সাইবার বুলিংয়ের শিকার ৭৩ ছাত্রী, যা বললেন অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী

0
48

ইসলামী বিম্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) একটি ফেসবুক পেইজের বিরুদ্ধে সাইবার বুলিংয়ের অভিযোগ উঠেছে। পেইজটিতে শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে আপত্তিকর ক্যাপশন জুড়ে ইবির ৭৩ জন ছাত্রীর ছবি প্রকাশ করা হয়েছে। বিষয়টি দৃষ্টিগোচর হলে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রয়া ব্যক্ত করেছেন ভুক্তভোগী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ‘Crush & Confession, Islamic University, Bangladesh’ নামে একটি ফেসবুক পেইজে আপত্তিকর ক্যাপশন জুড়ে ৭৩ জন ছাত্রীর ছবি প্রকাশ করা হয়। এতে ক্যাপশনে লেখা ছিল ‘ইবি কাঁপানো সকল সুন্দরী একসাথে, ইমো নম্বর পেতে লাভ রিয়েক্ট দিয়ে সঙ্গেই থাকুন।’ এরপর শিক্ষার্থীদের তোপের মুখে আনুমানিক রাত ১২ টার দিকে পোস্টটি সরিয়ে ফেলা হয়। একইসাথে দুঃখ প্রকাশ করে পুনরায় পোস্ট করা হয়। এছাড়া পেইজটিতে এর আগেও অসংখ্যবার বিভিন্ন মেয়েকে নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট করা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, পেইজের ক্রিয়েটর এবং একমাত্র এডমিন বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মিজান বিশ্বাস। তিনি ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। এছাড়াও স্থানীয় খোকসা উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী মিজান বিশ্বাস ক্ষমা প্রার্থনা করে বলেন, ‘এটা ডাবল মিনিংয়ের পোস্ট। মজা করে দিয়েছিলাম। ইমু নাম্বার দেয়া তো ভাইরাল ডায়লগ। তবুও আমার ভুল হয়েছে; আমি সবার কাছে ক্ষমা চাচ্ছি।’
এদিকে বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় চলছে। বিভিন্ন গ্রুপ এবং ব্যক্তিগত আইডি থেকে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করার পাশাপাশি অভিযুক্তদের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন অনেকেই।

ভুক্তভোগী এক ছাত্রী বলেন, ‘ঘুম থেকে উঠেই আমার ছবিসহ ৭০-৮০ জন মেয়ের ছবি ব্যবহার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি পেইজে অশ্লীল ঈঙ্গিতপূর্ণ পোস্ট দেখে হতবাক হয়েছি। ইবির নামে খোলা ফ্যান পেইজে কিভাবে এতগুলো মেয়ের ছবি ব্যবহার করে তাদের ইমো নম্বর দিতে চেয়ে পোস্ট করতে পারে এডমিনরা? প্রশাসন আগেকার হয়রানির ঘটনার বিচার করেনি, এ জন্য এর পুনরাবৃত্তি ঘটছে, আরো ঘটবে।’

বাংলা বিভাগের এক ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী বলেন, ‘ক্যাম্পাসে একের পর এক ঘটনা ঘটছে কিন্তু প্রশাসন নিরব। ক্যাম্পাসেরই একটা পেইজ থেকে ৭০+ মেয়ের ছবি দিয়ে বাজে ক্যাপশনে পোস্ট করা হলো। এটা রীতিমতো হয়রানি করা। এসব আর কতো চলবে? মেয়েরা কোথায় নিরাপদ?’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, বিষয়টি শুনেছি। ভিসি স্যারকে জানিয়েছি। তিনি আইটি সেলে একটি নোট পাঠাতে বলেছেন, আমরা অলরেডি পাঠিয়েছি। আইডিগুলো শনাক্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নিব।