সহকারী বিচারক এর প্রতারনা’র বিচার দাবিতে স্ত্রী, যশোরে সংবাদ সন্মেলন

0
322

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাতক্ষীরার এক সহকারি জজ এর বিরুদ্ধে প্র্রতারনা করে ২য় বিয়ে ও যৌতুক দাবীসহ তালাক নাদিলে প্রাণনাশের অভিযোগ তুলে স্ত্রী পরিচয়দানকারীর সংবাদ সম্মেলন।
যশোর কেশবপুর উপজেলার বুড়ুলিয়া গ্রামের কলমিস্ত্রী মিজানুর রহমানের মেয়ে স্হানিয় কুমিরা মহিলা কলেজের অনার্স ২য় বর্ষের ছাত্রী জবা খাতুনকে, বিয়ে করে খুলনা ডুমুরিয়া উপজেলার মাগুরা ঘোনা গ্রামের আব্দুস সামাদ শেখের ছেলে হারুন আর রশীদ। ১ম স্ত্রী থাকার স্বত্বেও প্রতারনা করে ২য় বিয়ে ও বিয়ের পর ৫লক্ষটাকা যৌতুক দাবি ও তালাক নাদিলে জীবণ নাশের হুমকির প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় প্রেসক্লাব যশোরে এক সংবাদ সম্মেলন করেছে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে জবা খাতুন অভিযোগ করেন, গত ১২.০২.২০১৭ উভয় পারিবারিক সন্মতিক্রমে জবা ও হারুনের বিবাহ হয়। বিয়ের পর স্বামি হারুন কিছুদিন ঘরসংসার করার পর পনের জন্য ৫লক্ষ টাকা দাবি করে জবাকে বাপের বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এরপর স্ত্রী জবা জানতে পারে সাতক্ষীরা কলারোয়া বাজার এলাকার শেখ কামরুল ইসলামের মেয়ে সানজিদা আক্তার বিথিকে ২৬.০৪.২০১৩ সালে প্রথমে হারুন বিয়ে করেছে। তাদের একটি সন্তানও আছে। এরপর জবা তার স্বামি হারুনকে জিজ্ঞাসা করলে তিনি জানিয়ে দেন আমাকে ভুলে যাও আমার আগের স্ত্রী সন্তান আছে। সেসাথে হারুন ২য় স্ত্রী জবাকে তালাক দেওয়ার জন্য বিভিন্ন লোক মরফতে চাপ দিয় আসছে। যার ফলে জবার পিতা বাড়ি ছাড়া হয়েছে। হারুনকে তালাক না দিলে জীবণ নিশের ও হুমকি অব্যাহত রেখেছে বলে জবা খাতুন সংবাদ সন্মেলনে দাবি করেন। সেকারনে ১৯মার্চ ২০১৭ তারিখে যৌতুক মামলা নং সিআর/৬৪/১৭ ও ২৩মার্চ ২০১৭ তারিখে প্রতারনা মামলা নং সিআর/৭০/১৭ কেশবপুর আদালতে বিচার চেয়ে জবাখাতুন পৃথক দুইটি মামলা করেছেন। এসংবাদ সন্মেলনের মাধ্যমে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী ও প্রধান বিচার পতির সুবিচারের হস্তক্ষেপ তিনি কামনা করেছেন। সংবাদ সন্মেলনে উপস্হিত ছিলেন আপন মামা আব্দুল হান্নান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here