সিদ্দিকুরের চোখের আলো যেন বিফলে না যায়

0
223

ভারতের চেন্নাইয়ে চিকিত্সা শেষে দেশে ফিরিয়াছেন সরকারি তিতুমীর কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্র সিদ্দিকুর রহমান। কিন্তু তাহার দুইচোখের আলো ফিরিয়া আসে নাই। চিকিত্সকদের ভাষায় শুধু ‘লিটল হোপ’ বা সামান্য একটু আশা এখনো বাঁচিয়া আছে। তবে তাহা নিশ্চিত হইবার জন্য অপেক্ষা করিতে হইবে আরও ছয়টি সপ্তাহ। সবচাইতে বড় আশার দিকটি হইল, এত বড় ব্যক্তিগত বিপর্যয় সত্ত্বেও সিদ্দিকুর মনোবল হারান নাই। যে-উদ্দেশ্য হাসিল করিতে গিয়া তিনি এই বিপর্যয়ের শিকার হইয়াছেন বিস্মৃত হন নাই তাহার কথাও। বিমানবন্দরে পা রাখিয়াই তিনি আবারও তাহা স্মরণ করাইয়া দিয়া বলিয়াছেন যে সাতটি কলেজে লেখাপড়ার স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়া আসুক। এখানে বলা প্রয়োজন যে তিতুমীর কলেজসহ সাতটি কলেজকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত করিবার পর অপ্রত্যাশিত সেশনজটে পড়িয়া রুটিনসহ পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবিতে গত ২০ জুলাই তাহারা শাহবাগে জড়ো হইয়াছিলেন। সিদ্দিকুরও ছিলেন সেই আন্দোলনে। সেখানেই একপর্যায়ে ‘পুলিশের ছোড়া কাঁদানে গ্যাসের শেলের’ আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় সিদ্দিকুরের দুই চোখ। পুলিশ আরেকটু সংযত ও দায়িত্বশীল হইলে অপূরণীয় এই ক্ষতি যে এড়ানো যাইত, পুলিশের গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনেই তাহা উঠিয়া আসিয়াছে। তদন্তে পুলিশের সাত সদস্যের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গিয়াছে এবং তাহাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হইয়াছে।

পরিতাপের বিষয় হইল, প্রায়শ প্রকাশ্যে নানা অনিয়ম, বাড়াবাড়ি ও আইনভঙ্গের ঘটনা ঘটিলেও দায়ী ব্যক্তিরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ধরাছোঁয়ার বাহিরেই থাকিয়া যায়। অথচ সিদ্দিকুর পথে নামিয়াছিলেন খুবই ন্যায়সঙ্গত একটি দাবিকে সামনে রাখিয়া—তাহাও আবার অনন্যোপায় হইয়া। তাহাকেই কিনা পুলিশের বাড়াবাড়ির শিকার হইতে হইয়াছে। ইহা দুঃখজনক শুধু নহে, অনভিপ্রেতও বটে। তথাপি সিদ্দিকুর রাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানাইয়াছেন। বলিয়াছেন যে রাষ্ট্র তাহার পাশে দাঁড়াইয়াছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী নিজে খোঁজ নিয়াছেন। সরকারের সময়োচিত এই ভূমিকা অবশ্যই প্রশংসনীয়। পাশাপাশি ইহাও প্রত্যাশিত যে দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গৃহীত হইবে। সিদ্দিকুর তাত্পর্যপূর্ণ দুইটি আকুতি প্রকাশ করিয়াছেন। দুইটিই প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করিয়া। প্রথমত, তিনি লেখাপড়া অব্যাহত রাখিতে চান এবং দৃষ্টিহীন মানুষ হিসাবে সমাজে যাহাতে তাহাকে ‘অবহেলার পাত্র’ হইতে না হয়—সেই ব্যাপারে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সদয় মনোযোগ আকর্ষণ করেন। সর্বাপেক্ষা গুরুত্বপূর্ণ আকুতিটি হইল, তাহার চোখের আলোর বিনিময়ে যেন তাহার সহপাঠীদের জীবনে শিক্ষার আলো ফিরিয়া আসে। অবারিত হয় তাহাদের শিক্ষার পথ। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে সিদ্দিকুরের আকুলতা বিফলে যাইবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here