সুষমা স্বরাজের ঢাকা সফর এবং ভারতের বাংলাদেশনীতি

0
211

ড. রাশিদ আসকারী : যৌথ পরামর্শক কমিশন (জেসিসি)এর চতুর্থ সভায় অংশগ্রহণের জন্য ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রীমতি সুষমা স্বরাজের ঢাকা সফর সময়ের বিচারে মাত্র ২৬ ঘন্টার আয়ু পেলেও গুরুত্বের বিচারে এক নতুন মাত্রা যুক্ত করেছে। বিশেষ করে ভারতীয় হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সারি ভবন উদ্বোধনকালে প্রতিবেশীর সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের স্বরূপ জানতে চেয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সুষমা স্বরাজ যখন সহাস্যে বলেন: ‘Neighbours First, Bangladesh foremost’ অর্থাত্ প্রতিবেশী প্রথম, বাংলাদেশ প্রথমতম। ভারতের পররাষ্ট্রনীতিতে দুই দশকেরও অধিককালের পুরনো ‘লুক ইস্ট পলিসি’তে নরেন্দ্র মোদি সরকারের ‘নেইবারহুড ফাস্ট পলিসি’ যে এক নতুন মাত্রা যুক্ত করেছে এবং দক্ষিণ এশিয়ার ভূ-রাজনীতিতে ভারতের পররাষ্ট্রনীতির বিচক্ষণতার পরিচয় দিচ্ছে—তাতে আরেক ধাপ অগ্রযাত্রা হিসেবে বিবেচিত হতে পারে সুষমা স্বরাজের এই Bangladesh foremost ঘোষণা। যৌথ পরামর্শক কমিশনের মামুলি মিটিং হলেও এর পূর্বাপর আনুষঙ্গিক ঘটনাবলি, বিশেষ করে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তার কূটনৈতিক ব্যাকরণ অতিরেক অন্তরঙ্গ সাক্ষাত্, দুই জনপ্রিয় নেত্রীর নিবিড় সম্ভাষণ বিনিময়, শেখ হাসিনাকে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি স্মারক দ্রব্যাদি উপহার দেয়া এবং আঞ্চলিক নিরাপত্তা বলয় সৃষ্টিতে একযোগে কাজ করার প্রত্যয় প্রকাশ প্রভৃতি দু’দেশের পারস্পরিক সম্পর্কোন্নয়নে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়। তিস্তার পানি বন্টন চুক্তির দীর্ঘসূত্রতা নিয়ে জনমনে যে অনিশ্চয়তার মেঘ জমেছিলো তার আড়ালেও সূর্যের ঝিলিক দেখা গেছে সুষমার আন্তরিকতা ও অভিব্যক্তিতে।

এমনিতেই সুষমা স্বরাজ একজন প্রিয়দর্শিনী রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। মার্কিন দৈনিক পত্রিকা ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল তাকে সবচাইতে প্রিয় রাজনীতিক হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। তাছাড়া ইন্দিরা গান্ধীর পর তিনি ভারতের দ্বিতীয় সফল মহিলা বিদেশমন্ত্রী। ইন্দিরা গান্ধী ছিলেন ভারতের ষষ্ঠ পররাষ্ট্র বিয়ষক মন্ত্রী এবং সুষমা স্বরাজ ২৮তম। মাত্র ২৫ বছর বয়সে উত্তর ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের কনিষ্ঠতম কেবিনেট মন্ত্রী হিসেবে রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শুরু করে তিনি সাতবার পার্লামেন্ট সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। ২০১৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে মধ্য প্রদেশের বিদিশা নির্বাচনী এলাকায় নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীকে চার লাখ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে দ্বিতীয়বারের জন্য পার্লামেন্ট সদস্য নির্বাচিত হন। ২০১৪ সাল থেকে বিদেশ মন্ত্রীর দায়িত্ব দক্ষতার সাথে পালন করে আসছেন। ভারতের দশক-প্রাচীন লুকইস্ট পলিসির অনুষঙ্গ হিসেবে নেইবারহুড ফাস্ট পলিসি রূপায়ণ ও বাস্তবায়নে তিনি নরেন্দ্র মোদির সরকারের সঙ্গে কাজ করে চলেছেন অসামান্য সাফল্যের সাথে।

