সরকারি ঔষধ সংকট চরমে রোগীরা বাইরে থেকে ঔষধ কিনতে বাধ্য হচ্ছে

0
508

এম আর রকি (যশোর) : জেলার সর্ববৃহৎ সরকারী স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে প্রায় পাঁচ মাস যাবৎ ঔষধ সংকট অবস্থা বিরাজ করছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

হাসপাতালে সার্জারী বিভাগের সিনিয়র ষ্টাফ নার্স রহিমা খাতুন সাংবাদিকদের জানান, দুই মাস ধরে প্রয়োজনীয় তুলনামূলক ঔষধ সরবরাহ না থাকার কারনে রুগীদেরকে চাহিদা মোতাবেক ঔষধ দেওয়া সম্ভব হচ্ছেনা। অত্র হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের সিনিয়র ষ্টাফ নার্স আসমা বিশ্বাস জানালেন, রোগী তুলনায় ঔষধ সরবরাহ না থাকায় ভর্তিকৃত রোগীদের হাসপাতালের বাইরের ফার্মেসী থেকে চড়া মূল্যে ঔষধ ক্রয় করতে হচ্ছে। অপর দিকে, হাসপাতালের প্রত্যেক ওয়ার্ডে সেবিকারা বলেন ১ গ্রাম ও ২ গ্রাম সেফট্রেক্সন ইনজেকশন,ওমেপ ইনজেকশন ২০ গ্রাম,সিপ্রো ৫শ’ মিলিগ্রাম ইনজেকশন,মেট্টো ৫শ’ মিলিগ্রাম ইনজেকশন, বিভিন্ন ইনজেকশন স্যালাইন,সিরিঞ্জ পর্যন্ত সরবরাহ নাই।

ফলে ভর্তিকৃত রোগীরা বাধ্য হয়ে বাইরের বিভিন্ন ফার্মেসী থেকে চড়া মূল্যে কিনতে বাধ্য হচ্ছে। অত্র হাসপাতালে ভর্তিকৃত ভূক্তভূগী হানজালা (১০) সে শহরের খড়কি এলাকার মৃত মানুর ছেলে গত কয়েক দিন আগে হাসপাতালে ভর্তি হয়৷ভর্তিকৃত রোগী হানজালার স্বজন হাফিজুর রহমান অভিযোগ করেন, হানজালা চলতি মাসে ৪ তারিখে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি হয় কিন্তু ঐমুহুর্তে তাদের ঔষধ ক্রয় ক্ষমতা ছিলো না সরকারী ঔষধ সরবরাহ না থাকার কারনে শিশুটির চিকিৎসা করানো নিয়ে বিপাকে পড়তে হয়।

যশোর শহরের কাজী পাড়া এলাকার মিন্টুর স্ত্রী নূরজাহান (৩০) সন্তান সম্ভাবা প্রসব জনিত রুগি হিসেবে ২ মে  হাসপাতালে ভর্তি হয়। নূর জাহানের পিতা নূর আলী অভিযোগ করেন, অস্ত্রোপচারের  মাধ্যমে নূরজাহানের ডেলিভারি করানো হয়। সরকারি ঔষধ না পাওয়ার কারনে বাহির থেকে প্রায় ৭ হাজার টাকার ঔষধ ক্রয় করে চিকিৎসা করানো হয়। এছাড়াও ওই ওয়ার্ডে একজন রোগীর দর্শনার্থী ইদ্রিস আলী তিনিও একই অভিযোগ করেন।

হাসপাতালে রোগী কল্যান সমিতির সাস্কৃতিক সম্পাদক হাসপাতাল স্বাস্থ্যসেবা উপকমিটির সদস্য এসএম জাহাঙ্গির হোসেন খোকন সাংবাদিকদের জানান, সরকার স্বাস্থ্য সেবার ব্যাপারে খুবই আন্তরিক। কিন্তু স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গাফিলতির কারনে যশোর জেনারেল হাসপাতালসহ স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলোতে সরকারি ঔষুধ পাচ্ছে না। জেলার বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যকর্মী না থাকায় তারা জেনারেল হাসপাতালে ভীড় করছে। যার ফলে হাসপাতালের মজুত ঔষধ দ্রুত শেষ হচ্ছে। যার ফলে রোগীদের বাহির থেকে ঔষধ ক্রয় করে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। অপর দিকে,চলতি অর্থ বছরে টেন্ডার সংক্রান্ত জটিলতার কারণে বর্তমানে ঔষধ সংকট চরম আকার ধারন করেছে বলে তিনি মনে করেন।

অত্র হাসপাতালে র্দীঘদিন যাবত ষ্টোর কিপারের দায়িত্বে নিয়োজিত আফজাল হোসেন সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, টেন্ডার সংক্রান্ত জটিলতার কারনে বর্তমারে এই হাসপাতালে ঔষধ সংকট দেখা দিয়েছে। সর্বশেষ অত্র হাসপাতালের এখনও পর্যন্ত দায়িত্বরত তত্বাবধায়ক ডাক্তার কামরুল ইসলাম বেনুর নিকট জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, গত ডিসেম্বর মাসে টেন্ডার  করা হয় । কিন্তু আজ পর্যন্ত স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে টেন্ডারের অনুমোদন পাওয়া যায়নি। তিনি আরো জানান, ইডিসির থেকে ৭০ শতাংশ ঔষধ পেয়ে পর্যাপ্ত ঔষধ সরবরাহ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here