সীমা লঙ্ঘন করা উচিত নহে

0
376

সিরিয়ায় ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর এক সপ্তাহের মধ্যে বিশ্বের শক্তিধর একটি দেশ আফগানিস্তানের পশ্চিমাঞ্চল নাঙ্গারহার প্রদেশে সবচাইতে শক্তিশালী ও ভয়ঙ্কর বোমা নিক্ষেপ করিয়াছে। বোমাটির নাম জিবিইউ-৪৩। এই বোমাটিকে বলা হয় ‘মাদার অব অল বোম্বস’ তথা সকল বোমার জননী। নাম হইতেই ইহার ভয়াবহতা সম্যক উপলব্ধি করা যায়। পারমাণবিক বোমা বাদ দিলে প্রায় ১০ হাজার কেজি ওজনের এই বোমাটিই সবচাইতে শক্তিশালী বোমা। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী এই বোমায় নিহত হইয়াছে অন্তত ৯৪ জন। এদিকে কোরীয় অঞ্চলে একই পরাশক্তির যুদ্ধজাহাজ মোতায়েনের জের ধরিয়া উত্তেজনা এখন চরম আকার ধারণ করিয়াছে। ইহার জবাবে বৃহত্ সামরিক শক্তি প্রদর্শনসহ পাল্টা আঘাত হিসাবে পারমাণবিক হামলা চালাইবারও হুমকি দেওয়া হইয়াছে। এই অবস্থায় চলমান সংকট সমাধানকল্পে বিবদমান দুই দেশকে যুদ্ধাবস্থা হইতে সরিয়া আসিয়া শান্তিপূর্ণ সমাধানের আহ্বান জানাইয়াছে আরেকটি শক্তিশালী দেশ। তাহার পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলিয়াছেন যে, যুদ্ধ শুরু হইলে কোনো পক্ষই শেষ পর্যন্ত জয়ী হইতে পারিবে না।

প্রথমোক্ত শক্তিধর দেশটির নূতন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে যে বক্তব্য দিয়াছিলেন, কার্যত তিনি কাজ করিতেছেন তাহার বিপরীত। আন্তর্জাতিক রাজনীতির ক্ষেত্রে এ এক নূতন কৌশলই বটে! কেহ কেহ আবার বলিবার চেষ্টা করিতেছেন যে, দেশটির অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে সমস্যা চলিতেছে। তাই ইহা হইতে দেশবাসীর মনোযোগ ভিন্নখাতে প্রবাহিত করিতে তৈরি করা হইতেছে আন্তর্জাতিক সমস্যা। দেশটির এইরূপ সমস্যা আদৌ আছে কিনা তাহা সম্পূর্ণরূপে জানা না গেলেও তাহাদের নিয়ন্ত্রিত মিডিয়া হইতে যতটুকু তথ্য জানিতে পারা যায়, তাহাতে বোঝা যায় তিনি যারপরনাই হতাশ। তিনি বুঝিতে পারিতেছেন দুনিয়ায় মোড়লিপনার দিন ক্রমেই শেষ হইয়া আসিতেছে। ঘরে বসিয়া নিজেকে সবচাইতে বড় ও প্রতাপশালী মনে করা খুবই সহজ। কিন্তু তাহারা কি এখন ঘরেও শান্তিতে থাকিতে পারিতেছেন? নিয়ন্ত্রণে আনিতে পারিয়াছেন কি এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলকে? প্রায় দেড় দশক ধরিয়া চলিতেছে আফগানিস্তান যুদ্ধ। কিন্তু যাহারা সাত সমুদ্র তের নদী পার হইয়া এই যুদ্ধ করিতে আসিয়াছেন, তাহারা কি শেষপর্যন্ত জয়ের মুখ দেখিতে পাইয়াছেন? অবশ্য জয়লাভ করিতে না পারিলেও তাহাদের আত্মসন্তুুষ্টি এই যে, তাহারা যেখানে এক লক্ষ মারিয়াছেন, তাহার বিপরীতে তাহাদের সৈন্য মারা পড়িয়াছে মাত্র কয়েক শত। তাহাদের ক্ষমতা নিঃসন্দেহে কয়েক গুণ বেশি। তাহার পরও অন্যেরা ঠিকই হুমকি দিতেছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কবে শেষ হইয়াছে। কিন্তু কোরীয় অঞ্চলে সেই শক্তিশালী দেশের সেনাবাহিনী এখনও আছে বহাল তবিয়তে। তাই কেহ কেহ ইহাকে দেখিতেছেন অস্তিত্বের লড়াই হিসাবে।

বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতি সত্যিই অসহনীয়। কোনো বিবেকবান লোকের নিকট এইসব হামলা বা পাল্টা হামলার হুমকি সমর্থনযোগ্য নহে। ভিয়েতনাম, কোরিয়া, আফগানিস্তান ও সামপ্রতিক ইউক্রেন যুদ্ধে মার খাইবার পরও আলোচ্য বৃহত্ শক্তিটির শিক্ষা হইতেছে না। বিশ্বপরিস্থিতি পরিবর্তন হইলে বোঝা যাইবে তাহারা আসলে কী কী অপরাধ করিয়াছেন। সেইসব অপরাধের বিচারে নীরব প্রস্তুতিও থামিয়া নাই। প্রকৃতপক্ষে কোনো কিছুতেই বাড়াবাড়ি করা ভালো নহে। সবল-দুর্বল সকল পক্ষেরই সহনশীল হওয়া বাঞ্ছনীয়। দুনিয়ার সকল ধর্মমতে, বাড়াবাড়ি প্রদর্শন বা সীমালঙ্ঘন নিষিদ্ধ। কিন্তু কে শোনে আজ ধর্মের বাণী?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here