সুন্দরবনের আর্থিক অবদান

0
462

আলম শাইন : দেশের দক্ষিণাঞ্চলের সমুদ্রমুখী সীমানার নিকটবর্তী গঙ্গা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর মোহনায় অবস্থিত বিশ্বের সর্ববৃহত্ ‘ম্যানগ্রোভ’ অরণ্য সুন্দরবন। নিঃসন্দেহে বলা যায়, এটি প্রকৃতির অপূর্ব সৃষ্টি। দুই বাংলাব্যাপী এ ম্যানগ্রোভ অরণ্যের বিস্তৃতি। বাংলাদেশ অংশের আয়তন ৬,০১৭ বর্গ কিলোমিটার। মোট ১০ হাজার বর্গ কিলোমিটার আয়তনের অরণ্যটি ইতোমধ্যে বিশ্বের অন্যতম ‘ওয়ার্ল্ড হ্যারিটেজ’ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। প্রতি বছর হাজার হাজার দেশি-বিদেশি পর্যটক ছুটে আসেন সুন্দরবন এলাকায়। শুধু পর্যটন খাতেই নয়—মত্স্য, মধু, গোলপাতা ও জ্বালানি কাঠ থেকে শুরু করে দৈনন্দিন ব্যবহূত বহুবিধ জিনিসের মাধ্যমে সরকার প্রচুর রাজস্ব পেয়ে থাকে সুন্দরবন থেকে। সে দিকটি বিবেচনা করে সরকার ইতোমধ্যে উদ্যোগ নিয়েছে সুন্দরবনকে আগামী দশ বছরের জন্য সংরক্ষণ করার। সরকারের এই উদ্যোগটি নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়।

সুন্দরবন দেশের জাতীয় সম্পদই শুধু নয়, এটি দেশের জাতীয় বনের মর্যাদাও পেয়েছে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্যও দুর্লভ। সুন্দরবনে প্রায় ৪২৫ প্রজাতির প্রাণী, ৩০০ প্রজাতির উদ্ভিদ। প্রাণিদের মধ্যে ৩০০ প্রজাতির পাখি, ৩২ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী, ৩৫ প্রজাতির সরীসৃপ এবং ৮ প্রজাতির উভয়চর প্রাণী রয়েছে। বিপন্ন প্রজাতির ইরাবতী ডলফিনেরও বাস সুন্দরবনের জলজ সীমানায়। অর্থাত্ সব মিলিয়ে সুন্দরবনের আকর্ষণ যেমন ব্যাপক, তেমনি রয়েছে বিরাট অংকের প্রাপ্তিও। বছরে প্রায় ৫৮৫৬ কোটি টাকা। সম্প্রতি চট্টগ্রাম বিশ্বদ্যািলয়ের বন ও পরিবেশ বিজ্ঞান ইনষ্টিটিউটের (আইএফই এসসিইউ) এক সমীক্ষায় জানা গেছে এসব তথ্য। পর্যটন থেকে বছরে আয় হয় ৪১৪ কোটি টাকা। বনজীবীদের আয় ১১৬১ কোটি টাকা। অপরদিকে এ বন প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা করে ৩৮৮১ কোটি টাকার সম্পদ। প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে প্রায় ৩৫ লাখ মানুষ সুন্দরবনের ওপর নির্ভরশীল।

বন বিভাগের এক গবেষণায় জানা যায়, সুন্দরবন বছরে প্রায় ১৬ কোটি মেট্রিক টন কার্বন ধরে রাখতে সক্ষম। যার আন্তর্জাতিক বাজার মূল্য প্রায় ৫-৬ বিলিয়ন ডলার। সব মিলিয়ে বলতে পারি সুন্দরবন আমাদের জন্য প্রকৃতির বিশেষ অবদান। যার সঠিক ব্যবহারে আমরা আরো সমৃদ্ধ হতে পারি। সেটি করতে গেলে আমাদেরকে প্রথমে বন রক্ষায় এগিয়ে আসতে হবে। পেশাজীবীদেরকে নিয়ন্ত্রণে আনতে হবে। বিশেষ করে অবাধে বৃক্ষ নিধন, গোলপাতা আহরণ, মত্স্য আহরণ এসবের প্রতি নজরদারি বাড়াতে হবে। চোরাকারবারিদের প্রতিহত করতে হবে। বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে বাঘ রক্ষার ওপর।

