সীমান্ত হত্যাকাণ্ড চলতেই থাকবে!

0
278

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত এলাকায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ড অব্যাহত থাকা আমাদের ক্ষুব্ধ না করে পারে না। আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি, প্রায় নিয়মিত বিরতিতে দেশের বিভিন্ন সীমান্তে বাংলাদেশি নাগরিক হতাহতের ঘটনা ঘটেই চলছে। সর্বশেষ গত সোমবার রাতে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবপুর সীমান্তে এক বাংলাদেশি নাগরিক নিহত ও আরও কয়েকজন আহত হন। শুক্রবার ভোরে কুড়িগ্রামের রৌমারী সীমান্তে নিহত হন আরেকজন বাংলাদেশি। এক সপ্তাহের মধ্যে দুটি সীমান্ত হত্যাকাণ্ড এর ভয়াবহ পরম্পরাই তুলে ধরে। অস্বীকার করা যাবে না যে, সীমান্ত হত্যাকাণ্ডের একটি বড় কারণ চোরাচালান। কিন্তু সে জন্য হত্যাকাণ্ড মেনে নেওয়া যায় না। বস্তুত বাংলাদেশ-ভারত সরকার যদিও পরস্পরকে ‘বন্ধুরাষ্ট্র’ বিবেচনা করে, সেই আবহ দুই দেশের বিস্তীর্ণ সীমান্তরেখা বরাবর হোঁচট খেতে দেখা গেছে বারবার। রৌমারী ও শিবপুর এর সর্বশেষ নজির। কারণ যাই হোক না কেন, একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশের নাগরিকদের বিরুদ্ধে প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর এমন হত্যাকাণ্ড চালাবে কেন? অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম নিশ্চয়ই সমর্থনযোগ্য নয়। কিন্তু তার জন্য প্রচলিত আইন ও দণ্ড রয়েছে। আমরা চাই, ভারত সরকার তাদের ‘ট্রিগার হ্যাপি’ বাহিনীকে সামলানোর ব্যবস্থা নেবে। স্বীকার করতেই হবে- বাণিজ্য ঘাটতি কমানো, সাংস্কৃতিক বিনিময়, সীমান্ত হাট স্থাপনসহ নানা ইতিবাচক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে; ছিটমহল বিনিময় ও অপদখলীয় ভূমি নিষ্পত্তির মতো আক্ষরিক অর্থেই ঐতিহাসিক পদক্ষেপ গৃহীত হয়েছে; কিন্তু সীমান্তে বাংলাদেশি নাগরিক হত্যাকাণ্ডে এসব ঢাকা পড়ে যায়। নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ ও উদ্যোগ ছিল না- তা বলা যাবে না। আমাদের মনে আছে, ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত শীর্ষ বৈঠকে বিএসএফপ্রধান সীমান্ত হত্যার ঘটনা শূন্যে নামিয়ে আনার নিশ্চয়তা দিয়েছিলেন। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাগুলোর জন্য দুঃখও প্রকাশ করেছিলেন। বাস্তবে হত্যাকাণ্ড বন্ধ হয়নি। আমরা মনে করি, ভারতীয় কর্তৃপক্ষ আন্তরিক হলে সীমান্তে হত্যাকাণ্ড বন্ধ কঠিন নয়। তাদের মনে রাখা উচিত- সীমান্ত রক্তাক্ত রেখে আর যাই হোক, সুসম্পর্ক টেকসই হবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here