সাত মাসেও শেষ হয়নি রাজগঞ্জের রাস্তা সংস্কারের কাজ, ভোগান্তিতে এলাকাবাসীসহ পথচারীরা

0
62

উত্তম চক্রবর্তী,নিজস্ব প্রতিবেদক যশোর : গেল জুন মাসে দেড়-দুই ফুট গভীর করে খুঁড়ে রাখা হয় যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের ঝাঁপা ইউনিয়নের দুটি রাস্তা। খুঁড়ে রাখা পর্যন্তই শেষ। এরপর আর রাস্তা দুটির কাজ এগুইনি। সেই রাস্তা দুটোতে এখন হাঁটু পানি জমে আছে। সাঁতার কাটছে হাঁস। রাস্তা সংস্কার না হওয়ায় চরম ভোগান্তিতে এলাকাবাসীসহ পথচারীরা। কবে এ দুর্ভোগ শেষ হবে তা এখন তাঁদের জিজ্ঞাসা। গত এপ্রিল মাসে রাজগঞ্জের ঝাঁপা ইউনিয়নের হানুয়ার আমতলা রোডের ৩৬৪ মিটার ও একই গ্রামের আফতাব গাজীর মোড় হতে হানুয়ার মণ্ডলপাড়া হয়ে পুলেরহাট রাজগঞ্জ সড়ক পর্যন্ত ২ হাজার ৪৮০ মিটার কাঁচা রাস্তা পাকাকরণের টেন্ডার হয়। মাগুরার স্বাধীন এন্টারপ্রাইজের অনুকুলে ৩৮ লাখ ৬০ হাজার ৭৪৬ টাকা ও ২ কোটি ৩০ লাখ ৪৯ হাজার টাকায় কাজ দুটোর অনুমোদন দেওয়া হয়। স্বাধীন এন্টারপ্রাইজের পক্ষে কাজের দায়িত্ব নেন মনিরামপুরের আবু সাইদ নামের এক ঠিকাদার। তাঁর হয়ে কাজটি করছেন মিজানুর রহমান রেন্টুসহ কয়েকজন। গত জুন মাসের দিকে ঠিকাদার রাস্তা খুঁড়ে রাখেন। এরপর আর কাজ করেননি। গত ঈদ-উল আজহার আগে ওই রাস্তায় হাঁটু কাদা জমে। তখন দৈনিক পত্রিকায় জনগণের ভোগান্তি নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। ওই সময় ঠিকাদার দ্রুত কাজ করার কথা বললেও কাজ না করে রাস্তা ফেলে রাখেন। গত রোববার (১২ ডিসেম্বর) রাস্তার সংস্কার কাজের মেয়াদ শেষ হয়েছে। এদিকে গত সপ্তাহের ভারি বর্ষায় রাস্তা দুটিতে হাঁটু পানি জমেছে। জনগণের চলাচলে সৃষ্টি হয়েছে চরম ভোগান্তি। হানুয়ার পূর্বপাড়ার বাসিন্দা আমিনুর রহমান বলেন, আমাদের মাঠের ফসল ঘরে তুলতে যে কি ভোগান্তি পেতে হচ্ছে তা বলে শেষ করা যাবে না। রাস্তায় খোঁড়া গর্তে পানি কাঁদা জমে আছে। মাঠের ফসল গাড়িতে করে তোলা যাচ্ছে না। বাড়তি খরচ দিয়ে মাথায় করে আনতে হচ্ছে। রাস্তার পাড় দিয়ে হেঁটে পার হওয়ার সুযোগও নেই। ৭-৮ মাস ধরে আমরা এ কষ্ট পাচ্ছি। একই পাড়ার মুদি দোকানি মাসুদ রানা বলেন, রাস্তায় গায় আমার দোকান। আগে ভ্যানে করে যে মালামাল আনতে ১০০ টাকা দিতে হতো। এখন ২৫০ টাকা দিতি হচ্ছে। তাও কাঁদায় কোন ভ্যানওয়ালা নামতে চাননা। আমাগের এ ভোগান্তি শেষ হবে কবে জানি না। ঠিকাদারের পক্ষে রাস্তার কাজ দেখভালের দায়িত্বে থাকা মিজানুর রহমান রেন্টু বলেন, কয়েক দিনের মধ্যে বালি ফেলে রাস্তা চলাচলের উপযোগী করে দেব। মণিরামপুর উপজেলা প্রকৌশলী বিদ্যুৎ কুমার দাস বলেন, আমি নতুন এসেছি। হানুয়ার গ্রামের রাস্তা দুটোর ভোগান্তির কথা জানতে পেরে ঠিকাদারকে দ্রুত কাজ করাতে বলেছি। ইতিমধ্যে কাজের মেয়াদ শেষ হয়েছে। ঠিকাদার সময় বাড়ানোর জন্য বলেছেন। সেই সুযোগ আমি দিচ্ছি না। তিনি কাজ করতে ব্যর্থ হলে অন্য ঠিকাদার দিয়ে কাজ করানো হবে।