সুশীল সমাজ ও বুদ্ধিজীবীদের বড় অংশের এই পলায়নবাদী মনোভাব কেন?

0
349

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী : বাংলাদেশে ধর্মান্ধতার প্রসার, মৌলবাদীদের উগ্রতা সামাজিক অবক্ষয়কে আরো দ্রুততর ও গভীরতর করে তুলতে পারত, যদি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এখন পর্যন্ত ক্ষমতায় না থাকত। আওয়ামী লীগের অনেক ভুলত্রুটি আছে। ডানপন্থার দিকে ঝুঁকে পড়ার প্রবণতাও আছে। কিন্তু এই দলটিই এখন পর্যন্ত দেশে ফার রাইট বা উগ্র ডানপন্থি ও মধ্যযুগীয় মৌলবাদী অভ্যুত্থান ঠেকিয়ে রেখেছে। ভারতের মতো দীর্ঘস্থায়ী গণতন্ত্রের দেশে বাম রাজনীতি যা পারেনি, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের মতো অ-বামপন্থি রাজনৈতিক দল তা পেরেছে

বাংলাদেশে অর্থনৈতিক উন্নতির পাশাপাশি একটা সামাজিক প্রগতির আশা করা গিয়েছিল। কিন্তু সেটা ঘটেনি। বরং একটা সামাজিক পশ্চাত্গতি লক্ষ করা যাচ্ছে। ধার্মিকতার বদলে ধর্মান্ধতা, উদারতার বদলে সংকীর্ণতা, সংস্কারের বদলে কুসংস্কার, বিজ্ঞানমনস্কতার বদলে মধ্যযুগীয় অন্ধতা আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত সমাজের আলোকিত অংশকেও ক্রমশ গ্রাস করছে। তার ছাপ পড়েছে আমাদের রাজনীতিতেও। শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা বিশ্বেই এখন হার্ড রাইট বা উগ্র ডানপন্থার জয়-জয়কার। অর্থাত্ উগ্র ডানপন্থারও বিশ্বায়ন ঘটেছে।

ভারতে চরম ডানপন্থি বিজেপি’র বিরাট নির্বাচন জয়, আমেরিকার ডোনাল্ড ট্রাম্পের হোয়াইট হাউসে প্রবেশ, ব্রিটেনে আগামী ৮ জুনের সাধারণ নির্বাচনে টোরি দলের হার্ড রাইট ব্রেক্সিটপন্থিদের বিরাট জয়লাভের সম্ভাবনা, ফ্রান্সে বর্ণবিদ্বেষী ফ্রন্ট ন্যাশনালের নেতা লে পেনের বিপুল জনপ্রিয়তা (যদিও প্রেসিডেন্ট পদে হয়ত মধ্যপন্থি স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হবেন) একথাই প্রমাণ করে যে, সারা বিশ্বেই হার্ড রাইটদের সফল অভ্যুত্থান চলছে। ৮ জুন ব্রিটেনের সাধারণ নির্বাচন। তার মাসখানেক আগে মে মাসে অনুষ্ঠিত লোকাল সেলফ গভরমেন্টের নির্বাচনে লেবার পার্টি ভালো করতে পারেনি।

ফলে অনেকে আশঙ্কা করছেন, আগামী মাসের সাধারণ নির্বাচনে করবিনের নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টি হয়ত বিরাট পরাজয়ের সম্মুখীন হবে। টোরি দলের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে বড় ধরনের সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে আবার সরকার গঠন করবেন। তা যদি ঘটে তাহলে করবিনকেই একইভাবে এই পরাজয়ের জন্য দায়ী করা হবে। যদিও তাকে হার্ড লেফ্ট বলা হয়, তিনি তা নন। তিনি সেন্ট্রাল লেফ্ট-এর নেতা। কিন্তু ব্রিটিশ এলিট ক্লাস এবং এস্টাবলিসমেন্ট এখন মধ্য বাম রাজনীতিও বরদাশত করতে রাজি নয়। এজন্য দলের ডান অংশ তথা ব্লেয়ারপন্থিদের পরাজিত করে করবিন লেবার পার্টির নেতা নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই টোরি দল, এস্টাবলিসমেন্ট, বিগ মিডিয়া ও লেবার দলের ব্লেয়ারপন্থি অংশ ও এমপিরা তার বিরুদ্ধে সম্মিলিত আক্রমণ শুরু করে।

