সময়ের বিবর্তনে বিলুপ্তির পথে ঐতিহ্যের খেজুর পাটি

0
458

উত্তম চক্রবর্তী : বাংলার গ্রামাঞ্চলে সর্বত্র মানুষের কাছে ময় খেজুর পাটির ব্যবহার ও কদর ছিল অত্যান্ত লক্ষণীয়। সময়ের বিবর্তনে আধুনিকতার ছোয়ায় শীতল পাটি, বিভিন্ন ধরণের চট ও কপের্ট এবং পলিথিনের তৈরি হরেক রকমের উপকারণসহ আধুনিক সরঞ্জাম ব্যবহারের কারণে রাজগঞ্জ থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে ঐতিহ্যবাহি খেজুর পাটি। তবে আজও শীতের সময় এখানে কিছু মানুষ খেজুর পাটি তৈরি ও ব্যবহারকে রিজস্ব সাংস্কৃতি হিসেবে ধরে রেখেছে। সরেজমিনে এবং বিভিন্ন তথ্য মাধ্যমে জানা যায়, ষড়ঋতু অর্থাৎ ঋতু বৈচিত্রের এক অপরুপ নিদর্শন বাংলাদেশ। এক এক ঋতুতে প্রকৃতি সাজে অপরুপ রুপে এবং মানুষও ব্যস্ত থাকে বিভিন্ন কর্মব্যস্ত তায়। পৌষ ও মাঘ এই দু’মাস নিয়ে শীতকাল। অর্থাৎ এ সময় খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ এবং গাছের পাতা দিয়ে তৈরি খেজুর পাটির প্রচলন সেই সু প্রাচীসকাল থেকে বাংলার গ্রামাঞ্চলের মানুষের কাছে ব্যবহার লক্ষণীয়। কিন্তু সময়ের বিবর্তনে আর আধুনিকতার ছোয়ায় শীতল পাটি, চট ও কার্পেট এবং পলিথিনের তৈরি জিনিসের ব্যবহার এতটায় বৃদ্ধি পেয়েছে যে শুধু রাজগঞ্জসহ পাশ্ববর্তী এলাকায় নয় সমগ্র গ্রাম বাংলার মানুষ দিন দিন এর ব্যবহার এবং কদর ভুলে যেতে বসেছে। এক সময় শীতের সময় খেজুর পাটি তৈরি ও সাধারণ মানুষ ঘরে ঘরে নিত্য প্রয়োজনীয় কাজে খেজুর পাটি ব্যবহার করতো। বিশেষ করে কৃষাণ বধুরা ও এ সময় খেজুর পাতা সংগ্রহ করে বিশেষভাবে তৈরি করতো পাটি। তাতে কৃষকের উৎপাদিত ফসল ধান, সরিষা, গম সহ নানাবিধ ফসল রোদে শুকানোর কাজে, কখনো কেহ ছোট ছোট তৈরি করে বসা ও রাতে ঘুমানোর কাজে ব্যবহার সহ নিত্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন কাজে ব্যবহার হত এ পাটি। এছাড়াও গ্রামের হত দরিদ্র কিছু গৃহবধুরা খেজুর পাটি তৈরি ও বিক্রয় করে স্বামীর সংসারে বাড়তি আয়ের একটি উৎস সৃষ্টি করতো বলে জানা যায়। রাজগঞ্জের অনেকেই জানিয়েছন, ঐতিহ্যবাহি খেজুর পাটি তৈরি ও কদর দিন দিন কমে যাচ্ছে। কারণ হিসেবে তারা জানায় শীতল পাটি, নল পাটি, চট ও কার্পেট, পলিথিনের তৈরি হরেক রকমের উপকরণ ব্যবহার এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যে এখন অনেকেইউ এর নাম ভুলতে বসেছে এবং এগুলো সহজে পাওয়া যায়। তাছাড়া প্রতিবছর এখানে বন্যার কারণে কেজুর গাছ অনেক মরে যায় ও ভাল খেজুর গাছ এবং ।কোনকার ভাটায় খেজুর গাছের চাহিদা থাকায় খেজুর গাছ কমতে বসেছে। রাজগঞ্জ এলাকার এক গৃহবধু জানান, দেশ স্বাধীন হবার পরে আমার স্বামী মারা যায়। পরবর্তীতে অপরের ক্ষেত খামার ও বাড়িতে কাজ করার পাশাপাশি খেজুর পাটি তৈরি ও বিক্রয় করে বাড়তি আয় যা হতো, তা দিয়ে সংসার কোনভাবে চলে যেত। ভাল খেজুর পাতা এখন পাওয়া যায় না। একটি ছেলে ভ্যান চালিয়ে যা আয় করে তা দিয়ে তার সংসার চালাতে হিমশিম খেতে হয়। দু’টি মেয়ের মধ্যে একটি বিয়ে দিলেও সে এখন বিধবা হয়ে সন্তান নিয়ে স্বামীর ভিটেই আছে। এখন অন্যের ক্ষেতে কাজ করতে পারি না তাই আজও মাঠে মাঠে ঘুরে কিছু খেজুর পাতা সংগ্রহ করে আবার কখনো কেহ খেজুর পাতা দিলে পাটি তৈরি করে অর্ধেক ভাগ দিয়ে বাকি পাটি গুলো ১শ থেকে ২ শত টাকা বিক্রয় কখনো অন্যের কাছ থেকে চেয়ে নিয়ে পাগল মেয়েটি নিয়ে কষ্টে সংসার চালাতে হয়। এখন পূর্বের মত খেজুর পাটির কদর নেই। বসে না থেকে কিছু রোজগর করার চেষ্টা করে থাকেন বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here