সুন্দরীদের যোগাড় করে হেদায়েত: যশোরের আবাসিক হোটেল পলাশ এখন মিনি পতিতালয়

0
719

নিজস্ব প্রতিবেদক:যশোর শহরের বাবু বাজার পতিতালয়ের পাশে আবাসিক হোটেল পলাশ এখন মিনি পতিতালয়ে পরিণত হয়েছে। ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা বসিয়ে চালানো হচ্ছে দেহ ব্যবসা। দীর্ঘদিন ধরে ম্যানেজার শেখহাটি এলাকার হেদায়েত সুন্দরীদের মোবাইল ফোনে যোগাড় করে হোটেলে এনে দেহ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। বড় বাজার এলাকার এ হোটেল নিয়ে আলোচিত হলেও পুলিশ অজ্ঞাত কারণে অভিযান চালায় না বলে অভিযোগ রয়েছে।
একাধিক সূত্র জানায়, পলাশে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত যৌনকর্মী রাখা হচ্ছে। একটি গোপন কক্ষে ৪ থেকে ৫জন সুন্দরীকে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়। খদ্দের গেলে তাদের দেখানো হয়। পছন্দ হলে ২শ’ থেকে ৫শ’ টাকার মধ্যে সরবরাহ করা হয়। আবার রাতের জন্য বোর্ডারদের ইচ্ছা অনুযায়ী কলগার্ল ডাকা হয়। তবে এক্ষেত্রে রেট বেশি। একরাতের জন্য ২ থেকে ৫হাজার টাকা পর্যন্ত নেয়া হয়।
সূত্র জানায়, হোটেল মালিক হোটেলের নিচে তার দোকানে বসে একটি কম্পিউটারের মাধ্যমে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা নিয়ন্ত্রন করেন। আর উপরে ম্যানেজার হেদায়েত হোসেন কলগার্ল ও খদ্দের দেখভাল করেন। প্রতিদিন ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বোরকা পরে কলগার্লরা ঢোকে ও দুপুর সাড়ে ১২টার মধ্যে বের হয়ে যায়। এ সময়ের মধ্যে উপার্জনের একাংশ ১২শ’ টাকা মালিক পান। তবে ইদানিং সন্ধ্যা পর্যন্ত রাখা হচ্ছে। তবে ব্যবসা হোক বা না হোক মালিককে ওই টাকা দিতেই হবে। প্রতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার কলগার্ল পরিবর্তন করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন সময় ঘন্টা চুক্তিতে রুম ভাড়া দেয়া হয় যুবক যুবতীদের।
পাশের এক ব্যবসায়ী নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, প্রতিদিন হোটেলের বোর্ডার বাদেও বহিরাগত লোকজনের আনাগোনা থাকে। তারা আসে কলগার্লের খোঁজে। চাহিদা অনুযায়ী এখানে কর্লগাল পাওয়ায় খদ্দেরদের ভিড় জমে। অনেক সময় পাশের পতিতালয়ে আসা লোকজনও এই হোটেলে যায়। ফলে পতিতালয়ের ব্যবসায় ভাটা পড়ছে।
সুন্দরী কর্লগার্ল নিয়ন্ত্রণ করার পাশাপাশি হেদায়েত সন্ত্রাসীদের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে। কারণ হোটেলে নারী ব্যবসা টিকিয়ে রাখার স্বার্থে আশপাশের বাসিন্দাদের হুমকি ধামকির মুখে রাখতে সন্ত্রাসীদের আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়ে থাকে।
সুত্র :-দৈনিক স্পন্দন