সেই দুই পরিচ্ছন্নতাকর্মী এখন ‘রাজস্ব যোদ্ধা’

0
264

ম্যাগপাই নিউজ ডেক্স : বেসরকারি ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের পরিচ্ছন্নতাকর্মী আলমাস হোসাইন ও আবদুল কাদের প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকার স্বর্ণ পেয়ে ফেরত দিয়েছেন। চোরাচালান প্রতিরোধে সহায়তা করায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)তাদের‘রাজস্ব যোদ্ধা’ উপাধি দিয়ে সম্মানিত করেছে।

বুধবার বিকালে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরে তাদের সম্মাননা প্রদান করেন এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।

গত ১ মে সোমবার দুপুরে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট বিএস টু জিরো টু ফ্লাইটটি কলকাতা থেকে ঢাকায় অবতরণ করে। এরপর বিমানটি বিমানবন্দরের  বে-তে পরবর্তী ফ্লাইটের জন্য ডিপ ক্লিন করতে পার্ক করা হয়। পরিষ্কার করার সময় ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের পরিচ্ছন্নতা কর্মী আবদুল কাদের ও আলমাস হোসাইন একটি প্যাকেটে স্বর্ণ দেখতে পান। তাদের কাছে সিকিউরিটি পাস ছিল ইচ্ছে করলে দুইজনই স্বর্ণ নিয়ে নিতে পারতেন।

কিন্তু তারা না নিয়ে বিষয়টি শাহজালাল বিমানবন্দরের কাস্টমস কর্তৃপক্ষকে জানান এবং তাদের কাছেই স্বর্ণের প্যাকেট হস্তান্তর করেন। পরে প্যাকেট থেকে প্রতিটি ১০ তোলা (১১৬ গ্রাম) ওজনের ৬০টি স্বর্ণবার পাওয়া যায়। যার মোট ওজন প্রায় ৭ কেজি ও বাজার মূল্য প্রায় ৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান বলেন, বিমানের অভ্যন্তরে প্রাপ্ত স্বর্ণ নিজ উদ্যোগে কাস্টমস কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর বা সংবাদ প্রদান একটি বিরল ঘটনা। এটি বিমানবন্দরে কর্মরত সকল এজেন্সির কর্মকর্তা কর্মচারীদের জন্য একটি দৃষ্টান্ত।

পরিচ্ছন্নতাকর্মী আলমাস হোসাইন বলেন, ‘বিবেকের তাড়নায় আমরা স্বর্ণ নেইনি। কোন কিছু আত্মসাৎ করার শিক্ষা আমাদের ম্যানেজমেন্ট আমাদের দেয়নি।’

অর্থপাচার প্রসঙ্গ

বাংলাদেশ থেকে বিদেশে অর্থপাচার নিয়েও কথা বলেন এনবিআর চেয়ারম্যান। তিনি বলেন, মুদ্রাপাচার রোধে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সেল (সিআইসি) ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে। মুদ্রাপাচারের অনেকগুলো মামলা রুজু করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘বাণিজ্যভিত্তিক বেশ কিছু মুদ্রাপাচারের ঘটনা তদন্ত করে রহস্য উৎঘাটন ও মামলা দায়ের করেছি। আমরা বেশ কিছু অপরাধীকে শনাক্ত করেছি, তাদের গ্রেপ্তারও করা হয়েছে। বেশ কিছু অপরাধী নজরদারির মধ্যে আছেন। এসব বিষয়ে আমরা খুবই সক্রিয় থাকবো।’

উল্লেখ্য ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান গ্লোবাল ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটি (জিএফআই) গত মঙ্গলবার অর্থ পাচারের তথ্য প্রকাশ করেছে। এতে বলা হয়, ২০১৪ সালে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৯১১কোটি ডলার বা প্রায় ৭২ হাজার ৮৭২ কোটি টাকা পাচার হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here