সময় গেলে সাধন হবে না

0
257
ইদানীং সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরাখবরে দেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে হতাশাব্যঞ্জক চিত্র ফুটিয়া উঠিতেছে। এই সব খবরে দেশের কোনো কোনো ব্যক্তি, সংগঠন ও কায়েমী স্বার্থবাদী গোষ্ঠীর বিভিন্ন ধরনের অমানবিক, অবৈধ আর অপরিণামদর্শী কাণ্ডকারখানা মূর্ত হইয়া ওঠে। ফলে সরকারের নজিরবিহীন সাফল্য উল্লিখিতদের অপতত্পরতায় ম্লান হইবার জোগাড় হয়। আর ইহা লইয়া ক্ষমতাসীন দলের অভ্যন্তরেতো বটেই, এমনকি দেশের বিভিন্ন মহলে উদ্বেগ-উত্কণ্ঠার অন্ত থাকে না। সিটিং সার্ভিসের নামে একশ্রেণির বাস মালিক যে চিটিং ব্যবসা ফাঁদিয়া বসিয়াছে,  উহা হইতে যাত্রী সাধারণকে রক্ষা করা সরকারের কর্তব্য। আর সেই কর্তব্য পালন করিতে সম্প্রতি এই জাতীয় বাসের বিরুদ্ধে অভিযান চালাইতে গিয়া সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ব্যর্থ মনোরথে ফিরিয়া আসিয়াছেন। এই ক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায় হিসাবে সরকারের দুই-দুইজন পরিবহন ব্যবসায়ী মন্ত্রীর ভূমিকা লইয়া বিস্তর প্রশ্নও দেখা দিয়াছে। পরিবহন মালিকদের স্বার্থ বজায় রাখা আর যাত্রীসাধারণের জন্য দুর্ভোগ জারি রাখাই যেন পরিবহন সেক্টরের এক শ্রেণির মালিকের একমাত্র অভিপ্রায়। ইতিপূর্বে এই সেক্টরের শ্রমিকদের উদ্ধত আচরণ বিশেষ করিয়া বাসচালকদের বেপরোয়া গাড়ি চালানো বন্ধে সরকার কঠিন শাস্তির বিধান রাখিয়া যে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করিয়াছিল, শেষতক ঐ কায়েমী স্বার্থবাদী গোষ্ঠীর কাছে নতি স্বীকার করিয়া কঠোরতম আইন প্রণয়নের ব্যাপারে পিছু হটিতে এক প্রকার বাধ্যই হইতে হয় সরকারকে। এইরূপ চতুর্দিকে নানামুখী অব্যবস্থা আর নিয়ন্ত্রণহীন কার্যক্রম দেদার চলিতেছে। বিশেষজ্ঞরা সেমিনার সিম্পোজিয়ামের মাধ্যমে ব্যাংকিং খাতের যাচ্ছেতাই বিশৃঙ্খল অবস্থার কথা সোচ্চার কণ্ঠে জানান দিতেছেন, কিন্তু ইহার বিরুদ্ধে কোনো কার্যকর ব্যবস্থা চোখে পড়ে না। ফলে দেশে হলমার্ক, বিসমিল্লাহ গ্রুপ ইত্যাদির ভয়াবহ কেলেঙ্কারির পুনরাবৃত্তি ঘটার আশঙ্কা কিছুতেই উড়াইয়া দেওয়া যায় না। একশ্রেণির দুর্নীতিবাজ ব্যাংক মালিক ও পরিচালকের আত্মস্বার্থ চরিতার্থ করার মানসিকতা আর এই কাজে পূর্ণ সহযোগিতা প্রদানকারী একশ্রেণির ব্যাংক কর্মকর্তা ও কর্মচারীর দৌরাত্ম্যে আজ ব্যাংক ব্যবস্থার এই দুর্দশা। রাষ্ট্রায়ত্ত ও বেসরকারি ব্যাংকগুলি হইতে হাজার কোটি টাকা লোপাট হইয়া যাইতেছে, অথচ অপরাধীরা দিব্যি গায়ে হাওয়া লাগাইয়া ঘুরিতেছে। আইন ইহাদের কেশাগ্র পর্যন্ত স্পর্শ করিতে পারে না। ফলে ইহাদের দৌরাত্ম্য ও দাপটে অর্থনীতির চাকা যেমনটা ঘোরার কথা ছিল তেমন করিয়া ঘুরিতে পারিতেছে না।
দেশে বিনিয়োগের বাধা দূর করার গালভরা বুলি শোনা যায়, কিন্তু বাস্তবে বিষয়টি যে তিমিরে ছিল সেই তিমিরেই থাকিয়া যাইতেছে। অবকাঠামোর উন্নয়ন, আমলাতান্ত্রিক জটিলতার অবসান, গ্যাস-বিদ্যুতের নিয়মিত সরবরাহের নিশ্চয়তা ইত্যাদি নানান বিষয়ে গড়িমসি এই খাতের সবচাইতে বড় অন্তরায়! এই দিকে সবিশেষ নজর আর সামগ্রিক উন্নতি সাধন পরিতে না পারিলে প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা কিংবা বর্তমান প্রবৃদ্ধির হার বজায় রাখা দুঃসাধ্য হইতে বাধ্য। এ সকল ক্ষেত্র হইতে সংশ্লিষ্ট মহলের কেবলই ব্যক্তিগত ও গোষ্ঠী স্বার্থ উদ্ধারের এই হীন মানসিকতা দূর করিতে না পারিলে সকল অর্জনই এক সময় ম্লান হইয়া  পড়িতে পারে বৈ কি! আরেকটি বিষয় এই যে, ক্ষেতে-খামারে কীটনাশকের যথেচ্ছ ব্যবহারের যেসব তথ্য পাওয়া যাইতেছে উহা আর এক ভয়াবহ চিত্রই তুলিয়া ধরে মাত্র। সবজি চাষে বিষাক্ত সব রাসায়নিক ও কীটনাশকের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার যে জনস্বাস্থ্যকেই মারাত্মক হুমকির মুখে ঠেলিয়া দিতেছে, সে খেয়াল কি আমরা কেহ করিতেছি? আর করিলেও এ ব্যাপারে সত্যিকারের প্রতিকার বিষয়ে কেহ কি আদৌ কিছু ভাবিতেছেন? আমাদের অনেক অনেক সাফল্যের মাঝে এইসব অব্যবস্থা হতাশার কারণ ঘটায় নিশ্চয়ই। কাউয়া ও  ফার্মের মুরগিদের এই দুর্বিনীত ও জাতিবিনাশী ভূমিকা সময়মতো প্রতিরোধ করিতে না পারিলে যে সমূহ বিপদ, এই কথাটি সংশ্লিষ্ট সকলের মাথায় রাখা দরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here