আগামী সাধারণ নির্বাচনেও যদি লেবার পার্টি পরাজিত হয় তার জন্য করবিন দায়ী হবেন না। দায়ী হবেন দলের ভেতরের বিভীষণেরা। তাদের চক্রান্তে করবিন গ্রিক ট্রাজেডির হিরোর বিপর্যয় বরণ করতে পারেন। কিন্তু মিডিয়ায় প্রচার চলবে করবিন হার্ড লেফ্ট। তার জন্যই নির্বাচনে লেবার পার্টির এই পরাজয়। ব্রিটেনের মতো উন্নত গণতান্ত্রিক দেশেও সামাজিক ও রাজনৈতিক জীবনে একই ধরনের অবক্ষয় শুরু হয়েছে এবং সুবিধাবাদী এলিট ক্লাস সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করার সুযোগ গ্রহণ করছে। এ ক্ষেত্রে আশার কথা একটিই ব্রিটেনের বুদ্ধিজীবীদের একটি বড় উদার অংশও করবিনকে সমর্থন দানের ব্যাপারে পলায়নবাদী ভূমিকা গ্রহণ করলেও লেবার পার্টির তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের বড় অংশকে তা প্রভাবিত করতে পারেনি। তাদের সমর্থনেই করবেন লেবার পার্টির নেতার পদে সকল চক্রান্তের মুখে টিকে আছেন এবং আগামী মাসের সাধারণ নির্বাচনেও হয়ত বড় বিপর্যয় এড়াতে পারবেন।

এবার বাংলাদেশের কথায় ফিরে আসি, বাংলাদেশে ধর্মান্ধতার প্রসার, মৌলবাদীদের উগ্রতা সামাজিক অবক্ষয়কে আরো দ্রুততর ও গভীরতর করে তুলতে পারত, যদি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এখন পর্যন্ত ক্ষমতায় না থাকত। আওয়ামী লীগের অনেক ভুলত্রুটি আছে। ডানপন্থার দিকে ঝুঁকে পড়ার প্রবণতাও আছে। কিন্তু এই দলটিই এখন পর্যন্ত দেশে ফার রাইট বা উগ্র ডানপন্থি ও মধ্যযুগীয় মৌলবাদী অভ্যুত্থান ঠেকিয়ে রেখেছে। ভারতের মতো দীর্ঘস্থায়ী গণতন্ত্রের দেশে বাম রাজনীতি যা পারেনি, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের মতো অ-বামপন্থি রাজনৈতিক দল তা পেরেছে।

অতীতে আওয়ামী লীগের মতো বিরাট জনসমর্থিত দলকে ডানপন্থার দিকে ঝুঁকে পড়া থেকে রক্ষা করেছে বঙ্গবন্ধুর মধ্য-বাম রাজনীতি এবং তাকে সমর্থন ও সহায়তা জুগিয়েছে দেশের প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী সমাজ ও বাম রাজনীতি। ভাষা আন্দোলন থেকে স্বাধীনতার যুদ্ধ পর্যন্ত বুদ্ধিজীবী ও বামপন্থিদের বড় অংশ আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিয়েছে এবং আওয়ামী লীগের ভেতরের ডানপন্থি প্রতিক্রিয়াশীল অংশকে মাথা তুলতে দেয়নি। ছয় দফার আন্দোলনের বিরোধিতা, রবীন্দ্রসংগীত বর্জনের পাকিস্তানি চক্রান্তে সমর্থন দিতে গিয়ে তারা আওয়ামী লীগ থেকে বেরিয়ে যেতে বাধ্য হন।

