সারা দেশের ন্যায় যশোরেও মেতে উঠেছে উৎসবে

0
309

৭মার্চের ভাষণকে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতি দেওয়ায়
বিশেষ প্রতিনিধি : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭মার্চের ভাষণকে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতি দেওয়ায় সারা দেশের ন্যায় যশোরেও হাজার হাজার মানুষ উৎসবে মেতে উঠেছে। শনিবার সকালে যশোর শহরের গরীবশাহ সড়কস্থ বকুলতলায় বঙ্গবন্ধুর ম্যুরালে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে যশোরের প্রশাসনিক, সামাজিক, রাজনীতিক, পেশাজীবিসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। পরে যশোরের জেলা প্রশাসক আশরাফ উদ্দিনের নেতৃত্বে বিশাল আনন্দ র‌্যালি গোটা শহর প্রদক্ষিণ করে টাউন হল ময়দানে এসে সমাবেত হয়। পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনসহ র‌্যালিতে যশোরের বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের কর্মীরা অংশ নেন। অপরদিকে,বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষন জাতি সংঘের ইউনেস্কোর মেমোরি অফ দ্যা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিষ্টারে বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিয্যের স্বীকৃতি লাভ করায় গতকাল শনিবার যশোরের

কেশবপুরে বিশাল আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক শোভাযাত্রা উদ্ধোধন করেন। এর আগে জন প্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক দলীয় নেতৃবৃন্দ নিয়ে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে ফুল দিয়ে জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এ উপলক্ষে আয়োজিত এক সভায় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ভাষন শুধু বাংলাদেশ নয় সারা বিশ্বে মানুষের মুক্তির পথ দেখিয়েছে। তিনি বলেন, যতদিন পৃথিবি থাকবে ততদিন তার ভাষন অমর থাকবে। বঙ্গবন্ধর ভাষণ তরুণ প্রজন্মের কাছে বেশি বেশি তুলে ধরার আহবান জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক। সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি তপন কুমার ঘোষ, পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা নাসিমা সাদেক, হাসান সাদেক, এবাদাত সিদ্দিকী বিপুল ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ,যুবলীগ এবং ছাত্রলীগের নেতুবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্জ অধ্যাপক ড.আনোয়ার হোসেন বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ ছিল তাঁর আত্মার নিংড়ানো ভাষা। যদি তিনি ভাষণটি লিখিতভাবে দিতেন, তাহলে ভাষণটি এতো হৃদয় স্পর্শী হতো কি না এ বিষয়ে প্রশ্ন থেকে যায়। বঙ্গবন্ধু এ দেশের মানুষকে আত্মার সঙ্গে ধারণ করেছেন বলেই এমন ভাষণ দিতে পেরেিেছলেন। গতকাল শনিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্যালারিতে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক ‘বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য দলিল’ হিসেবে স্বীকৃতি এবং ‘মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড রেজিস্ট্রার’ এ অন্তর্ভুক্ত হওয়া উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভঅয় সভাপতিত্ব করেন, উপচার্জ অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেন । এর আগে যশোর শহর ও বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে আনন্দ শোভাযাত্রায় অংশ নেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং শিক্ষার্থীরা। শোভাযাত্রার কর্মসূচিতে সকলে ব্যান্ড বাজিয়ে, প্ল্যাকার্ড এবং বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ বাজিয়ে স্বতস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে উপচার্জ আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চে ১৮ মিনিট বক্তৃতা দেওয়ার জন্য ২৩ বছর অপেক্ষা করেছেন, ১৪ বছর জেল খেটেছেন। এতো ত্যাগ এবং সংগ্রামের অভিজ্ঞতার কারণেই তিনি বাঙালিকে মুক্তির বার্তা দিতে পেরেছিলেন। বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চের ভাষণে ‘মুক্তি’, ‘স্বাধীনতা’ এবং ‘মুখ দেখাদেখি হবে না’ এই তিনটি শব্দ উচ্চারণ করেই মূলত তিনি স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে দেন।
বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণকে ‘বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ প্রামাণ্য দলিল’ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ায় অধ্যাপক ড. মো: আনোয়ার হোসেন যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ইউনেস্কোকে ধন্যবাদ জানান। সভায় সম্মানিত আলোচক হিসেবে বক্তব্য দেন সেক্টর কমান্ডার ফোরাম, যশোরের সাবেক সভাপতি এ কে এম খয়রাত হোসেন। তিনি বলেন, ৭ মার্চের কর্মসূচিতে কোনো সভাপতি ছিলেন না। কোনো উপস্থাপক ছিলেন না। রাজনীতির কবি এলেন, বক্তব্য দিলেন। বঙ্গবন্ধু যদি সরাসরি স্বাধীনতার ঘোষণা দিতেন, তাহলে তিনি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা হতেন। তখন জনগণের অনেক কষ্ট হতো। বঙ্গবন্ধু কখনোই জনগণকে জিম্মি করে কিছু করতে চাননি। দীর্ঘ বক্তৃতায় এ কে এম খয়রাত হোসেন বঙ্গবন্ধু, আওয়ামী লীগ, মুক্তিযুদ্ধকে জীবন্তভাবে দর্শকদের সামনে তুলে ধরেন।


আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের যশোর জেলার ডেপুটি কমান্ডার প্রকৌশলী মো: আবুল হোসেন, আফজাল হোসেন দুদুল, যবিপ্রবির স্বাস্থ্য বিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মো: নাসিম রেজা, যবিপ্রবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মুনিবুর রহমান, অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোহাম্মদ এমদাদুল হক, কর্মচারী সমিতির নেতা আরশাদ আলী, শেখ হাসিনা ছাত্রী হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হুমায়রা আজমিরা এরিন, ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল আলীম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ছাত্র নির্দেশনা ও পরামর্শ দপ্তরের পরিচালক ড. মো: মীর মোশাররফ হোসেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ইংরেজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ফারজানা নাসরীন এবং এগ্রো প্রোডাক্ট প্রসেসিং অ্যান্ড টেকনোলজির প্রভাষক এস এম সামিউল আলম। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ বিশ্ব ঐতিহ্য হিসেবে জাতিসংঘের শিক্ষা বিজ্ঞান ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়ায় দেশব্যাপি আনন্দ শোভাযাত্রার অংশ হিসেবে যশোর জেলা প্রশাসন আয়োজিত শোভাযাত্রায় বিসিএমসি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি মহাবিদ্যালয় অংশগ্রহণ করেছে। শনিবার সকালে বিসিএমসি ১ম ক্যাম্পাস থেকে শোভাযাত্রাটি শুরু হয়। শোভাযাত্রাটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে যেয়ে জেলা প্রশাসনের মূল শোভাযাত্রায় যুক্ত হয়। পরে শোভাযাত্রাটি শহর প্রদক্ষিণ করে টাউনহল মাঠে শেষ হয়। বিসিএমসি’র শোভাযাত্রার অগ্রভাবে গাড়িতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ প্রচার শহরবাসির দৃষ্টিকাড়ে। ক্যাডেট সদস্যদের সুসজ্জিত অংশগ্রহণ ও ব্যান্ড পার্টির বাদ্য শোভাযাত্রায় ভিন্নমাত্রা যোগ করে।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here