সব তীর্থ বারবার গঙ্গাসাগর একবার

0
319

সুখরঞ্জন দাশগুপ্ত : সব তীর্থ বারবার, গঙ্গাসাগর একবার—এ রকম কথা আমরা প্রায়শই শুনে থাকি। মকর সংক্রান্তিতে শত সহস্র মানুষের ঢল নামে, গড়ে ওঠে এক মিলন মেলা। গঙ্গা নদী ও বঙ্গোপসাগরের সঙ্গমে এই হাড় কাঁপানো শীতেও ডুব দিয়ে স্নান করে লাখ লাখ মানুষ। পুজো দেয় কপিল মুনির আশ্রমে। এখানে আসার উদ্দেশ্য একেকজনের কাছে একেকরকম, কেউ আসেন বেড়াতে, কেউ আসেন পুণ্য সঞ্চয়ের লোভে, কেউ আসেন পুণ্যার্থীদের প্রয়োজনীয় পসরা নিয়ে, সামান্য অতিরিক্ত রোজগারের আশায়। কেউ-বা আসেন তীর্থভ্রমণের ছলে পরিবারের অপাঙেক্তয়, অসুস্থ, বৃদ্ধ মানুষগুলোকে চিরকালের মতো নির্বাসন দেওয়ার দুরভিসন্ধি নিয়ে। না, চমকে ওঠার কোনো কারণ নেই। পরিসংখ্যান থেকে এই তথ্যই পরস্ফুিট হচ্ছে।

কলকাতা থেকে প্রায় ২০০ কিমি দক্ষিণে, গঙ্গার অববাহিকায় গড়ে উঠেছে এই সাগরদ্বীপ, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার অন্তর্গত এই সাগরদ্বীপ গড়ে উঠেছে ৪০টিরও বেশি গ্রাম নিয়ে এবং এখানকার জনসংখ্যা আনুমানিক প্রায় দুই লাখের কাছাকাছি। পৌরাণিক মতে, কর্দম মুনি নামে এক পুণ্যাত্মা ঋষি একবার ভগবান বিষ্ণুকে বলেছিলেন, তিনি বৈবাহিক জীবনের সমস্ত শোক-তাপ সবকিছুর মধ্য দিয়ে যেতে রাজি, যদি বিষ্ণু তার সন্তানরূপে জন্মগ্রহণ করেন। যথাসময়ে বিষ্ণুর অবতার রূপে কপিল মুনির জন্ম হয় এবং তিনি একজন বড়ো মাপের সাধক হিসেবে খ্যাতি লাভ করেন। একদিন সাগর রাজার উত্সর্গীকৃত একটি ঘোড়াকে দেবতা ইন্দ্র ছলনা করে অদৃশ্য করে দেন। সেই যজ্ঞের ঘোড়াটিকে খোঁজার জন্য সাগর রাজা তার ৬০ হাজার ছেলেকে পাঠালে, তারা ঘোড়াটিকে কপিল মুনির আশ্রমের কাছে, যেখানে ইন্দ্র ঘোড়াটিকে লুকিয়ে রেখেছিলেন, সেখানে খুঁজে পান। চোর সন্দেহে কপিল মুনিকে অভিযুক্ত করায়, কপিল মুনি সাগর রাজার পুত্রদের ওপর ক্ষুব্ধ হয়ে রাগে তাদের ভস্মীভূত করেন এবং নরকে পাঠিয়ে দেন। পুত্রশোকে শোকাতুর সাগর রাজের মনোকষ্ট দেখে কপিল মুনি তার সন্তানদের পুনর্জীবন দান করতে রাজি হন। তবে শর্ত ছিল, যদি দেবী পার্বতী গঙ্গারূপে মর্ত্যে অবতীর্ণ হন, এই রকম নানা ধরনের পৌরাণিক কাহিনির পটভূমি রয়েছে গঙ্গাসাগর দ্বীপকে কেন্দ্র করে। এর থেকে আরো কিছুটা দূরে রয়েছে মনসাদ্বীপ।

পৌরাণিক কাহিনি থেকে গঙ্গা দেবীর মাহাত্ম্য হয়ত জানা যাবে, কিন্তু রাজনীতির আবর্তে তার মাহাত্ম্য পৌঁছেছে অন্য মাত্রায়।

শিল্প, শিল্প করে রাজ্য সরকার যতই মাতামাতি করুক, বাস্তব চিত্রটা সম্পূর্ণ বিপরীত। নতুন শিল্প বলতে একমাত্র ‘মেলা’ শিল্প ছাড়া আর কোনো শিল্পই গড়ে ওঠেনি। খুব সহজ কথায় বলতে গেলে ‘মেলা’র মতো এত চটজলদি শিল্প আর কিছুই নেই। তাই মেলার এত প্রাধান্য পশ্চিমবঙ্গে। কথায় বলে বাঙালির ‘বারো মাসে তের পার্বণ’। প্রতিটি পার্বণকে উপলক্ষ করেই এখন পালিত হচ্ছে মেলা বা উত্সব। বিভিন্ন জেলায়, বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে মেলা বা উত্সব। সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যের বার্তা চারদিকে ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে, জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে, সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের মূল উত্সবকে লক্ষ্য করেই এখন গড়ে উঠছে মেলা। বাউল মেলা থেকে শুরু করে যেকোনো মেলাতেই এখন উপস্থিত থাকছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী শ্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ২০১৮ শুরুর বেশ কিছুদিন আগে থেকেই সব রাজনৈতিক দল ও তার নেতা-নেত্রীরা আগামী লোকসভা নির্বাচনের প্রস্তুতির হোমওয়ার্ক শুরু করে দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যখন কুম্ভমেলায় উপস্থিত হচ্ছেন, তখন আমাদের মুখ্যমন্ত্রীই-বা পিছিয়ে থাকবেন কেন?

পশ্চিমবঙ্গকে ‘ডেস্টিনেশন বেঙ্গল’ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে মুখ্যমন্ত্রীর বেশকিছু উদ্যোগ রয়েছে। গঙ্গাসাগর মেলা প্রাঙ্গণ মূলত তারই উদ্যোগে কার্যত এক নতুন রূপ পেয়েছে। তীর্থযাত্রীদের বাড়তি স্বাচ্ছন্দ্য দিতে ‘বায়ো টয়লেট’-এর বেশকিছু আধুনিক উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু তার সার্বিক রূপায়ণ এখনো হয়নি। স্নানের দিন প্রশাসনকে বাড়তি সতর্কতা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এবারে আনুমানিক প্রায় ৪ লাখেরও বেশি ভক্ত সমাগম হবে। ২০১৯ সালের নির্বাচনে ভোট ব্যাংকের কথা মাথায় রেখে শ্রী নরেন্দ্র মোদী যেমন মেলার ভোটব্যাংক কাজে লাগাচ্ছেন, একই অস্ত্রে শান দিয়ে বাংলার ভোটব্যাংক নিজের দখলে রেখে, প্রচারের আলোয় থেকে দিল্লির মসনদের লক্ষ্যে খুব ধীর ও সতর্কভাবে এগোচ্ছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শ্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here