সরকারের চতুর্থ বর্ষপূর্তি:সাফল্যের পাল্লাই ভারী

0
349

আজ ১২ জানুয়ারি বর্তমান সরকারের চতুর্থ বর্ষ পূর্ণ হইল। ২০১৪ সালের এই দিনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে ১৪ দলীয় মহাজোট সরকার টানা দ্বিতীয়বারের মতো ক্ষমতাসীন হয়। যেকোনো সরকারেরই সাফল্য ও ব্যর্থতা উভয়ই থাকে। তবে সাফল্যের পাল্লা ভারী হইলে এবং অধিকাংশ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি পূরণ হইলেই সেই সরকারকে বলা যায় সফল ও সার্থক। রাজনৈতিক বিশ্লেষকগণ মনে করেন, ব্যর্থতার চাইতে বর্তমান সরকারের সাফল্যের দিকই বেশি। সবচাইতে বড় কথা হইল, এই সরকার বাংলাদেশকে যে উন্নয়নের মহাসড়কে তুলিয়া আনিয়াছে, তাহা হইতে আমরা বিচ্যুত হই নাই। উন্নয়ন প্রক্রিয়া এবং তাহার ধারাবাহিকতা অব্যাহতই আছে। বর্তমান প্রবৃদ্ধির হার সাত দশমিক ২১ শতাংশ। মাথাপিছু আয় ১৬১০ মার্কিন ডলার। এই ধারা অব্যাহত থাকিলে ২০২১ সালে মাথাপিছু আয় দাঁড়াইবে দুই হাজার মার্কিন ডলারে। এই সময়ের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হইবার যে স্বপ্ন আমাদের আছে, তাহাও নিঃসন্দেহে পূরণ হইবে।

সমপ্রতি জার্মানভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল পলিটিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের (আইপিআরসি) এক জরিপের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ (৫৪ শতাংশ) মনে করেন, এই সরকারের সবচাইতে বড় সাফল্য ব্যাপক অবকাঠামোগত উন্নয়ন। গ্রাম কিংবা শহর সর্বত্রই বিপুল অর্থপ্রবাহ পরিলক্ষিত হইয়াছে। উন্নয়নমূলক প্রকল্প গ্রহণে অর্থের তেমন অভাব হয় নাই। কৃষি, শিক্ষা, বিদ্যুত্, খাদ্য নিরাপত্তা, তথ্য-প্রযুক্তি, পরিবেশ, ক্রীড়াসহ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সরকারের সাফল্য দৃশ্যমান। বিগত বত্সরগুলির ধারাবাহিকতায় বত্সরের শুরুতেই এবার ৩৫ কোটি শিক্ষার্থীর নিকট বিনামূল্যের বই বিতরণ করিয়াছে সরকার। এই সরকারের আমলে বিদ্যুত্ উত্পাদন বৃদ্ধি পাইয়াছে ৮৫ ভাগ। ৩৫ লক্ষ সংযোগসহ ৬৫টি নূতন বিদ্যুত্ কেন্দ্র চালু হইয়াছে। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে পদ্মা সেতুর কাজ সমাপ্তির লক্ষ্যে চলিতেছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ দমনে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করিয়া এবং ৫ জানুয়ারি নির্বাচনোত্তর রাজনৈতিক সহিংসতা সুকৌশলে বন্ধ করিয়া গত কয়েক বত্সরে স্থিতিশীলতা উপহার দিয়াছে এই সরকার। যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করিতেও এই সরকার সাহসিকতার পরিচয় দিয়াছে। সার্বিকভাবে দক্ষ নেতৃত্বের কারণে বিশ্বের শীর্ষ নেতাদের তালিকায় দশম স্থানে ঠাঁই পাইয়াছেন আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কূটনীতি ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও এই সরকারের অনেক বিস্ময়কর সাফল্য রহিয়াছে। একইসঙ্গে ভারত, চীন, আমেরিকা, রাশিয়া, সৌদি আরব, তুরস্ক প্রভৃতি দেশের সঙ্গে সহযোগিতা ও মৈত্রীর সম্পর্ক বজায় রাখা ছিল চ্যালেঞ্জস্বরূপ। বিশ্ব রাজনীতিতেও এখন বাংলাদেশের অবস্থান সম্মানজনক। একটানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতা গ্রহণের পর স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সিপিএ (কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি এ্যাসোসিয়েশন) চেয়ারপারসন হওয়া, সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরীর ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়া ছিল অত্যন্ত সম্মান ও গৌরবের। ইহাছাড়া বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক সাতই মার্চের ভাষণকে ইউনেস্কোর বিশেষ স্বীকৃতি, পরিবেশ উন্নয়ন ও নারীর ক্ষমতায়নে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক অ্যাওয়ার্ড লাভ প্রভৃতিও বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। তবে তথ্যাভিজ্ঞ মহলের মতে, গত দুই মেয়াদে এই সরকারের সেরা সাফল্য হইল প্রতিবেশী ভারতকে সঙ্গে লইয়া ৬৮ বত্সরের পুরাতন ছিটমহল সমস্যার সমাধান এবং আন্তর্জাতিক আদালতে আইনি লড়াই চালাইয়া বাংলাদেশের সমপরিমাণ গভীর সমুদ্রে বিশাল অঞ্চলে নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠা। তাহাছাড়া বিডিআর বিদ্রোহ দমন, বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ-দুর্বিপাক মোকাবিলায় এই সরকার যেমন বিচক্ষণতার পরিচয় দিয়াছে, তেমনি উদভূত রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানেও ঠাণ্ডা মাথায় সাফল্যের সহিত কাজ করিয়া যাইতেছে। কয়েক লক্ষ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাকে আশ্রয় ও নিরাপত্তা দিয়া বাংলাদেশ বিশ্ববাসীর অকুণ্ঠ প্রশংসা কুড়াইয়াছে।

সাফল্যের পাশাপাশি কিছু ব্যর্থতার কথাও বলিতে হয়। বিভিন্ন হায় হায় কোম্পানি কর্তৃক জনগণের আমানত লুটপাট এবং শেয়ারবাজার, হলমার্ক, বেসিক ব্যাংক, বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮০৮ কোটি টাকার রিজার্ভ চুরি ইত্যাদি কেলেঙ্কারির ঘটনা জনমনে হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি করে। সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি যেভাবে ছড়াইয়া পড়িয়াছে তাহাতেও ত্যক্ত-বিরক্ত জনগণ। ইহাছাড়া দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি, প্রশ্নপত্র ফাঁস, গুম-খুন ইত্যাদি ঘটনায় মানুষের উদ্বেগ দূর হয় নাই অদ্যাবধি। নূতন বত্সরে এইসকল সমস্যা কাটাইয়া উঠিতে পারিলে সরকারের জনসমর্থন যে আরো বাড়িয়া যাইবে, তাহাতে সন্দেহ নাই। আমরা সরকারের চতুর্থ বর্ষ পূর্তি উপলক্ষে এবং একটানা নয় বত্সর ক্ষমতায় থাকিয়া রেকর্ড সৃষ্টি করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও তাহার সরকারের সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি জানাই শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here