সাইবার প্রতরনার ফাঁদে পুলিশ কর্তারাও, দিশেহারা প্রশাসন

0
72

ডি এইচ দিলসান : সাইবার প্রতারকদের নিত্য নতুন প্রতারনায় দিশেহারা হয়ে পড়ছে যশোরের প্রশাসন। সমাজের বিত্তবানদের থেকে শুরু করে খোদ থানার ওসিদের বিপদে ফেলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে এই চক্রটি। সাম্প্রতি যশোরের বেনাপোল পোর্ট থানার ওসির নাম ভাঙ্গিয়ে বেনাপোলের কাগজপুকুর এলাকার শাহিনুল ইসলামের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি প্রতারক চক্র।
শাহিনুলের সাথে কথা বললে তিনি বলেন আমার কাছে ০১৯১৫০৭৪৮৬৩ এবং ০১৯৪৬৫৬৩৭৩৮ নাম্বার থেকে বেনাপোল থানার ওসি এবং তদন্তের নামে ২ লাখ টাকা চাই। আমি কাগজপুকুর বাজারের বিকাশের দোকান থেকে এই নাম্বার দুটিতে ২ লাখ টাকা পাঠিয়ে দেয়। এরপর আমি ওই নাম্বারে ফোন দিলে আর যখন রিসিভ না করে তখন সন্দহ হলে আমি থানায় গিয়ে জানতে পারি প্রতরনার শিকার হয়েছি।
এ ব্যাপারে বেনোপোলের ঘটনার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই সংকর বলেন, আমরা টেকনোলজির মাধ্যম্যে বিকাশ সাপর্ট টিমের মাধ্যম্যে আসামীদের ডিটেক্ট করতে সক্ষম হয়েছি। খুব শিঘ্রই আমরা প্রতারকদের আটক করবো।
এদিকে বাঘারপাড়া থানার ওসির ইমো নাম্বার হ্যাক করে বিভিন্ন মানুষের কাছে টাকা টাকা দাবি করছে বলে জানা গেছে। বিষটি জিডির প্রক্রিয়াধীন আছে।
এদিকে গত ১২ জুলাই যশোর শহরের আর এক প্রভাবশালীর পরিবারের সদস্যের ফেসবুক হ্যাক করে কয়েকলক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ০১৬০৪২৫৫৩৬৭, ০১৬০২১২৬০১৯ এবং ০১৮৭৩৪৩৯৪৩৩ এই নাম্বার গুলো থেকে প্রায় ২ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন।
এছাড়া সাইবার ক্রাইম সেল থেকে জানা গেছে মনিরামপুরে চলমান ৪০ দিনের কর্মশৃজন প্রকল্পের টাকাও উধাও হয়ে গেছে। মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট খোলার জন্য পিন চেয়ে সমুদয় টাকা চলে যায় প্রতারকদের পকেটে।
এ ব্যাপারে যশোর সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিকেশন সেলের ইনচার্জ এসআই মাহাফুজ বলেন, আমরা আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে অতিঃ পুলিশ সুপার “খ’’ সার্কেল, মুকিত সরকারের নেতৃত্বে সকল কেচ সমাধান করে চলেছি। বেনাপোলের ঘটনা ইতমধ্যে ডিটেক্ট হয়েছে। আর বাকী কাজ চলছে, খুব শিঘ্রই আমরা প্রতারকদের থামাতে সম্ভব হব।