সাম্প্রদায়িকতার দানবকে রুখিতে হইবে

0
268

রংপুরে সংখ্যালঘুদের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ, হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটি বলিয়াছে, ‘এই ঘটনা পরিকল্পিত। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আগে হইতে আরো তত্পর হইলে ঘটনাটি এড়ানো যাইত।’ এখানে উল্লেখ করা অপ্রাসঙ্গিক হইবে না যে, রংপুরে গত ১০ নভেম্বরের তাণ্ডবের পর প্রকাশিত এক সম্পাদকীয়তে আমরাও সেই অভিমতই ব্যক্ত করিয়াছিলাম। কক্সবাজারের রামু ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরের অভিজ্ঞতাও ভিন্ন নহে। পাশাপাশি ইহাও লক্ষণীয় যে, প্রকৃত অপরাধীরা প্রায়শ ধরাছোঁয়ার বাহিরেই থাকিয়া যায়। সর্বশেষ রংপুরের ঘটনায় তিন হাজার ব্যক্তির নামে মামলা হইয়াছে। কিন্তু হামলার ঘটনার ইন্ধনদাতা হিসাবে পুলিশ যে পাঁচজনকে চিহ্নিত করিয়াছিল, তাহাদের চারজনই রহিয়া গিয়াছে ধরাছোঁয়ার বাহিরে। ফলে দুর্বৃত্তদের দুঃসাহস ক্রমাগত বাড়িয়াই চলিয়াছে। ইহার সর্বশেষ উদাহরণ হইল বগুড়ার আদমদীঘিতে মন্দিরের মূর্তি ভাঙচুর। ঘটনাটি ঘটিয়াছে গত ৬ ডিসেম্বর। মন্দির কমিটির সভাপতি উত্পল চন্দ্র দাস জানাইয়াছেন যে, দুর্বৃত্তরা রাতের অন্ধকারে এ ঘটনা ঘটাইয়াছে। কয়েক বত্সর আগেও এই মন্দিরে একবার মূর্তি ভাঙচুরের ঘটনা ঘটিয়াছে।

সংঘবদ্ধ একটি দুর্বৃত্তচক্র যে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এই ধরনের অপকর্ম করিয়া চলিয়াছে তাহাতে সন্দেহ নাই। তবে স্বস্তির বিষয় হইল, ইহাতে দেশের মানুষের সায় নাই। ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, যুগ যুগ ধরিয়া এই দেশে নানা ধর্ম ও মতের মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে সহাবস্থান করিয়া আসিতেছে। সম্প্রতি বাংলাদেশ সফরকালে পোপ ফ্রান্সিসও অকপটে স্বীকার করিয়াছেন যে, বাংলাদেশ বিশ্বে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অন্যতম শ্রেষ্ঠ উদাহরণ। ইহা কথার কথা মাত্র নহে। বিশ্বজুড়িয়া যখন ধর্ম, বর্ণ ও গোষ্ঠীগত ভিন্নতার কারণে রক্তগঙ্গা বহিয়া যাইতেছে, বাংলাদেশ তখন ঘরে-বাহিরে অব্যাহত প্ররোচনার মুখেও যথার্থ অর্থেই সম্প্রীতি ও সহিষ্ণুতার অনন্য দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করিয়া চলিয়াছে। উদ্বেগের বিষয় হইল, সংখ্যায় অল্প হইলেও কুচক্রীরা বসিয়া নাই। সম্প্রীতির এই বাতাবরণকে ধ্বংস করিবার জন্য তাহারা নানাভাবে ষড়যন্ত্র চালাইয়া আসিতেছে দীর্ঘদিন যাবত্। নানা অজুহাতে দেশের বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন সময়ে ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর উপর যেই সকল হামলার ঘটনা ঘটিতেছে—তাহা সেই ষড়যন্ত্রেরই অংশ বলিয়া আমরা মনে করি।

সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়াইয়া সমাজকে অস্থিতিশীল করিয়া একটি মহল যে বিশেষ ফায়দা লুটিতে চায় তাহা কোনো নূতন কথা নহে। আর ইহা যে কেবল ভিটেমাটি জমিজমার দখলের মধ্যে সীমিত—এমন ভাবিবার কোনো কারণ নাই। সাম্প্রদায়িকতার এই দানব কীভাবে গোটা ভারতবর্ষকে ক্ষতবিক্ষত করিয়াছে, খালি করিয়াছে কত লক্ষ মায়ের কোল তাহাও মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দানকারী এই সরকারের নীতিনির্ধারক মহলের অজানা নহে। তাহার পরও বার বার ধর্মীয় ও জাতিগত সংখ্যালঘুদের উপর হামলা চালাইয়া দুর্বৃত্তরা কীভাবে পার পাইয়া যাইতেছে, কীভাবেই-বা উপর্যুপরি এই ধরনের দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা ঘটিয়া চলিয়াছে তাহা আমরা বুঝিতে অক্ষম। হামলাকারীদের রাজনৈতিক ও সামাজিক পরিচয় যাহাই হউক না কেন, তাহাদের ব্যাপারে ‘জিরো-টলারেন্স’ দেখাইতে হইবে। শান্তি, সম্প্রীতি এবং সর্বোপরি উন্নয়নের বর্তমান গতিকে অব্যাহত রাখার স্বার্থে যেকোনো মূল্যে রোধ করিতে হইবে এই ধরনের হামলার পুনরাবৃত্তি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here