সব মিছিল মিলেমিসে একাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে

0
297

নিজস্ব প্রতিবেদক : ইতিহাস স্মরণে এ যেন আরেক ঐতিহাসিক মিলনমেলা। শনিবারের (২৫ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর সব পথ, সব মিছিল একাকার হয়ে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যখন মিলল– বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার কন্ঠে ধ্বনিত হলো ৪৬ বছর আগের সেই অমোঘ বাণী, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। বাক্যটি দৃঢ়তার সঙ্গে উচ্চারণের মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনে করিয়ে দিলেন, রাষ্ট্রের প্রতি জনতার দায়িত্ব।

সকাল থেকে রাজধানীতে ছিল উৎসবের আমেজ। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়া উপলক্ষে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত হয় জনসভার। এর আগে ধানমন্ডি ৩২ নম্বর থেকে আনুষ্ঠানিক শোভাযাত্রা সোহরাওয়ার্দীতে গিয়ে সমবেত হয়। বেলা ১১টায় ধানমন্ডি ৩২ নম্বর সড়কে গিয়ে দেখা যায়, চারপাশে মানুষ আর মানুষ। সুসজ্জিত ব্যান্ডপার্টি। বাজছে ঢোল, মাইকে গান– ‘যদি রাত পোহালে শোনা যেত, বঙ্গবন্ধু মরে নাই।’ আশোপাশের ভবনের জানালা দিয়ে মানুষজন দেখার চেষ্টা করছেন। পান্থপথের বেশ কয়েকটি বাসার ছাদে দেখা গেল উৎসুক মানুষ।

দুপুর ১২টার দিকে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানানোর পর শোভাযাত্রা শুরু হয়। দুপুর ১টার দিকে সোহরাওয়ার্দীতে এটি সমবেত হয়। এছাড়াও আলাদা আলাদাভাবে মিছিল নিয়ে অনেকেই হাজির হন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ বিভিন্ন রঙের টি-শার্ট বানিয়ে মিছিলগুলোকে করে তুলেছিলেন রঙিন। মিরপুর-১২ থেকে সবান্ধব হাজির হয়েছে সরকারি সাবেক চাকরিজীবী এগারো জনের একটি দল। তাদের অন্যতম রাশেদুল হাসানকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আজকের আয়োজনের সঙ্গে আমরা একাত্ম বোধ করছি। নিজেদের আয়োজন। আমি ৭ মার্চে উপস্থিত ছিলাম সোহরাওয়ার্দীতে। সেসময় যারা ছিল না, তারা এর মূল্য বুঝবে না। রক্ত গরম করা সেই ভাষণের সাক্ষী আমি তার সব কয়টা উদযাপনে হাজির থাকি।’ আরেক প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমরা কয়েকজন বুড়া গল্প করতে করতে কল্যাণপুর থেকে হেঁটে সংসদ ভবন এসেছি। এখানে জিরিয়ে নিয়ে ৩২ নম্বর এসেছি। লেকের পাড়ে বসে জিরিয়ে নিলাম। বাকি পথও এভাবে পৌঁছে যাব। যুদ্ধকালে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যেভাবে গিয়েছি, সেই পথ থেকে এ পথ মসৃণ।’

বেলা ১টার দিকে মিছিলের পর মিছিল এগিয়ে আসতে থাকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের দিকে। হেঁটে আসা মানুষগুলোর চোখে মুখে ক্লান্তি নেই। উৎসবমুখর পরিবেশে বাদ্যযন্ত্র বাজিয়ে, দেশাত্মবোধক বিভিন্ন গানে সমাবেশস্থল ততক্ষণে মুখর। এখানে কী হবে– জানতে চাইলে একটি ইনস্টিটিউটের নারী শিক্ষক বলেন, ‘কখনও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভায় আসার সুযোগ হয়নি। আজকে এই ঐতিহাসিক বিষয় নিয়ে ডাকা জনসভার অংশ হতে পারছি। আমরা যারা একাত্তরে ৭ মার্চের ভাষণ সরাসরি শুনিনি, তাদের জন্য এটি অনেক পাওয়া।’

সরকারি বিভিন্ন অফিস, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের মানুষ রঙিন মিছিল নিয়ে দল বেঁধে যোগ দেন জনসভায়। রাজধানীর একটি স্কুলের মিছিলের এক শিক্ষার্থী জানায়, ৭ মার্চের ভাষণ আমরা টেলিভিশনে শুনেছি, এর ইতিহাস অভিভাবকদের কাছে শুনেছি। সোহরাওয়ার্দীতেও এসেছি বইমেলায়। কিন্তু আজকের দিনের আসাটা ভিন্ন রকম। তার শিক্ষক মো. শফিক বলেন, ‘শিশুদের ইতিহাস শিক্ষা কেবল বই থেকে হয়, তা নয়। এ ধরনের অর্জনের সঙ্গে তাকে একাত্মবোধ করতে শিখতে হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here