সিলেটে বন্যায় পানিবন্দি দুই লাখ মানুষ

0
375

সিলেট ব্যুরো: টানা বৃষ্টি আর উজানের পাহাড়ি ঢলে সিলেটের ছয় উপজেলায় বন্যা দেখা দিয়েছে। প্রতিদিন বাড়ছে পানি। এ অবস্থায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছে অন্তত দুই লাখ মানুষ।

সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম চৌধুরী জানান, ভারতের মেঘালয় ও আসাম রাজ্যে টানা বৃষ্টির কারণে বরাক নদীতে পানি বেড়ে যাওয়ায় বরাকের শাখা নদী সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

নদীর পানি তীর উপচে প্রবেশ করেছে লোকালয়ে। ফলে সুরমা ও কুশিয়ারা অববাহিকায় নদীর তীরের গ্রামগুলো তলিয়ে গেছে বন্যার পানিতে।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ফেঞ্চুগঞ্জ, গোলাপগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর ও গোয়াইনঘাট উপজেলার অর্ধশতাধিক গ্রাম। ডুবেছে হাজার-হাজার ঘরবাড়ি, দোকান পাট। তলিয়ে গেছে ফসলি জমি। বাড়ি-ঘর ডুবে যাওয়ায় অনেকে আশ্রয় নিয়েছেন আশ্রয়কেন্দ্রে।

কুশিয়ারা নদীর তীরে অবিস্থিত ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা সদরে পানি উঠায় শতাধিক দোকানপাঠে পানি উঠেছে। সড়কে নৌকা দিয়ে চলাচল করছে মানুষ।

ফেঞ্চুগঞ্জ বাজারের ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম জানান, কুশিয়ারা নদীর পানি উপচে দোকানে প্রবেশ করেছে। পানি কমছে না বরং কিছু কিছু বাড়ছে। বন্যার পানি ঢুকে নষ্ট হয়েছে লাখ-লাখ টাকার মালামাল।

ওসমানী নগর উপজেলার সাদীপুরের বাসিন্দা ফরহাদ জানান, বাড়িতে পানি উঠেছে। ঘরের মধ্যে হাঁটু পানি। রান্নাবান্না করা সম্ভব হচ্ছে না। পরিবার নিয়ে চরম দুর্ভোগে আছি।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলাম চৌধুরী জানান, বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় কাজ করছে প্রশাসন। ফেঞ্চুগঞ্জে ও ওসামানী নগরে কয়েকটি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।

দুর্গত এলাকায় ১২৮ মেট্রিকটন চাল ও দুই লাখ ৭৮ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা দেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি দেখে আরও ত্রাণ ও সাহায্য দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

ফেঞ্চুগঞ্জের চন্ডিপ্রসাদ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আশ্রয় নেয়া করিমুন্নেছা জানান, পানি ঢুকে বাড়ি ঘর ধসে পড়েছে। কোনো আশ্রয় না থাকায় বাচ্চাদের নিয়ে স্কুলে আশ্রয় নিয়েছেন তিনি। তাদের ঘরে খাবার নেই। কী করবেন, কোথায় যাবেন তা বুঝতে পারছেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here