুল হিসেবে মানবজাতির কাছে এনেছেন পূর্ণ ধর্ম এবং মানব জাতির কাছে তুলে ধরেছেন তাঁর কাছে ওহি হিসেবে নাজিল-হওয়া মহাগ্রন্থ কুরআন।’
ইমাম খোমেনী (র) আরও বলেছেন,

‘মহানবী সাল্লাললাহু আলাইহি ওয়া আলিহি ওয়া সাল্লাম রিসালাতের দায়িত্ব লাভের পর ধর্মের প্রচার শুরু করেন। ৮ বছরের শিশু হযরত আলী আলাইহিসসালাম ও হযরত খাদিজা আলাইহাসসালাম তাঁর প্রতি ইমান আনেন। এ দুইজন ছাড়া কেউই তাঁর সঙ্গে ছিলেন না। সবাইই জানেন যে তাঁকে কত বেশি যন্ত্রণা দেয়া হয়েছে এবং কত বেশি তাঁর বিরোধিতা করা হয়েছে ও নানা বাধা-বিপত্তির শিকার করা হয়েছে তাঁকে। কিন্তু তিনি হতাশ হননি। তিনি বলেননি যে, আমার তো কেউ নেই, বরং দৃঢ় থেকেছেন এবং দৃঢ় মনোবল ও আত্মিক শক্তি বা চেতনা নিয়ে শূন্য থেকেই রিসালাতকে এমন স্থানে পৌঁছে দিয়েছেন যে আজ এই ১৯৬৯ সালে বিশ্বের ৭০ কোটি মানুষ তাঁর প্রচারিত ধর্মের ছায়াতলে রয়েছে। ইসলামের মহান নবীর এক হাতে ছিল কুরআন আর অন্য হাতে ছিল তরবারি। তরবারি ছিল বিশ্বাসঘাতকদের দমনের জন্য আর কুরআন ছিল মানুষকে সুপথ দেখানোর জন্য।’

ইসলামী প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিষ্ঠাতা ইমাম খোমেনী (র) আরও বলেছেন,

‘মহানবীর আগমনের উদ্দেশ্য ছিল মানুষকে শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ দেয়া। তিনি মানুষের জন্য কুরআনের আয়াত তিলাওয়াত করতেন ও তাদের সংশোধন করতেন এবং পবিত্র করতেন। তাদের আত্মাগুলোকে পবিত্র করতেন। মানুষের সুশিক্ষা ও প্রশিক্ষণের জন্য তিনি সবার চেয়ে বেশি কষ্ট করেছেন। আর তা করেছেন মজলুম মানুষকে জালিমদের হাত থেকে মুক্তি দেয়ার জন্য। তাকে কত বেশি গালি দেয়া হয়েছে ও অপবাদ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি ইসলাম ধর্ম প্রচারে বিরত হননি।’

ইরানের সর্বোচ্চ নেতা হযরত আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী বিশ্বনবী (সা)’র রিসালাত লাভ প্রসঙ্গে বলেছেন, মানবজাতির ইতিহাসের এই মহান মিশনের লক্ষ্য হল মানুষকে মুক্তি দেয়া এবং তাদের আত্মা ও চরিত্রকে পরিশুদ্ধ, মার্জিত ও অলঙ্কৃত করার পাশাপাশি সব যুগের মানুষকে সব সংকট আর সমস্যা থেকে মুক্ত করা-যেসব সমস্যা ও সংকটের বেড়াজালে আজও ঘুরপাক খাচ্ছে মানুষ।

তিনি আরও বলেছেন,

‘মহানবীর রিসালাতের লক্ষ্য ছিল মানুষের মুক্তি সাধন। ইসলাম ও মহানবীর (সা) পক্ষ থেকে মানুষের জন্য রোগমুক্তির যে প্রেসক্রিপশন রয়ে গেছে তা সব যুগে মানুষকে মুক্ত করে অজ্ঞতা থেকে। এই নির্দেশিকা দিয়ে মোকাবেলা করা যায় জুলুম, বৈষম্য, দুর্বলের ওপর সবলের শোষণ এবং অন্য সব যন্ত্রণা যার শিকার মানবজাতি সৃষ্টির শুরু থেকে এ পর্যন্ত হয়েছে ও হচ্ছে। এই নির্দেশিকা যদি বাস্তবে মেনে চলা হয় তাহলেই সুফল আসবে। কিন্তু যদি ফেলে রাখা হয় বা এ থেকে ভুল অর্থ নেয়া হয়, কিংবা তা বাস্তবায়নের বা প্রয়োগের সাহস কেউ না করে তাহলে অবস্থা হবে সেই আগের মতই। সবচেয়ে ভালো ডাক্তারের শতকরা ১০০ ভাগ নির্ভুল চিকিৎসা-নির্দেশিকাও যদি আপনাকে দেয়া হয়, কিন্তু আপনি যদি তা পড়তে না পারেন, কিংবা তার ভুল পাঠ নেন, অথবা তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ না নেন ও তা পড়েই থাকে তাহলে রোগীর ওপর তার কী প্রভাব পড়বে! এবং ওই দক্ষ চিকিৎসককেই বা কি দোষ দেয়া যাবে?

মহান আল্লাহ আমাদের সবাইকে বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা) ও তাঁর পবিত্র আহলে বাইতের প্রতি আনুগত্য আর গভীর অনুরাগের উসিলায় পরিপূর্ণ মানুষ হওয়ার দিকে অগ্রসর হওয়ার তৌফিক দান করুন। বিশ্বনবীর রেসালাতের পতাকা যেন গোটা বিশ্বে আবারও উঁচু করে তুলে ধরতে পারে মুসলমানরা মহান আল্লাহর কাছে এই মহা-পবিত্র দিনে ও সবচেয়ে বড় খুশির দিনে এটাই আমাদের একান্ত প্রার্থনা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here