বর্তমানে দেশে বাম রাজনীতি খুবই দুর্বল এবং বুদ্ধিজীবীদের তথা সুশীল সমাজের একটা বড় অংশ নিরপেক্ষতার ভান ধরে সুবিধাবাদী ও পলায়নী মনোবৃত্তির পরিচয় দেখাচ্ছেন। অতীতের সংগ্রামী ভূমিকা তাদের আর নেই। ঘরে বসে সকল ব্যাপারে সরকারকে দায়ী করা এবং শেখ হাসিনার সমালোচনা দ্বারা তারা প্রকারান্তরে প্রতিক্রিয়াশীল ডানপন্থি ও মৌলবাদীদের প্রচারণাকেই সহায়তা জোগাচ্ছেন।

পঞ্চাশের দশক থেকে সত্তরের দশক পর্যন্ত বাংলাদেশে (তত্কালীন পূর্ব পাকিস্তানে) বাম গণতান্ত্রিক সাংস্কৃতিক আন্দোলন ছিল অসম্ভব শক্তিশালী। অনুরূপভাবে শক্তিশালী ছিল বাম রাজনীতি। তাদের সমর্থন ও সহায়তায় আওয়ামী লীগের পক্ষে ভাষা আন্দোলন, বাংলা হরফ রক্ষার আন্দোলন, রবীন্দ্র-নজরুল সংগীত রক্ষার আন্দোলন, ভাষা শহীদ মিনারকে মসজিদ করার চক্রান্ত রোধ করার আন্দোলন ইত্যাদিতে শক্তিশালী নেতৃত্ব দেওয়া সম্ভব হয়েছে। বর্তমানে দেশে বাম সাংস্কৃতিক আন্দোলন দুর্বল ও অনৈক্য জর্জরিত, বাম রাজনীতি আরো দুর্বল। আওয়ামী লীগের বাহুতে শক্তি জোগানোর জন্য পঞ্চাশের ও ষাটের দশকের সেই শক্তিশালী সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক শক্তির দুর্গ কোথায়?

৭১-এর যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে আন্দোলনের সময় আমাদের সুশীল সমাজের শীর্ষ নেতারা ছিলেন স্পিকটি নট। এই যুদ্ধাপরাধীদের দণ্ড দেওয়া হলে তাদের ভিতর থেকেই ফিসফাস আওয়াজ উঠেছে, বিচার স্বচ্ছ হয়নি, সুশীল সমাজের এক শীর্ষ নেতার এক বিদেশি জামাতা তো যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পর্কে বিশ্বময় বিভ্রান্তি সৃষ্টির চেষ্টা করেছেন। শেখ হাসিনাকে তার প্রাণের ঝুঁকি নিয়ে যুদ্ধাপরাধীদের দণ্ড কার্যকর করতে হয়েছে। এখন আবার হেফাজতিদের সরকার প্রশয় দিচ্ছেন বলে এই বুদ্ধিজীবীদেরই একটা অংশ অভিযোগ তুলেছেন।

আমার কথা, অতীতের জামায়াতবিরোধী আন্দোলনের মতো আমাদের এলিট ক্লাস ও বুদ্ধিজীবীরা কেন হেফাজতবিরোধী আন্দোলন গড়ে তুলছেন না? সব কাজই শেখ হাসিনাকে একা করে দিতে হবে? আর তারা ঘরে বসে ড্রয়িং রুম পলিটিকস করবেন? তারা হেফাজতের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নামলে তো শেখ হাসিনার বাহুতে শক্তি জোগানো হয়। তিনিও কৌশলের রাজনীতি বদলে ধর্মান্ধ ও প্রতিক্রিয়াশীল শক্তির বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান গ্রহণ করতে পারেন। সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে ন্যায় বিচারের প্রতীক একটি ভাস্কর্য বসিয়ে দেশের প্রধান বিচারপতি সংকটে পড়েছেন। প্রধানমন্ত্রীও উভয় সংকটে পড়েছেন। তাদের সংকটমুক্ত করার জন্য দেশের প্রগতিশীল সংস্কৃতিসেবীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নামছেন না কেন? কেবল দেন-দরবার ও সরকারকে দোষারোপের মধ্যে নিজেদের কর্মসূচি সীমাবদ্ধ রাখছেন কেন?