সুষমা স্বরাজের ঢাকা সফরে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক রোহিঙ্গা সংকটের সমাধানে ভারতের ভূমিকার বিষয়টিও স্পষ্ট হয়েছে। রাখাইনের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের শান্তিপূর্ণ স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের মধ্য দিয়েই যে কেবল এই সমস্যার একটি টেকসই সমাধান হতে পারে সুষমা স্বরাজ সে রকমই অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছেন এবং এই সংকট উত্তরণে বাংলাদেশের পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন। এদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির কণ্ঠেও অভিন্ন সুর বাজছে। এ দু’য়ে মিলে রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের অবস্থান বাংলাদেশের অনুকূলে আসবে বলে ধরে নেয়া মনে হয় অসঙ্গত হবে না। সুষমার ঢাকা সফরের এটিও একটি ধনাত্মক দিক। তবে সুষমার ঢাকা সফরকে কেন্দ্র করে গুঞ্জরিত আরেকটি বিষয়ও টক অব দ্য টাউন হয়ে উঠেছে। তা হলো বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার আকস্মিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন এবং সুষমা স্বরাজকে নিজ বাসভবনে নেমন্তন্নে হাজির করানোর কূটনৈতিক তত্পরতা গ্রহণ। মিসেস জিয়া ও তার দলের লোকেরা প্ল্যান করেছিলো যে সুষমা এই নেমন্তন্ন রক্ষা করলেই ব্যস! তারা এতে সপ্তরঙ্গ চড়িয়ে আবারো একটা ইন্ডিয়া কার্ড বানাবে এবং বাজারজাত করার চেষ্টা করবে। কিন্তু বাস্তবতা তাদের পরিকল্পনার সঙ্গে হাত মেলায়নি। শেষে মুখ রক্ষার জন্যে তারা হোটেলে গিয়ে সুষমাজির সঙ্গে সাক্ষাত্ করেন কিন্তু মনের কথা মনেই রয়ে যায়। বিএনপির আসলে চৈতন্যোদয় হতে এখনো অনেক বাকি রয়েছে। যে বিএনপি একবার জামায়াতী প্রেসক্রিপশনে কূটনৈতিক শিষ্টাচার ভুলে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জীর সৌজন্য সাক্ষাতের আহ্বানে সাড়া না দিয়ে চরম ঔদ্ধত্য প্রদর্শন করেছিলো, যে বিএনপির ডিফ্যাক্টো প্রধান তারেক জিয়ার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের আমলনামা নিয়েও রয়েছে নানা সন্দেহ-সংশয়—সেই বিএনপি নেত্রীর মধ্যাহ্নভোজের আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে তাদের অশুভ অভিলাষ উসকে দেয়ার মতো বোকামি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ মুহূর্তে সজ্ঞানে করবেন এমনটা কূটনৈতিক মহল আশাও করেননি। তাছাড়া ভারতের উত্তর-পূর্বস্থিত সপ্তভগ্নি রাজ্যসমূহে সহিংস বিচ্ছিন্নতাবাদী অপতত্পরতা রুখতে হলে সহায়ক প্রতিবেশী হিসেবে বিএনপির চাইতে আওয়ামী লীগই বেশি নির্ভরশীল হবে সে বিবেচনাও নিশ্চয়ই বিচক্ষণ ভারত সরকারের আছে।

ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কোন্নয়নে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দিক থেকে যেমন আন্তরিক ও দৃশ্যমান প্রয়াসের ঘাটতি নেই, তেমনি ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে সুষমা স্বরাজকেও এ ব্যাপারে যথেষ্ট আন্তরিক বলে মনে হয়েছে। ঐতিহাসিক ল্যান্ড বাউন্ডারি চুক্তি সম্পাদনেও সুষমার আন্তরিক প্রচেষ্টা লক্ষ করা গেছে। তিস্তার পানি বন্টন চুক্তি না হওয়ার জন্য যে উপাদানগুলো কাজ করছে তার অধিকাংশই পশ্চিম বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে সম্পর্কিত, নরেন্দ্র মোদি কিংবা সুষমার সঙ্গে নয়। তারপরও কেন্দ্রীয় সরকার বলে কথা। বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নের সাফল্য যেমন কেন্দ্রীয় সরকারের কৃতিত্বের যোগফলে সংযুক্ত হয়, ব্যর্থতাও তেমনি তাদের অসাফল্যের পাল্লাই ভারী করে। তিস্তাসহ সকল যৌথ নদীর পানি বন্টনের বিষয়গুলো সাম্য ও ন্যায়বিচারের ভিত্তিতেই সম্পাদিত হবে বলে আবারো আশ্বস্ত করেছেন সুষমা স্বরাজ। কোনো প্রাদেশিক সরকারের ভেটো বেশিদিন কার্যকর থাকবে না। ‘প্রতিবেশী প্রথম, তারচেয়ে প্রথম বাংলাদেশ’ ঘোষণা দিয়ে সুষমা যে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের ইতিহাসে নতুন মাত্রা যুক্ত করে পারস্পরিক আস্থার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করলেন তার দৃশ্যমান রূপায়ণ দেখতে চায় বাংলাদেশ।

লেখক: অধ্যাপক ও রাজনীতি বিশ্লেষক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here