আমরা জানতে পেরেছি, এ পর্যন্ত বাঘ যত মানুষকে আক্রমণ বা হত্যা করেছে তাদের বেশিরভাগই বাওয়ালী, মৌয়াল, জেলে, বিভিন্ন ধরনের শিকারি কিংবা চোরাকারবারি। খুব কমই আক্রান্ত হয়েছেন পর্যটক। কারণ পর্যটকদের প্রতি সতর্ক নোটিস দিয়ে থাকেন সুন্দরবন কর্তৃপক্ষ আগে থেকেই। অপরদিকে পেশাজীবী বা চোরাকারবারিরা চলে বেপরোয়াভাবে, ফলে রয়েল বেঙ্গল টাইগারের মুখোমুখি হতে হয় ওদের যেকোনো সময়ে। যে মানুষ একবার রয়েল বেঙ্গলের মুখোমুখি হয়েছেন সে মানুষ বেঁচেবর্তে এসেছেন খুব কমই। স্বভাবে সুন্দরবনের বাঘ শুধু হিংস্রই নয়, বলা যায় উগ্র হিংস্র। ওদের এ হিংস্রতাই শাপে বর হয়ে দাঁড়িয়েছে আমাদের জন্য। বিশ্বের সর্ববৃহত্ ম্যানগ্রোভ অরণ্যটা আজ অবধি টিকে রয়েছে শুধু রয়েল বেঙ্গলের হিংস্রতার কারণে। তাই সাধুবাদ জানাতে হয় এ অতন্দ্র প্রহরীকে। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সঙ্গে জানাতে হচ্ছে, যে অতন্দ্র প্রহরী নিজ দায়িত্বে সুন্দরবন রক্ষা করছে সে নিজকে এবং তার শাবককে রক্ষা করতে পারছে না চোরাকারবারীদের কবল থেকে। চোরাকারবারীরা বিভিন্ন কৌশলে পরাস্ত করে প্রাণ কেড়ে নিয়ে ওদের চামড়া ছিলে হাড়গোড় সংগ্রহ করে পাচারের উদ্দেশ্যে লোকালয়ে নিয়ে আসে। স্বস্তির বিষয় হলো, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে অত্যন্ত কঠোর। আমাদের আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর তত্পরতাও প্রশংসনীয়।

আগে বলা হয়েছে, সুন্দরবন হচ্ছে আমাদের জাতীয় বন। এখানকার জঙ্গল দেশের অন্যসব জঙ্গলের মতো নয়; অত্যন্ত দুর্গম। এ জঙ্গল সম্পর্কে যারা জানেন, তারাই উপলব্ধি করেন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত বাহিনীর প্রয়োজনীয়তা। অথচ আমাদের দেশের দুর্গম এ অরণ্যে অপারেশন পরিচালনার মতো প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কোনো রক্ষীবাহিনী নেই। নেই সুন্দরবনের অপরাধ নিধনের জন্য আলাদা কোনো বাহিনীও। তার পরেও সরকার বন রক্ষায় আন্তরিকভাবে সচেষ্ট রয়েছেন। আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর সহায়তায় বনদস্যুদের উত্পাত অনেকাংশে দমন করেছেনও। বিশেষ করে র্যাবের মাধ্যমে সুন্দরবনের অপরাধ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়েছে। আগের মত জিম্মি বা অপহরণ এখন আর দেখা যায় না। বিছিন্ন কিছু ঘটনা ঘটলেও সেটি দমনে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী যথেষ্ট তত্পর থাকেন। সাধুবাদ জানাতে হয় তাই তাদেরকে এবং অবশ্যই সরকারকে। এসব প্রচেষ্টা নিশ্চিতভাবে সুন্দরবন রক্ষার পাশাপাশি জাতির জন্য সুফল বয়ে আনবে।

লেখক: বন্যপ্রাণী বিশারদ ও পরিবেশবিদ

alamshine@gmail.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here