অথচ পঞ্চাশের দশকে পাকিস্তান আমলে ভাষা শহীদ মিনার পাঁচবার পুলিশ ও সৈন্যবাহিনী ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়ার পরও ছাত্র-জনতা ও বুদ্ধিজীবীদের সম্মিলিত প্রতিরোধের মুখে শহীদ মিনার আবার গড়ে উঠেছে। শহীদ মিনার নির্মাণ ইসলাম-বিরোধী, এটা প্রতীক পূজা ইত্যাদি ফতোয়া মৌলবাদীরা তখনো দিয়েছিল। বুদ্ধিজীবীদের নেতৃত্বে জনতার প্রতিবাদ এই ফতোয়া ব্যর্থ করে দিয়েছিল। আজ সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণের ভাস্কর্য নিয়ে মৌলবাদীরা একই প্রচারণায় মেতেছে এবং হুমকি দিচ্ছে। তাকে প্রতিরোধের জন্য প্রগতিশীল সংস্কৃতিকর্মী ও বুদ্ধিজীবীরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে ছাত্র-জনতাকে নিয়ে আন্দোলনে নামছেন না কেন? কেবল সরকারকে দোষারোপ করে নিজেদের গা বাঁচিয়ে কেন চলছেন? সরকারকে কি পুলিশ পাহারায় এই ভাস্কর্য রক্ষা করতে হবে? একটি গণতান্ত্রিক সরকারও পশ্চাত্পসরণের নীতি গ্রহণ করে, যখন তারা দেখে তাদের পেছনে ঐক্যবদ্ধ জনগণের কোনো সমর্থন নেই।

বাংলাদেশে বৈশাখী মেলা, শারদোত্সব ও বসন্ত উত্সবকে ইসলামবিরোধী ঘোষণা করেছিল মৌলবাদী চক্র। সরকারকে আইন করে এই উত্সবগুলো রক্ষা করতে হয়নি, দেশের সংস্কৃতিকর্মীরাই তাকে রক্ষা করেছেন। বর্তমানেও দেশের রাজনীতি ও সামাজিক অবস্থার এই পশ্চাত্মুখিতার বিরুদ্ধে গণচেতনা গড়ে তুলতে হবে। তা একমাত্র পারে দেশের প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক আন্দোলন এবং তাতে সাহসী বুদ্ধিজীবীদের নেতৃত্ব। তাতে দেশের গণতান্ত্রিক সরকারও তাদের প্রগতিশীল অবস্থানে অনড় থাকার শক্তি পান। যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লাকে ফাঁসি দেওয়া সম্ভব হতো না, যদি দেশে উত্তাল গণজাগরণ তৈরি করা না যেত।

দেশে বর্তমান মৌলবাদী উগ্রতা ও আন্দোলন মোকাবিলা করার জন্য সচেতন গণ ঐক্য ও গণপ্রতিরোধ প্রয়োজন। এই ব্যাপারে বুদ্ধিজীবীদের বিরাট ভূমিকা রয়েছে। সেই ভূমিকা এড়িয়ে গিয়ে পলায়নবাদী মনোভাব দ্বারা পরিচালিত হয়ে কেবল সরকারের উপর দোষ চাপিয়ে তারা দেশকে এবং সমাজকে বর্তমান অবক্ষয় ও সংকট থেকে রক্ষা করতে পারবেন না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here