সহমর্মিতার বিকল্প নাই

0
214

গণমাধ্যমে প্রায় প্রতিদিনই উঠিয়া আসিতেছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ঘটিয়া যাওয়া শিশু নির্যাতনের খবর। মোবাইল চুরির অপবাদে কুষ্টিয়ার কুমারখালীর ছেঁউড়িয়ায় গত বুধবার দুই শিশুকে বেধড়ক মারপিট করিয়াছে স্থানীয় প্রভাবশালীমহল। দৈনিক ইত্তেফাকে প্রকাশিত প্রতিবেদন হইতে জানা যায়, মোবাইল চুরির কথা অস্বীকার করিলেও আমগাছের সহিত বাঁধিয়া শিশু দুইটিকে প্রকাশ্যে নির্মম নির্যাতন করা হয়। পরিতাপের বিষয় হইল, শিশু দুইটিকে নির্যাতনের ঘটনাটি অনেকে প্রত্যক্ষ করিলেও তাহাদের রক্ষায় কেহ আগাইয়া আসে নাই। উপরন্তু কেহ কেহ ঘটনাটির ভিডিওচিত্র ধারণ করিতেই বরং অধিক ব্যস্ত ছিলেন। পরবর্তীকালে নির্যাতিত একটি শিশুর পরিবারের নিকট হইতে জোরপূর্বক দুই হাজার টাকা আদায়ের পরই নির্যাতনকারীরা শিশু দুটিকে ছাড়িয়া দেয়।

বলিবার অপেক্ষা রাখে না যে, দিনে দিনে সমাজ ক্রমশই অসহিষ্ণু হইয়া উঠিতেছে। ফলে ক্রমেই বাড়িয়া চলিতেছে নৃশংস ঘটনা। ইহাতে নারী ও শিশুসহ অপেক্ষাকৃত দুর্বল শ্রেণির মানুষ হরহামেশাই আক্রান্ত হইতেছে। শিশু অধিকার ফোরামের এক পরিসংখ্যান হইতে জানা যায়, এই বত্সরের জানুয়ারি হইতে মার্চ পর্যন্ত তিন মাসে শিশুদের উপর যৌন ও শারীরিক নির্যাতনের হার অন্যান্য বত্সরের তুলনায় অধিক পরিমাণে বৃদ্ধি পাইয়াছে। তাহা ছাড়া শিশুহত্যা, ধর্ষণ ও নির্যাতনের হারও বাড়িতেছে আশঙ্কাজনকভাবে। থামিয়া নাই শিশুপাচার এবং ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের ব্যবহারের প্রবণতাও।

প্রশ্ন হইল, একটি পোষা প্রাণী তাহার মনিবের নিকট হইতে যেই সহমর্মিতা পায়—একটি মানবশিশু কি ন্যূনতম এই সহমর্মিতাটুকুও প্রত্যাশা করিতে পারে না? তাহা ছাড়া চুরি জাতীয় অভিযোগ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সন্দেহমূলক বা অভিসন্ধিমূলক হইয়া থাকে। অন্যদিকে সত্যিই যদি কোনো চুরি-ডাকাতি বা এই জাতীয় আরো অপরাধ ঘটিয়া থাকে, তাহার পরও কোনো অপরাধীকে নিজেদের ইচ্ছামাফিক বিচার করা যায় না। দেশে আইন রহিয়াছে, কোনো ঘটনার বিচারকার্য নিজহাতে তুলিয়া নেওয়াটাও এক ধরনের অপরাধ। যাহারা এই ধরনের অপরাধ করেন, তাহাদের মনে রাখিতে হইবে, শিশু রাজনকে কথিত অপরাধে হত্যা করিবার পর তাহাদের বিচারের মুখোমুখি হইতে হইয়াছে। শুধু তাহাই নহে, এই সংক্রান্ত মামলায় অধিকাংশ অপরাধীর সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ড পর্যন্ত হইয়াছে। উপরন্তু নারী ও শিশু নির্যাতনমূলক অপরাধ কঠোর হস্তে দমনের উদ্দেশ্যে ২০০০ সালে প্রণীত হইয়াছে ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন’।

আইন আছে, কিন্তু তাহার পরও শিশু নির্যাতনের ঘটনা বৃদ্ধি পাইতেছে। ইহা তাত্পর্যপূর্ণ। শিশু নির্যাতনমূলক ঘটনার লাগাম টানিয়া ধরিতে সামাজিক আন্দোলনের প্রয়োজন। ইহার জন্য প্রয়োজন একটি মানবিক সমাজব্যবস্থা গড়িয়া তোলা। এই ব্যাপারে গণমাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধিসহ সমাজ ও ব্যক্তিপর্যায়েও ভূমিকা রাখার সুযোগ রহিয়াছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here