সাতক্ষীরা সিটি কলেজে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ

0
508

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরা সিটি কলেজের শিক্ষক প্রভাষক ফজলুল হকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরকে নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সম্প্রতি দেশের একটি শীর্ষ ও প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রভাষক এ কে এম ফজলুল হকের বিরুদ্ধে সরকার ও রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপসহ গুরুতর অভিযোগের কথা বলা হয়েছে। প্রতিবেদনের কপি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়, ফজলুল হক ছাত্রজীবনে ছাত্রশিবিরের খুলনা মহানগরীর সেক্রটারি ছিলেন। বর্তমানে তিনি কলারোয়া উপজেলা জামাতের আমীর এবং সাতক্ষীরা জেলা জামাতের ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২৩ ফেব্রুয়ারি জারি করা এক আদেশে পরবর্তী ১৫ দিনের মধ্যে ফজলুল হকের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নিয়ে মন্ত্রণালয়কে জানানোর নির্দেশ দেয়।
জানা যায়, ফজলুল হক খুলনায় থাকেন। মাঝে মধ্যে তিনি সাতক্ষীরা সিটি কলেজে যাতায়াত করেন। রাষ্ট্রবিরোধী কাজে যুক্ত রয়েছেন মর্মে ফজলুুল হকের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন তার কয়েকজন সহকর্মী ও শিক্ষার্থীরা।
অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. এস এম ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, মন্ত্রণালয়ের চিঠি পেয়েছেন এবং শিগগিরই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এত কিছুর পরও জামাতের এই শীর্ষ নেতা এমপিওভূক্তির জন্য গত বছরের ৯ অক্টোবর আবেদন করেন। আর এ আবেদনের প্রেক্ষিতে ওই কলেজের অধ্যক্ষ আবু সাঈদসহ কলেজের পরিচালনা পরিষদ রেজুলেশন করে তাকে এমপিওভূক্তির জন্য সুপারিশ করেছেন। আর এমপিওভূক্তির আবেদন পত্রে ফজলুল হকের নামে কোন মামলা নেই মর্মে সুপারিশে রয়েছে কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও সাতক্ষীরা-০২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি এমপির স্বাক্ষর।
এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশের পর সদর এমপি’র পক্ষ থেকে সংবাদপত্রে একটি বিজ্ঞপ্তি ছাপিয়ে তার স্বাক্ষর নকল করা হচ্ছে বলে সকলকে সতর্ক হতে বলা হলেও সিটি কলেজের প্রভাষক ও শীর্ষ জামাত নেতা ফজলুর পক্ষে করা সংসদ সদস্য ও কলেজ সভাপতির স্বাক্ষরসমূহ নকল কি না তার কোন ব্যাখ্যা পাওয়া যায়নি। সরকার যখন জঙ্গিবাদ ও মৌলবাদ দমনে বদ্ধপরিকর তখন সাতক্ষীরা সিটি কলেজে জেলা জামাতের শীর্ষ একজন নেতা যে নাশকতার একাধিক মামলার আসামি তাকে এমপিওভূক্ত করার চেষ্টা সিটি কলেজের সাবেক প্রভাষক ২০১৩ সালের সহিংসতায় নিহত মামুনের রক্তের সাথে চরম প্রতারণা বলে মনে করছেন সাতক্ষীরা আ.লীগ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বপক্ষের নেতা-কর্মীরা। এধরনের সুপারিশে হতাশ হয়েছেন স্বাধীনতার স্বপক্ষে বিশ্বাসী আ.লীগসহ মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মানুষেরা। জামাতের বাইতুল মালের বিপুল পরিমাণ অর্থই এ অসম্ভবকে সম্ভব করেছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
উল্লেখ্য ঃ নাশকতার অভিযোগে এ পর্যন্ত ওই শিক্ষকের নামে বিষ্ফোরক দ্রব্য আইনে ৬টি মামলাও রয়েছে। এরমধ্যে ৫টি রয়েছে কলারোয়া থানায় আর পাটকেলঘাটা থানায় রয়েছে একটি। কলারোয়া থানার মামলা (১) নং- ২৯, ২৬ আগস্ট-২০১৬, জি আর নং- ২৪২/১৬, ২৫ আগস্ট, ২০১৬, ধারা- ৩/৬ ১৯০৮। (২) কলারোয়া থানার মামলা নং- ১০- তাং ০৮/৩/১৩ ধারা, ১৪৩/১৪৭/৩২৩/ ৩৭৯/৩৮০/৪২৭/৪৩৬/ ৪৪৮ পি,সি। (৩) কলারোয়া থানার এফ আই আর নং- ৩০, ২৭ জুলাই ২০১৬; জি আর নং- ২০৭/১৬, তারিখ ২৭ জুলাই, ২০১৬ ধারা- ৩/৪ ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইন। (৪) কলারোয়া থানার এফ আই আর নং- ৫, তারিখ ০৬ সেপ্টে, ২০১৫, জি আর নং- ১৯৩/১৫, তারিখ ০৬- সেপ্টে, ২০১৫, ধারা- ৪/৩ ১৯০৮ সালের বিস্ফোরক দ্রব্য আইন,। (৫) কলারোয়া থানার মামলা নং ১২ তাং ১৫/৭/১৩ ধারা, ১৪৩/১৪৮/১৪৯/৩৪১/৩৭৯/ ৪২৭/১০৯।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here