সাতক্ষীরার আশাশুনিতে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাইয়ে অনিয়মের অভিযোগ

0
299

শান্তি কমিটির সদস্যের ছেলেসহ রাজাকারের নাম উঠেছে মুক্তিযোদ্ধার তালিকায়

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কার্যক্রমে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে অনেক অমুক্তিযোদ্ধাকে তালিকাভূক্ত করা হয়েছে। তৎকালিন শান্তি কমিটির সদস্যের ছেলেসহ একজন রাজাকারের নাম উঠেছে ওই তালিকায়। অনিয়মের অভিযোগে কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের প্রতিনিধি আব্দুর রহমান উপজেলা যাচাই-বাছাই কমিটির প্রতিবেদনে স্বাক্ষর করেননি। এদিকে অর্থের বিনিময় অমুক্তিযোদ্ধাদের নাম মুক্তিযোদ্ধা তালিকাভূক্ত হওয়ায় উপজেলার সাধারন মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে।
একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, আশাশুনি উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই কার্যক্রম কমিটির সভাপতির দায়িত্বে নিয়োজিত হন মোঃ নুরুল হুদা। কমিটির সদস্য সচিবের দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুষমা সুলতানা। সদস্যরা হলেন আশাশুনি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল হান্নান, কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের প্রতিনিধি আব্দুর রহমান, মুবিম’র প্রতিনিধ মোঃ আমির হোসেন জোয়ার্দ্দার, জামুকা’র প্রতিনিধি হায়দার আলী ও সাতক্ষীরা জেলা কমান্ডারের প্রতিনিধি আব্দুল কমির।
সূত্র জানায়, মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আশাশুনি উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন থেকে মোট ৪০২টি আবেদন জমা পড়ে। যাচাই-বাছাই কার্যক্রম শেষে কমিটি গত ১৬ ফেব্র“য়ারী ১৮৪ জনের জনের একটি তালিকা প্রস্তুত করেন। ওই তালিকায় কমিটির সভাপতি ও সদস্য সচিবসহ ছয় জন স্বাক্ষর করলেও কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের প্রতিনিধি আব্দুর রহমান স্বাক্ষর করেননি। তালিকা প্রণয়নে অনিয়মের অভিযোগ তুলে যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক প্রস্তুতকৃত প্রতিবেদনে তিনি স্বাক্ষর করা থেকে বিরত থাকেন বলে জানা গেছে।
এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আশাশুনি উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে কমপক্ষে ৯টি ইউনিয়নে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রস্তুতে অনিয়মের আশ্রয় নেয়া হয়েছে। মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে অমুক্তিযোদ্ধা ও তৎকালিন শান্তি কমিটির সদস্যের ছেলেসহ একজন রাজাকারের নাম ওই তালিকায় অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে। যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক প্রস্তুতকৃত প্রতিবেদনের ১১৫ নং ক্রমিকরে মোঃ আব্দুস সামাদ সানা উপজেলার শ্রীউলা ইউনিয়নের হাজরাখালী গ্রামের মৃত জোহর আলী সানার ছেলে। মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি রাজাকার ছিলেন। ১০২ নং ক্রমিকের আবুল কালাম আজাদ ওরফে কালামুজ্জামান একই ইউনিয়নের বকচরা গ্রামের মৃত আব্দুল জব্বার সরদারের ছেলে। কালামের বাবা জব্বার সরদার তৎকালিন শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন।
