সুন্দরবনের সুরক্ষা

0
386

প্রাকৃতিক দুর্যোগ-দুর্বিপাকে সুন্দরবন উপকূলীয় এলাকার মানুষকে ঢাল হিসাবে রক্ষা করিতেছে। সমপ্রতি প্রকাশিত বিশ্বব্যাংকের একটি রিপোর্টেও তাহা স্বীকার করা হইয়াছে। এই সংক্রান্ত তাহাদের এক পলিসি রিসার্চ ওয়ার্কিং পেপারে বলা হইয়াছে, ৫০ মিটার হইতে দুই কিলোমিটার দীর্ঘ ম্যানগ্রোভ বন জলোচ্ছ্বাসের উচ্চতা চার সেন্টিমিটার হইতে ১৬ দশমিক ৫ সেন্টিমিটার পর্যন্ত কমাইতে পারে। আর ৫০ হইতে ১০০ মিটার ঘনত্বের কেওড়া বা বাইন বৃক্ষরাজি পানিপ্রবাহের গতিবেগ ২৯ হইতে ৯২ ভাগ কমাইয়া আনিতে পারে। উপকূলের দক্ষিণ হইতে উত্তর পর্যন্ত সুন্দরবনের বিস্তৃতি ৭০-৮০ কিলোমিটার। তাই সুন্দরবন পার হইতে হইতেই দুর্বল হইয়া পড়ে উত্তরমুখী ঘূর্ণিঝড়। ফলে রাজধানীসহ অন্যান্য অঞ্চলের মানুষ তাহা তেমন একটা টের পান না। তাহাদের ক্ষয়-ক্ষতি হয় অনেক কম। এইভাবে অর্থনৈতিক ও সামাজিক ক্ষয়-ক্ষতি হইতে বাংলাদেশকে সুরক্ষা দিতেছে সুন্দরবন।

শুধু বিশ্বব্যাংক নহে, সমপ্রতি ইউএসএইড ও উইনরক ইন্টারন্যাশনালের আর্থিক সহায়তায় পরিচালিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বন ও পরিবেশ বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের (আইএফইএসসিইউ) একটি সমীক্ষায় দেখা যায়, বত্সরে সুন্দরবনের আর্থিক অবদান ৫৮৫৬ কোটি টাকা। তন্মধ্যে ঘূর্ণিঝড় বা জলোচ্ছ্বাসের সময়ে উপকূলীয় অঞ্চলের যে সম্পদ রক্ষিত হয়, তাহার আর্থিক পরিমাণ তিন হাজার ৮৮১ কোটি টাকা। সুন্দরবন হইতে মোট ২২ ধরনের সেবা মেলে। সকল সেবা যদি অন্তর্ভুক্ত করা হয়, তাহা হইলে এই বনের আর্থিক অবদান দাঁড়াইবে আরো কয়েকগুণ বেশি। বন বিভাগের এক গবেষণা বলিতেছে, সুন্দরবন বত্সরে ১৬ কোটি মেট্রিক টন কার্বন ধরিয়া রাখে। আন্তর্জাতিক কার্বন বাজার অনুসারে ইহার মূল্য পাঁচ হইতে ছয় বিলিয়ন ডলার। তাহাছাড়া প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে প্রায় এক কোটি মানুষের জীবন-জীবিকা ইহার ওপর নির্ভরশীল। এখানে রহিয়াছে প্রায় ৩০০ প্রজাতির উদ্ভিদ, ৪২৫ ধরনের প্রাণী ও ২৯১ জাতের মাছের আবাসস্থল। আমাদের জাতীয় আয়ে বনের অবদান যেখানে প্রায় ৫ শতাংশ, সেখানে এককভাবে সুন্দরবনেরই অবদান ৩ শতাংশ। তাই ইউনেস্কো কর্তৃক ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ সুন্দরবন রক্ষার কথা শুধু সরকার ও পরিবেশ বিশেষজ্ঞরাই নন, এখন ইহার মূল্য সাধারণ মানুষও মর্মে মর্মে উপলব্ধি করিতেছেন।

বিশ্বের সর্ববৃহত্ এই ম্যানগ্রোভ বন রক্ষায় টেকসই ও বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ গ্রহণের কথা অনেকে বলেন। কিন্তু এই ধরনের পদক্ষেপের প্রকৃতি কেমন হওয়া উচিত? আমরা জানি, সুন্দরবনের পেশাজীবীদের মধ্যে ৩১ শতাংশ জ্বালানি কাঠ সংগ্রহ করে। ইহাছাড়া তাহাদের গত্যন্তর নাই। এইজন্য আমরা দেখি মৌয়াল বা গোলপাতা কাটার পারমিট নিয়া কেহ কেহ নৌকার নিচে মূল্যবান কাঠ বা গাছ নিয়া আসিতেছে। তাই সুন্দরবন রক্ষা করিতে হইলে এই অঞ্চলে বিকল্প জ্বালানির ব্যবস্থা করিতে হইবে। দিতে হইবে গ্যাসের সংযোগ বা সুলভে গ্যাস সরবরাহের নিশ্চয়তা। পাশাপাশি বনের ওপর নির্ভরতা কমাইতে আশেপাশের জনগোষ্ঠীর জন্য পৃথক জীবিকার উদ্যোগ নেওয়া, তাহাদের প্রশিক্ষণ ও ঋণ দিয়া স্বনির্ভর করিয়া তোলা, চিংড়ির ঘের বাড়িতে না দেওয়া, বন রক্ষায় আইনের কঠোর প্রয়োগ করাও জরুরি। আশার কথা হইল, সুন্দরবনকে ঘিরিয়া জাগিয়া উঠিতেছে নূতন নূতন চর যাহা আরেক বাংলাদেশের হাতছানি দিতেছে। সুতরাং সুন্দরবনের সম্ভাবনাকে সঠিকভাবে কাজে লাগানোই হইবে বুদ্ধিমানের কাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here