সব দলের সমান সুযোগ কাম্য

0
200

নির্বাচন কমিশন আগামী নির্বাচনের পথরেখা (রোডম্যাপ) ঘোষণা করেছে। সে অনুযায়ী ৭টি গুরুত্বপূর্ণ কাজের কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। কাজগুলো হলো_ নির্বাচনী আইনের পর্যালোচনা ও সংস্কার, নির্বাচনী প্রক্রিয়া সহজিকরণ ও যুগোপযোগী করা, নির্বাচনী এলাকার সীমানা পুনর্নির্ধারণ, ভোটার তালিকা প্রণয়ন, বুথ স্থাপন, রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন এবং সক্ষমতা বৃদ্ধির কার্যক্রম গ্রহণ। নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য এসব পদক্ষেপ গ্রহণের বিকল্প নেই। তবে অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য এসব পদক্ষেপই যথেষ্ট নয়। অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের সমস্যাগুলো কারও অজানা নয়। পেশিশক্তি, কালো টাকা, আঞ্চলিকতা, সাম্প্রদায়িকতা, ধর্মের ব্যবহার ইত্যাদি অর্থবহ নির্বাচনের জন্য বড় হুমকি। একই সঙ্গে সব দলের জন্য সুযোগের সমতার (লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড) বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। কীভাবে সব দল ও প্রার্থীর জন্য এই সমতা নিশ্চিত হবে_ এ ব্যাপারে পথরেখায় কোনো কথা নেই। নির্বাচন পেশিশক্তি, কালো টাকা, সাম্প্রদায়িকতা ও আঞ্চলিকতার ব্যবহার বা ধর্মের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করার বিষয়গুলো উলি্লখিত হয়নি। এসব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এড়িয়ে কি আদৌ কোনো অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন সম্ভব? গত ১৬ জুলাই পথরেখা ঘোষণাকালে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে প্রশ্ন করা হয়েছিল; বিরোধী দলকে সভা-সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না, এমনকি ঘরোয়া সভায় বাধা দেওয়া হচ্ছে_ এ ব্যাপারে তার দায় আছে কি-না। তিনি দায় এড়িয়ে গেছেন। বলেছেন, নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগে সমান সুযোগ নিশ্চিত করার এখতিয়ার নির্বাচন কমিশনের নেই। তফসিল ঘোষণার পর এটি নিশ্চিত করবেন বলে জানিয়েছেন। তবে নির্বাচন কমিশনের কাজের পরিধি নিয়ে সংবিধান বিশেষজ্ঞদের মধ্যে ভিন্নমত রয়েছে। অনেকেই মনে করেন, এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশনের নৈতিক দায় আছে। অবাধ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশনের স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে অনেক কিছু করার আছে। আমরাও মনে করি, কমিশন রাজনৈতিক সংস্কৃতির উন্নয়নে উদ্যোগী হতে পারে, সরকার ও রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সমঝোতা প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখতে পারে। এসব উদ্যোগকে এখতিয়ার-বহির্ভূত বলার সুযোগ নেই।
নির্বাচন কমিশনের কাছে জনগণের অনেক প্রত্যাশা। আমরা চাই, একটি নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন, যেখানে সব মানুষ নিরাপদে ভোট দেবে। পেশিশক্তির দাপট থাকবে না, কালো টাকার খেলা হবে না, সাম্প্রদায়িকতা-আঞ্চলিকতা থাকবে না, ধর্মের ব্যবহার হবে না। পুলিশ-প্রশাসন কোনো দলের আজ্ঞাবহ হবে না; সব দল ও প্রার্থীর সমান সুযোগ থাকবে। এ লক্ষ্যে নির্বাচন কমিশন সঠিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করবে_ সেটি প্রত্যাশিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here