এদিকে তালিকার ১১২ নং ক্রমিকের মোঃ মহাসিন সরদার একই ইউনিয়নের মাড়িয়ালা গ্রামের মৃত জীনতুল¬ সরদারের ছেলে। মহাসিন সরদার আদৌ কোন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না বলে জানিয়েছেন তার আপন ভাই মুক্তিযোদ্ধ আব্দুর রউফ সরদার। যাচাই-বাছাই কমিটির একজন সদস্য মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে তার ভাইয়ের নাম তালিকায় অর্ন্তভূক্ত করেছেন।
আব্দুর রউফ আরো জানান, এর প্রতিবাদ করায় কমিটির ওই সদস্যের ছেলে একজন স্কুল শিক্ষক তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়েছেন। ভয়ে তিনি এখন গ্রামের বাড়িতে যেতে পারছেন না। বিষয়টি তিনি জেলা কমান্ডারসহ সংশি¬ষ্টদের অবহিত করেছেন বলে জানান।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা জানান, অঅশাশুনি উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক প্রস্তুতকৃত প্রতিবেদনের ১-৫, ১৪-১৭, ২১-৩৭, ৫৭-৬১, ৬৯-৮৩, ৯৮-১০৮, ১১১-১২৭, ১২৯-১৩৭, ১৪২-১৪৩, ১৫৫-১৬৩, ১৬৬-১৭৩, ১৭৭, ১৭৯, ১৮০ ও ১৮২-১৮৪ নং ক্রমিকের ব্যক্তিরা আদৌ কোন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের যৌতিক কোন প্রমাণপত্র তারা দেখাতে পারেননি। কমিটির কয়েক অসাধু সদস্য মোটা অংকের আর্থিক সুবিধা নিয়ে অন্যদের ভূল বুঝিয়ে কৌশলে তাদেরেকে তালিকাভুক্ত করিয়েছেন। ফলে এই তালিকা নানাভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে পড়েছে। যাচাই বাছাই পক্রিয়া সঠিক হয়নি এমন দাবি করে অনেকে সংবাদ সম্মেলন করছেন। তারা এসব অমুক্তিযোদ্ধাদেরকে তালিকা থেকে বাদ দেয়ার দাবি জানান।
যাচাই-বাছাই কার্যক্রম কমিটির সদস্য কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের প্রতিনিধি আব্দুর রহমান জানান, আলবদর, আলশামস ও জামায়াতের লোকেরা এই তালিকায় ঢুকেছে। লক্ষ লক্ষ টাকা অর্থ বানিজ্য হয়েছে। টাকার বিনিময় স্বাধীনতা বিরোধীরা মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নাম উঠিয়েছে। বিষয়টি আমি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে বার বার বলেছি।
তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়ে কি করে অমুক্তিযোদ্ধাদের নাম তালিকায় লেখাই। সেকারনে আমি এই যাচাই-বাছাই কমিটিতে বসতে পারিনি। এসবরে প্রতিবাদ জানিয়ে আমি ওই তালিকায় কোন স্বাক্ষরও করিনি। তিনি আশাশুনি উপজেলার এই তালিকা বাতিল করে নতুন করে কমিটি গঠনের মাধ্যমে তালিকা প্রস্তুতের দাবি জানান।
আশাশুনির উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুষমা সুলতানা বলেন, এ উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাই শেষে মোট ১৮৪ জন টিকে রয়েছেন। বাদ পড়েছেন ২১৮ জন। অনলাইনে আবেদন পড়েছিল প্রায় পাঁচ’শটি। এর মধ্যে টিকে আছে মাত্র ৪৭ টি আবেদন। যাচাই বাছাইয়ে অনিয়ম বা দুর্নীতির কোনো সুযোগ নেই। তিনি বলেন, পদাধিকারবলে আমি কমিটির সদস্য সচিব মাত্র। কে মুক্তিযোদ্ধা আর কে মুক্তিযোদ্ধা না, তা আমার জানার কথা নয়। উপজেলা কমিটিতে স্থানীয় যারা আছেন তারাই মুক্তিযোদ্ধাদের সনাক্ত করবেন। তাছাড়া স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের সবার সম্মুখে এই যাচাই-বাছাই কার্যক্রম করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, উপজেলা কমিটির অন্যান্য সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে একটি তালিকা তৈরী করে পাঠানো হয়েছে। এই তালিকা ত্র“টিযুক্ত বা ত্র“টিমুক্ত আমি কোনটাই বলছি না। কোন অভিযোগ থাকলে লিখিত আকারে জানালে পরবর্তীতে ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে। তবে তালিকা তৈরীতে আর্থিক লেনদেনের কোন বিষয় তার জানা নেই বলে তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here